Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৩ কার্তিক ১৪২১ শুক্রবার ৩১ অক্টোবার ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
গঙ্গাসাগরকে ঘিরে শিল্প ও পর্যটনকেন্দ্র--তারিক হাসান, গঙ্গাসাগর ।। ৫০০ কোটির সম্পত্তির নথি, দুই ক্লাবের সাড়ে ৬ কোটি--সব্যসাচী সরকার ।। যাদবপুরে গণভোট , সুর নামল উপাচার্যের ।। মিডিয়াকে অভিষেক, বাজে কথা বললেই দল থেকে বহিষ্কার ।। ক্ষমা চেয়ে চিঠি মমতাকে, মিছিল আরাবুল পম্হীদের--গৌতম চক্রবর্তী ।। সদিচ্ছা থাকলে সর্বদল বৈঠক ডাকুক রাজ্য--কেন্দ্র-রাজ্য দুই শাসকই দায়িত্বজ্ঞানহীন: সূর্য ।। না, কোনও কংগ্রেসি কালো টাকার লিস্টে নেই! ।। সুদীপ্তর কটকে ৫০ লাখের বাংলো! ।। বি জে পি সংসদীয় দলের সঙ্গে পুলিসের ধস্তাধস্তি, গ্রেপ্তার ।। জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণের জরিপে যেতেই তুমুল বিক্ষোভ ।। আজ মহাষ্টমীতে চন্দননগরে মমতা ।। দেবেন্দ্রর শপথ আজ
বাংলা

ক্ষমা চেয়ে চিঠি মমতাকে, মিছিল আরাবুল পম্হীদের

মেসেজে, ই-মেলে কোটি ডলারের নিশি ডাক!

গঙ্গাসাগরকে ঘিরে শিল্প ও পর্যটনকেন্দ্র

বি জে পি সংসদীয় দলের সঙ্গে পুলিসের ধস্তাধস্তি, গ্রেপ্তার

সদিচ্ছা থাকলে সর্বদল বৈঠক ডাকুক রাজ্য

আঞ্চলিক দলের সঙ্গে নির্বাচনী জোটের স্বাধীনতা সি পি এমের সব রাজ্য কমিটির

বড়দিনের আগেই সারদা-কাণ্ডে ই ডি-র চার্জশিট

মিডিয়াকে জানিয়ে দিলেন অভিষেক, বাজে কথা বললেই দল থেকে বহিষ্কার

নম্বরহীন বাইক! গোয়েন্দা নজরে পূর্বস্হলীর ব্যবসায়ী

সিঙ্গুরের জমি নিয়ে মম্তব্যের অপব্যাখ্যা: মলয়

আজ মহাষ্টমীতে চন্দননগরে মমতা

পাড়ুই-কাণ্ডে ধৃত একই অভিযুক্তকে দু’বার আদালতে পেশ, তীব্র ক্ষোভ বিচারকের

আপত্তিকর অবস্হায় ছাত্র-ছাত্রী, প্রতিবাদী অধ্যাপিকাকেই মার!

মুখ্যমন্ত্রী: সব ধর্মকে নিয়ে এগোতে চাই, বাধা দিলে সরিয়ে দেবে মানুষ

‘মিনি চন্দননগর’ রাজহাটি জমজমাট

দলেই নিন্দিত জয় ব্যানার্জি

জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণের জরিপে যেতেই তুমুল বিক্ষোভ

নদীয়ার মির্জাপুর গ্রামে তল্লাশিতে এন আই এ

খুনের মামলায় আদালতে এলেন না অধীর চৌধুরি

বি পি এল: স্বাস্হ্যবিমায় আরও ৪৭ হাজার নাম

মণীশ শুক্লা গ্রেপ্তার

ব্যারাকপুরে হবে ৩ নতুন থানা

ক্ষমা চেয়ে চিঠি মমতাকে, মিছিল আরাবুল পম্হীদের

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

গৌতম চক্রবর্তী




ফিরতে চান দলে৷‌ তাই ক্ষমা চেয়ে মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জিকে চিঠি দিচ্ছেন আরাবুল ইসলাম৷‌ দল থেকে বহিষ্কারের পর থেকেই নিজেকে গৃহবন্দী করে রেখেছেন৷‌ কথাও বলছেন না সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে৷‌ বৃহস্পতিবারও তাঁর দেখা পাওয়া গেল না৷‌ ঘনিষ্ঠদের কাছে আরাবুল জানিয়েছেন, শনিবারই সম্ভবত তিনি মুখ্যমন্ত্রীর হাতে চিঠি জমা দিচ্ছেন৷‌ ইতিমধ্যে চিঠিও লেখা হয়ে গেছে৷‌ তাতে আরাবুল লিখেছেন, ‘আমি দলের অনুগত সৈনিক৷‌ দলের হয়েই কাজ করতে চাই৷‌ যদি কোনও ভুল করে থাকি, তাহলে ক্ষমা করে দিন৷‌’ তৃণমূলের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটির কাছেও এই আর্জি জানাবেন আরাবুল৷‌ তাঁর অনুগামী ইসমাইল এদিন বলেন, ‘দাদা’ এখন শাস্তি প্রত্যাহার করানোর জন্য দলের কাছে ক্ষমা চেয়ে চিঠি দেবেন বলে মনে হচ্ছে৷‌ আরাবুল ছাড়া ভাঙড়ে তৃণমূলকে বাঁচিয়ে রাখা যাবে না৷‌

এদিকে এদিনই গৃহবন্দী অবস্হা থেকেই অনুগামীদের মিছিল করারও নির্দেশ দিয়েছেন৷‌ তাঁর হয়ে পথে নামলেন ভাঙড়-২ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বিভিন্ন গ্রামের মানুষ-সহ পঞ্চায়েতের প্রধান ও সদস্যরাও৷‌ কোনও দলীয় ব্যানার নয়৷‌ কোনও চিৎকার-চেঁচামেচিও নয়৷‌ মৌন মিছিল করে তৃণমূল দলের কাছে আরাবুলের শাস্তি প্রত্যাহারের জন্য দাবি তোলা হয়৷‌ পোস্টার আর প্ল্যাকার্ডে হাতে লেখা স্লোগান– ‘বি জে পি ও সি পি এমের সন্ত্রাস ঠেকাতে ভাঙড়ে আরাবুলকেই চাই৷‌’ ‘আরাবুল ইসলামকে চক্রাম্ত করে সরানো যায়নি, যাবে না৷‌’ ‘ভাঙড়ের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে আরাবুল ইসলামের শাস্তি প্রত্যাহার করতে হবে৷‌’ ভাঙড়ের ভোগালি ১ ও ২, সানপুকুর, ভগবানপুর, বামনঘাটার পাশাপাশি বেঁওতা ১ ও ২ গ্রাম পঞ্চায়েতেও এই মৌন মিছিল হয়েছে বলে খবর৷‌ তবে সব থেকে বড় মিছিলটি হয় এদিন পোলেরহাট ১ ও ২ গ্রাম পঞ্চায়েতে৷‌ উল্লেখ্য গত শনিবার বেঁওতা-১ গ্রাম পঞ্চায়েতেই পঞ্চায়েত দখল করা নিয়ে গোষ্ঠীসঙঘর্ষে বোমা ও গুলির লড়াই চলেছিল৷‌ মারা গিয়েছিলেন দুই তৃণমূল কর্মী৷‌ তার জেরেই দলের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটি আরাবুলকে ৬ বছরের জন্য দল থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধাম্ত নেয়৷‌ এদিন সেই পঞ্চায়েতেই মৌন মিছিল হয়েছে৷‌ পোলেরহাট ২ গ্রাম পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি আরাবুল৷‌ তাঁর ছেলে হাকিমুলও পোলেরহাট ১-এর সভাপতি৷‌ দুই জায়গাতেই বড় মিছিল হয়৷‌ গ্রামবাসীদের নামে এই মিছিল হলেও অনেক পঞ্চায়েত সদস্য-প্রধান সেখানে মিছিলে যোগ দেন৷‌ আরাবুলের বাড়ির কাছে নতুনহাট থেকেই মিছিল শুরু হয়৷‌ শেষ হয় ৫ কিমি রাস্তা পেরিয়ে শ্যামনগরে৷‌ মিছিলের উদ্যোক্তা বিশ্বজিৎ শীল বলেন, আরাবুলের হয়ে গ্রামবাসীরা এই মিছিলের আয়োজন করেছেন৷‌ আমাদের আবেদন, ভাঙড়ের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে আরাবুলকেই চাই৷‌ দল তাঁর ওপর যে শাস্তি নামিয়ে এনেছে, তা প্রত্যাহার করুক৷‌ দলের উচ্চ নেতৃত্বের কাছেও আমরা এই আবেদন নিয়ে যাব৷‌ ডাকসাইটে তৃণমূল নেতা আরাবুল ইসলামের গাজিপুরের বাড়ির সামনে নিরাপত্তাকর্মী এবং অনুগামীরা দুর্গ তৈরি করে ফেলেছেন৷‌ পরিচিত মুখ বা ‘দাদা’র অনুগামী ছাড়া মাছি গলার উপায় নেই৷‌ বুধবার সারা দিন মন খারাপ করে থাকলেও, মাত্র দু-এক জনের সঙ্গে কথা বললেও বৃহস্পতিবার বাড়িতে তিনি রীতিমতো সভা করেছেন বলে জানা গেছে৷‌ এদিন সকালেই ভাঙড় ২ পঞ্চায়েত সমিতির অম্তর্গত বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েতের আরাবুল-অনুগামী সদস্য ও প্রধানরা এসে তাঁর সঙ্গে কথা বলেন৷‌ পঞ্চায়েত সমিতির বেশ কয়েকজন সদস্য ও কর্মাধ্যক্ষও তাঁর সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন৷‌ আরাবুল তাঁদের প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিয়েছেন বলে খবর৷‌ তার পর এলাকায় এলাকায় আরাবুলের শাস্তি প্রত্যাহারের জন্য মিছিল শুরু হয়ে যায়৷‌ আরাবুল পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি এবং তিনি ও তাঁর ছেলে হাকিমুল পোলেরহাট ১ ও ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান৷‌ তবে দু’জনের কেউই মিছিলে অংশ নেননি৷‌ আরাবুলের বাড়িতে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে চাইলে এদিনও স্পষ্ট জানানো হয়, ‘দাদা’ বাড়ি নেই৷‌ সকাল থেকেই তিনি বাড়িতে ছিলেন না বলে তাঁর বাড়ির পাহারায় থাকা অনুগামীরা জানান৷‌ তবে গাজিপুরের গ্রামে এধার-ওধার ঘুরতেই কানে এল, দিনে ঘর ছেড়ে বেরোচ্ছেন না বহিষ্কৃত নেতা৷‌ তবে রাতের দিকে গাড়ি বেরোচ্ছে৷‌ এদিন ভাঙড় ২ পঞ্চায়েত সমিতির আয়োজনে ফুটবল প্রতিযোগিতা ছিল৷‌ পঞ্চায়েতের সভাপতি হিসেবে আরাবুল ইসলামই ছিলেন প্রধান অতিথি৷‌ কাঁটাতলা মাঠে এই ফুটবল খেলার মঞ্চে পঞ্চায়েত সমিতি এবং বি ডি ও-র তরফে অনেক অতিথি থাকলেও আরাবুল ছিলেন না৷‌

অন্যদিকে দল থেকে শাস্তি পাওয়ার পর মুখে কুলুপ এঁটেছেন ভাঙড়ের জেলা পরিষদ সদস্য এবং ভাঙন ১ ব্লকের তিনটি অঞ্চলের দায়িত্বে থাকা তৃণমূল নেতা কাইজার আহমেদও৷‌ ভাঙড়ের বিষয় জানতে চাইলেই হাতজোড় করে কাইজার বলেন, মার্জনা করবেন৷‌ কিছু বলতে পারছি না৷‌ দলীয় শাস্তি, ভাঙড়ের পরিস্হিতি, আরাবুল নিয়ে নানান প্রশ্নে টুঁ শব্দটিও করলেন না কাইজার৷‌ তবে নেতা কথা না বললেও ভাঙড়ের ১ নম্বর ব্লকের নারায়ণপুর, প্রাণগঞ্জ, প্রভৃতি এলাকার তৃণমূলিরা থেমে থাকেননি৷‌ তাঁরা বলেন, কাইজার আহমেদের ওপর তিনটি এলাকার সংগঠনের দায়িত্ব ছিল৷‌ সেটা দল কেড়ে নেওয়ার পর কাইজার-অনুগামী মফিজুল তা দেখার দায়িত্ব পাচ্ছেন৷‌ সেভাবেই ঘুঁটি সাজানো হচ্ছে বলে আমাদের কাছে খবর৷‌ তবে আরাবুলও চেষ্টা চালাচ্ছেন তাঁর অনুগামী আবদুসকে ওখানে ঢোকানোর৷‌ সেবাদলের কর্মী কতটা জায়গা পাবেন, সেটাই দেখার৷‌ এদিকে, আরাবুলের গৃহবন্দী হওয়া নিয়ে যেমন জল্পনা-কল্পনা শুরু হয়েছে, তেমনই ভাঙড় ২ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি পদে আরাবুলের পরিবর্তে কে বসবেন, তা নিয়েও দৌড় শুরু হয়ে গেছে৷‌ আরাবুলের ‘আন্ডারগ্রাউন্ডে’ যাওয়া নিয়ে দলের একাংশ এবং ভাঙড়ের রাজনৈতিক মহলের ধারণা, গ্রেপ্তার হতে পারেন আরাবুল ইসলাম৷‌ তাই তিনি গা-ঢাকা দিয়েছেন৷‌ এখন দলের ছাতা তাঁর মাথার ওপর নেই৷‌ অথচ তাঁর নামে অনেকগুলি অভিযোগই রয়েছে৷‌ তাই যে কোনও মুহূর্তে পুলিস তাঁকে গ্রেপ্তার করতে পারে, সেই ভয়েই আরাবুল জনসমক্ষে আসছেন না৷‌ আবার অনেকের মতে, আরাবুল বাইরে আসতে চাইছেন না, কারণ বাইরে এলেই এমন কিছু বলে ফেলতে পারেন, যাতে দলের ভাবমূর্তি আরও খারাপ হতে পারে৷‌ সে ক্ষেত্রে হয়ত শাস্তির মেয়াদ পরে কমার বদলে আরও ভয়ঙ্কর হবে৷‌ তাই দলেরই কারও পরামর্শে আরাবুল গা-ঢাকা দিয়ে রয়েছেন৷‌ অন্যদিকে, আরাবুলের বহিষ্কারে ভাঙড় ২ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির পদটি খালি হচ্ছে বুঝে নিয়ে অনেকেই ওই পদের জন্য দৌড় শুরু করে দিয়েছেন৷‌ তার মধ্যে ওহিদুল ইসলাম, আবদুর রহিমের নাম উঠে এসেছে৷‌ ওহিদুল বর্তমানে ভাঙড় ২ ব্লকের দলের সভাপতি৷‌ বেশ শাম্ত ও বুদ্ধিমান নেতা বলেই পরিচিত৷‌ ঘরে বসে না থেকে যাতে ওই পদে বসতে পারেন, তার জন্য ইতিমধ্যেই দলের নেতাদের কাছে তিনি দেখা করছেন বলে এলাকার তৃণমূলিরা জানিয়েছেন৷‌ আবদুর রহিম অবশ্য দীর্ঘ দিন ধরেই ভাঙড় ২ ব্লকে দলের কাজ করে এসেছেন৷‌ এলাকার সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয়৷‌ তবে ওই পদ তিনি পাবেন কি না, তা দলই ঠিক করবে৷‌ শোনা যাচ্ছে, ভাঙড়ের পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যরা অনেকেই দলের কাছে আরাবুল ইসলামকেই সভাপতি পদে রাখার জন্য আবেদন করার সিদ্ধাম্ত নিয়েছেন৷‌ এর মধ্যেই বেঁওতা গ্রামের মানুষ বৃহস্পতিবার বিকেলে পুলিসের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখান৷‌ তাঁদের অভিযোগ, আসামি ধরার অছিলায় পুলিস গ্রামের মানুষকে হেনস্হা করছে৷‌





kolkata || bangla || bharat || editorial || khela || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited