Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ৩ েবশাখ ১৪২১ বৃহস্পতিবার ১৭ এপ্রিল ২০১৪
Aajkaal 33
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
উত্তরবঙ্গের ৪ কেন্দ্রের ৭৪৪৩ বুথে ভোট আজ ।। রাজ্যে নির্বাচন কমিশনের বিশেষ পর্যবেক্ষক সুধীরকুমার রাকেশ ।। এবার জিতিয়ে দেখুন, দিল্লিতে কী করি: মমতা--অভিজিৎ চৌধুরি ও পবিত্র মোহাম্ত ।। অস্ত্র আইনে মামলা, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে থানায় হাজির হতে হবে বাবুলকে ।। দেহ পুঁতে বিশ্বজিতের শরণাপন্ন হয় সিকান্দর ।। খুনের মামলায় অধীর চৌধুরির আগাম জামিন ।। জনস্রোতে ভেসে দুই কন্যা-সহ মুনমুন সেনের মনোনয়ন পেশ ।। সারদায় সি বি আই? রাজ্যের বক্তব্য শেষ, সিদ্ধাম্ত ২৩শে? ।। জাতীয় পুরস্কারে বাঙালির জয়জয়কার ।। অধীর: মমতাই দেশের সবচেয়ে বড় বিচ্ছিন্নতাবাদী শক্তি ।। সুদীপ্ত সেনের স্ত্রী, ছেলে গ্রেপ্তার ।। কং অভিযোগ: ৫০০০ কোটি মোদির প্রচারে
বাংলা

এবার জিতিয়ে দেখুন, দিল্লিতে কী করি: মমতা

জনস্রোতে ভেসে দুই কন্যা-সহ মুনমুন সেনের মনোনয়ন পেশ

জাতীয় পুরস্কারে বাঙালির জয়জয়কার

নিরাপত্তায় ১১৫ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী

রাজ্যে নির্বাচন কমিশনের বিশেষ পর্যবেক্ষক সুধীরকুমার রাকেশ

জেলাশাসক, ওসি-র অপসারণ চাইল বি জে পি

সুদীপ্ত সেনের স্ত্রী, ছেলে গ্রেপ্তার

শতাব্দী চেঁচাবে লোকসভায়, আমি রাজ্যসভায়: মিঠুন

অধীর: মমতাই দেশের সবচেয়ে বড় বিচ্ছিন্নতাবাদী শক্তি

পথের কাঁটা সরান: ভোটের অ্যাপ

রাজনাথ: তৃণমূলের সমর্থন লাগবে না

অধীর রেলমন্ত্রী থাকার সময় বাংলা বঞ্চিত হয়েছে: পার্থ

মিঠুনকে নিয়ে হুড়োহুড়ি, বিরক্ত মুকুল বললেন, শোনা নয় দেখার আগ্রহ বেশি

সারদা: মাতঙ্গ সিংয়ের হিসাব মিলছে না

মোদিকে দর্জির সঙ্গে তুলনা করলেন ব্রাত্য

খুনের মামলায় অধীর চৌধুরির আগাম জামিন

শাহজাদা: কেন ব্যবস্হা নেওয়া হয়নি, জানতে চাইল হাইকোর্ট

বৃষ্টি দূরেই

সত্যর রোড শোয়ে দীপার দিদি বিজলি

এবার জিতিয়ে দেখুন, দিল্লিতে কী করি: মমতা

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

অভিজিৎ চৌধুরি ও পবিত্র মোহাম্ত: মালদা, বালুরঘাট, ১৬ এপ্রিল– একবার তৃণমূলকে জিতিয়ে দেখুন, দিল্লিতে কী করতে পারি৷‌ এদিন মালদায় মিঠুন চক্রবর্তী ও মুকুল রায়ের জনসভায় আচমকা উপস্হিত হয়ে এই বক্তব্য পেশ করেন মমতা ব্যানার্জি৷‌ মমতার এদিন এখানে আসার কথা ছিল না৷‌ এখানে আসার আগে তিনি কুমারগঞ্জ, বালুরঘাট ও গঙ্গারামপুরে প্রচার সভা করেন৷‌ ফেরার পথে মালদায় তিনি আচমকাই মিঠুন ও মুকুলের সভাতে উপস্হিত হন৷‌ তিনি এখানে বলেন, মালদার মানুষ অনেক কংগ্রেসকে ভোট দিয়েছে, তাতে কী লাভ হয়েছে আমি বলব না, আপনারাই দেখছেন৷‌ আপনাদের অনুরোধ করছি, এবার দিল্লিতে নতুন লোককে জিতিয়ে পাঠান৷‌ মালদার মতো জায়গায় অনেক কিছু করার আছে৷‌ আপনাদের পাশে আছি এবং থাকব৷‌ আপনারা একটি ভোটও নষ্ট করবেন না৷‌ সি পি এম, বি জে পি ও কংগ্রেসকে ভোট দেবেন না৷‌ বি জে পি বাংলাকে ভাগ করতে চাইছে৷‌ আমরা ৪২টি আসনে জান-প্রাণ দিয়ে লড়াই করছি৷‌ এদিন মমতা জানিয়ে দেন, দার্জিলিং আসনেও তৃণমূল প্রার্থী জিতবে৷‌ তার কারণ, পাহাড়ের মানুষ কখনও চায় না বাংলাকে কেউ ভাগ করুক৷‌ এর পর মমতা জনতার উদ্দেশে বলেন, আপনারা তৃণমূলকে ভোট দেবেন তো? হাত তুলে প্রায় সকলেই জানিয়ে দেন, হ্যাঁ, তৃণমূলকেই ভোট দেব৷‌ এদিন মমতা ব্যানার্জি বলেন, আমি দক্ষিণ দিনাজপুরে সভা করে মালদায় ফিরে জানতে পারি, মিঠুন, মুকুলদের সভা শুরু হয়েছে৷‌ খোঁজ নিই সভার মঞ্চটা কত দূরে৷‌ এয়ারপোর্ট থেকে হোটেলে যাওয়ার রাস্তাতেই সভামঞ্চে চলে এলাম৷‌ ওদের সঙ্গে দেখা হয়ে গেল৷‌ উত্তর মালদার আমাদের প্রার্থী সৌমিত্র রায় এখানকার ভূমিপুত্র, ও খুব ভাল ছেলে, ছোট থেকে ওকে দেখে এসেছি, ওর মা কংগ্রেস করতেন, আমিও একসময় কংগ্রেস করেছি৷‌ মালদা জেলায় ভাল প্রার্থী খুঁজছিলাম৷‌ এতদিন মালদা আমরা ছেড়ে দিয়েছিলাম৷‌ ২০১১ সালে বিধানসভা ভোটে কংগ্রেস তৃণমূলের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে মালদায়৷‌ মালদায় আমাদের ৩টি আসনে প্রার্থী দিয়েছিলাম৷‌ একটাতেই জিততে পেরেছি৷‌ বাকি দুটিতে কংগ্রেস লোক দাঁড় করিয়ে আমাদের হারিয়ে দিয়েছে৷‌ মুর্শিদাবাদেও কংগ্রেস একই কাজ করেছে৷‌ তার পরই সিদ্ধাম্ত নিয়েছিলাম, মালদা ও মুর্শিদাবাদে নিজেদের পায়ে দাঁড়ানোর জন্য ভিত শক্ত করতে হবে৷‌ এদিন সভার শুরুতেই একের পর এক বাংলা ও হিন্দি সিনেমার ডায়লগ বলে সকলের মন জয় করে নেন মিঠুন৷‌ তিনি বলেন, একে বলে ভাগ্য৷‌ দিদিও হাজির আমাদের সভামঞ্চে৷‌ দিদির জন্য ভোটটা সৌমিত্রকে দিন৷‌ মঞ্চে সৌমিত্র গানও করেন৷‌ তাঁর সঙ্গে তাল মিলিয়ে নাচেন মিঠুন৷‌ তাঁর কাছে যেতে এবং অটোগ্রাফ নিতে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়৷‌ মিঠুন, মুকুলের হেলিকপ্টার নামার কথা ছিল মালদা জেলা ক্রীড়া সংস্হার মাঠে৷‌ তার পরিবর্তে হেলিকপ্টার নেমে পড়ে মালদা এয়ারপোর্টে৷‌ এদিন তাঁতিপাড়া মাঠে এই জনসভা হয়৷‌ অন্য দিকে এদিন মালদায় আসার আগে মমতা কুমারগঞ্জ, বালুরঘাট ও গঙ্গারামপুরে প্রার্থী অর্পিতা ঘোষের সমর্থনে সভা করেন৷‌ তিন জায়গাতেই ভিড় ছিল লক্ষ্য করার মতো৷‌ প্রচণ্ড রোদে বহু মানুষ ধৈর্য ধরে মমতার বক্তব্য শোনেন৷‌ তিন জায়গাতেই মমতা বলেন, ‘কংগ্রেস, বি জে পি ও সি পি এম এক অশুভ জোট তৈরি করেছে৷‌ আর এস পি-র কোদাল বেলচা মার্কা৷‌ কোদাল কংগ্রেসের কাছে চলে গিয়েছে৷‌ আর বেলচা বি জে পি-র কাছে৷‌ মনে করছে ভোট কাটাকাটিতে বেরিয়ে যাবে৷‌ এদিন দুপুর ১টা ১০ মিনিটে কুমারগঞ্জের বরাহার স্কুল মাঠে হেলিকপ্টারে নামেন তৃণমূল সুপ্রিমো৷‌ তিনি বলেন, ‘দীর্ঘ ৩৪ বছরের বাম আমলে কুমারগঞ্জে কোনও উন্নয়নই হয়নি৷‌ ক্ষমতায় আসার পরেই তিনি একটি কৃষি মান্ডি, ডিগ্রি কলেজ, আই টি আই কলেজ থেকে রাস্তা সবকিছুই হয়েছে৷‌ সংখ্যালঘু ভাইবোনেদের উচ্চ শিক্ষার জন্য কলেজ থেকে হস্টেল তৈরি করা হয়েছে৷‌ দুপুর ২টা ১৫ নাগাদ বালুরঘাটে পৌঁছান৷‌ বালুরঘাট শহরের উত্তমাশা স্কুলের মাঠে মমতা ব্যানার্জির সভার সময় ছিল বেলা ২টা ৪৫ মিনিটে৷‌ তার ৩০ মিনিট আগেই তিনি সভায় হাজির হন৷‌ তিনি বলেন, ‘আমি সময়ের আগেই পৌঁছে গেছি৷‌ আমি সব কাজ সময়ের মধ্যেই বা সময়ের আগে করে থাকি৷‌ আমি আছি বলে বাংলা চলছে৷‌ অন্য কেউ হলে এতদিন বাংলাকে বিক্রি করে দিত৷‌’ জনসভায় অর্পিতাকে পাশে দাঁড় করিয়ে বলেন, ‘আর এস পি প্রচার করছে অর্পিতা বহিরাগত৷‌ আমি বলি আমি কি বহিরাগত আপনারাই বলুন৷‌ আমি বাংলার মেয়ে৷‌ অর্পিতাও বাংলার মেয়ে৷‌ বি জে পি দিল্লি থেকে লোক এনে প্রার্থী করছে ওরা কি বহিরাগত না ভূমিপুত্র৷‌ ৩৫ বছর ধরে থাকা আর এস পি-র ওই জগদ্দল পাথরকে হটিয়ে দেওয়ার সময় এসেছে৷‌ দীর্ঘ বাম জমানায় আর এস পি-র সাংসদ কোনও কাজ করেনি৷‌’ তিনি বলেন, ‘দার্জিলিং কেন্দ্রে বাইচুং জিতবে৷‌ বাংলা ভাগ হবে না৷‌ এবারে বি জে পি বাক্সপ্যাঁটরাগুলি নিয়ে পালাবে আর কোনও দিন বাংলায় আসবে না৷‌’ মোদির নাম না করে বলেন, ‘যিনি নিজের স্ত্রীর পরিচয় দিতে লজ্জাবোধ করেন, তাঁকে প্রধানমন্ত্রী বলে তুলে ধরা হচ্ছে৷‌ পি টি টি আই ছেলেমেয়েরা বাম আমলে সুইসাইড করত৷‌ আমরা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ছেলেমেয়েদের জন্য প্রাথমিকের চাকরিতে ১০ শতাংশ সংরক্ষণ করেছি৷‌’ তিনি বলেন, ‘গত দুই মাস ধরে নির্বাচনী প্রচার চলছে৷‌ একটিও মৃত্যুর ঘটনা ঘটেনি রাজ্যে৷‌ তবুও বাংলাকে বাঁশ দিতে হবে৷‌’ তিনি বলেন, ‘গত আড়াই বছরে বালুরঘাট ও গঙ্গারামপুর মহকুমা হাসপাতালে অনেক উন্নয়ন করেছি৷‌ শিশুদের জন্য সিক নিওনেটাল কেয়ার ইউনিট-সহ আই সি ইউ ইউনিট করেছি৷‌ ন্যায্যমূল্যে ওষুধের দোকান খুলেছি দুটি হাসপাতালেই৷‌ এ ছাড়াও বালুরঘাট ও গঙ্গারামপুর হাসপাতালকে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল তৈরি করছি৷‌’ তিনি বলেন, ‘কয়লার দাম বেড়েছে ৪০ শতাংশ৷‌ ডিজেলের দাম বেড়েছে৷‌ অথচ আমরা বিদ্যুতের দাম বাড়াইনি৷‌ বিকেল ৩টা ১৫ নাগাদ বালুরঘাট থেকে গঙ্গারামপুর স্টেডিয়াম সংলগ্ন মাঠে হাজির হন তিনি৷‌ সেখানে মহিলারা উলুধ্বনি দিয়ে মমতা ব্যানার্জিকে স্বাগত জানান৷‌ তিনি কংগ্রেসকে আক্রমণ করে বলেন, ‘আমিও কংগ্রেস করতাম৷‌ অনেক কথাই জানি৷‌ আমার মুখ খোলাবেন না৷‌ করে খাও যত খুশি এই রাজনীতিকে ঘৃণা করি৷‌’ প্রায় আধঘণ্টা গঙ্গারামপুরে প্রচার সেরে মালদার দিকে রওনা দেন তিনি৷‌ গঙ্গারামপুরে ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো৷‌






kolkata || bangla || bharat || editorial || post editorial || khela || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited