Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৭ চৈত্র ১৪২১ বুধবার ১ এপ্রিল ২০১৫
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
বাবরি: আদবানিদের নোটিস সুপ্রিম কোর্টের--রাজীব চক্রবর্তী ।। সেবি-র নিষেধ উড়িয়ে টাকা তুলেছে রোজভ্যালি--সোমনাথ মণ্ডল ।। রাজনাথের রাজনৈতিক সফর! প্রতিবাদ মমতার ।। আলুচাষের বিপর্যয়, আর্থিক সঙ্কটে তল্লাটের কৃষি সমবায় ।। ওরা স্বস্তিতে নেই বলেই শক্তি প্রয়োগ করছে: সূর্য ।। খাগড়াগড় নিয়ে মমতাকে সিদ্ধার্থনাথের ১০ প্রশ্ন ।। সন্ত্রাস দমনের নামে আনা মোদির রাক্ষুসে বিল ফের পাস গুজরাটে ।। নতুন দল? যোগেন্দ্র-প্রশাম্ত বৈঠক ডেকেছেন ১৪ তারিখ ।। চীনে ঝাড়ুতে কলকাতা সাফ!--তাপস গঙ্গোপাধ্যায় ।। পুরভোটে তৃণমূলকে সমর্থন সিদ্দিকুল্লার--দীপঙ্কর নন্দী ।। ওপারেও পুরভোট ।। ইয়েমেনে আটকে আছে ৪০ বাঙালি
কলকাতা

কলকাতা নির্বাচনে দলের বিরুদ্ধে প্রার্থী

ওঁরা চান রঙিন বস্তি

চীনে ঝাড়ুতে কলকাতা সাফ!

কলকাতা নির্বাচনে দলের বিরুদ্ধে প্রার্থী

হওয়ায় ৬ জনকে বহিষ্কার তৃণমূলের

পুরভোটে তৃণমূলকে সমর্থন সিদ্দিকুল্লার

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

দীপঙ্কর নন্দী

সিদ্দিকুল্লা চৌধুরির দল পুরভোটে প্রার্থী দেয়নি৷‌ মঙ্গলবার সিদ্দিকুল্লা নিজেই বলেন, কলকাতা-সহ ৯১টি পুরসভা নির্বাচনে তাঁরা তৃণমূল প্রার্থীদের সমর্থন করছেন৷‌ দলীয় কর্মীদের বলে দেওয়া হয়েছে, যেখানে তৃণমূলের প্রার্থী রয়েছেন, তাঁদেরকে ভোট দিতে হবে৷‌ সিদ্দিকুল্লা বলেন, বি জে পি-র সঙ্গে আমরা যেতে পারব না৷‌ এখানে বিরোধী দলের অবস্হা ভাল নয়৷‌ আমরা মনে করি, যেটুকু উন্নয়ন তা মমতাই করবেন৷‌ তাই পুরভোটে তৃণমূলকে সমর্থনের সিদ্ধাম্ত নিলাম আমরা৷‌ ওদের প্রার্থীদের ভোট দিতে আমাদের কোনও আপত্তি নেই৷‌ ২০১৬ বিধানসভা নির্বাচনের জন্য সিদ্দিকুল্লার জমিয়তে-উলেমা হিন্দ প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে৷‌ সেই সময় তৃণমূলের সঙ্গে কোনও সমঝোতা হবে কিনা তা আগে থেকে কিছু জানাতে পারেননি সিদ্দিকুল্লা৷‌ এদিকে, তৃণমূল ভবনে বসে দলের মহাসচিব পার্থ চ্যাটার্জি বলেন, জেলা ও কলকাতা থেকে আমরা তথ্য সংগ্রহ করে জানতে পেরেছি যারা দলের প্রার্থীর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিলেন তাঁদের মধ্যে ৮০-৯০ শতাংশ প্রার্থী সরে গেছেন৷‌ এখনও বিক্ষিপ্তভাবে ২-১ জন নির্দল প্রার্থী রয়ে গেছেন৷‌ তাঁরা নাম প্রত্যাহার করেননি৷‌ ২১৯০ আসনের মধ্যে ১০-১২ জন দলের প্রার্থীর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিলেন৷‌ আমরা প্রার্থিপদ তুলে নেওয়ার জন্য সময়সীমা দিয়েছিলাম৷‌ কলকাতার ১৪৪টি ওয়ার্ডের মধ্যে ৪টি ওয়ার্ডে নির্দল প্রার্থীরা রয়েছেন৷‌ তাঁদের দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে৷‌ এঁদের মধ্যে ৭৯ ওয়ার্ডে বাবলু করিম, ৮০ ওয়ার্ডে আনোয়ার খান ও ৯৯ ওয়ার্ডে নির্মল দাস দলের প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রার্থী হন৷‌ এঁরা ব্লক সভাপতি ছিলেন৷‌ ৭৯ নং ওয়ার্ডে রামপিয়ারি রাম, ৮০-তে হেমা রাম ও ৯৯-তে পার্থসারথি সেন (নীতু)-কে ব্লক সভাপতি করা হল৷‌ উত্তর কলকাতায় ১৭ নং ওয়ার্ডে মোহন গুপ্ত, ১৯-এ বাবলু সামম্ত ও ৩৩নং ওয়ার্ডে কাশীনাথ বিশ্বাসকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে৷‌ এঁরাও দলের প্রার্থীর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন৷‌ পার্থ বলেন, এঁদের পেছনে যাঁরা রয়েছেন তাঁদেরকেও সতর্ক করা হয়েছে৷‌ নেতা ও কর্মীদের বলা হয়েছে, চোখ-কান খোলা রাখতে৷‌ ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷‌ পার্থ বলেন, দলের কাছে শৃঙ্খলা আগে৷‌ ভাল কাজের মূলমন্ত্র শৃঙ্খলা৷‌ আমরা বারবার মনে করি, এক দল-এক ব্যক্তি-এক রাজ্য৷‌ দল-বিরোধীদের সঙ্গে সমঝোতার কোনও রাস্তা নেই৷‌ অন্যদিকে, তৃণমূলের প্রার্থীরা বিভিন্ন ওয়ার্ডে সকাল থেকে প্রচার শুরু করে দিয়েছেন৷‌ ২-১ দিনের মধ্যেই মাইক বাজিয়ে জনসভা ও মিছিল শুরু হয়ে যাবে৷‌ উত্তর কলকাতার সুধাংশু শীলের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন বিজয় উপাধ্যায়৷‌ তিনি বলেন, ‘প্রতিটি বাড়িতে আমি যাচ্ছি৷‌ ভাল সাড়া পাচ্ছি৷‌’ দক্ষিণ কলকাতার পুরসভার চেয়ারম্যান সচ্চিদানন্দ ব্যানার্জি বলেন, ‘বহুতলে গিয়ে আবাসিকদের কাছ থেকে ভাল সাড়া পাচ্ছি৷‌’ এবার ৫৮ নং ওয়ার্ডে দাঁড়িয়েছেন স্বপন সমাদ্দার৷‌ তিনি বলেন, সকলের সমর্থন আমি পাচ্ছি৷‌ এক হয়ে কাজে নেমেছি আমরা৷‌ ১৮ এপ্রিল কলকাতার পুরসভার নির্বাচন৷‌ ১৫ এপ্রিল পর্যম্ত রাজ্য নেতারা কলকাতায় থাকবেন৷‌ তারপর জেলায় প্রচারে যাবেন৷‌ তৃণমূল ভবনে পার্থর পাশে বসেছিলেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস৷‌ তিনি বলেন, গতবারের চেয়ে এবার ফলাফল অনেক ভাল হবে৷‌ জানা গেছে, উত্তরবঙ্গ থেকে ফিরে কলকাতায় এসে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি প্রচারের কর্মসূচি ঠিক করবেন৷‌ ২০১০ সালে বিরোধী দলে থাকার সময় তিনি শ্যামবাজার, হাজরা এবং আরও বেশ কয়েকটি জায়গায় সভা করেছিলেন৷‌ পার্থ এদিন বলেন, জেলা সভাপতিদেরও বলা হয়েছে যাঁরা প্রার্থীর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্হা নিতে হবে৷‌ প্রয়োজনে বহিষ্কার করতে হবে৷‌ প্রচারে নেতারা কী বলবেন তার গাইড লাইন দিয়ে দেবেন মমতা ব্যানার্জি৷‌ রাজ্য নেতাদের বক্তব্য, মমতার উন্নয়নকে সামনে রেখেই আমরা নির্বাচনে নামছি৷‌ এছাড়া ৫ বছরে কলকাতা পুরসভার সাফল্য প্রচারে তুলে ধরা হবে৷‌ সোমবারই তৃণমূল ভবনে দলের ইস্তাহার প্রকাশ করেন মেয়র শোভন চ্যাটার্জি৷‌ সাংবাদিক বৈঠকে পার্থ বলেন, গত ৫ বছরে কলকাতা পুরসভা ঐতিহাসিক সাফল্য পেয়েছে৷‌ ক্ষমতায় এলে কলকাতাকে সবুজ ও আরও পরিচ্ছন্ন করে তোলা হবে৷‌





kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited