Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৩ চৈত্র ১৪২১ শনিবার ২৮ মার্চ ২০১৫
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  সংস্কৃতি  ঘরোয়া  পর্দা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
রানাঘাট গণধর্ষণ: সি বি আই তদম্ত ভার না নেওয়ায় বিস্মিত মুখ্যমন্ত্রী ।। গোপালই চক্রী, ডাকাতদের চিনিয়ে এনে ছিল--সব্যসাচী সরকার ।। চিটফান্ড সংস্হার দপ্তরে সি বি আই তল্লাশি ।। আলুর সঙ্কট: রাজ্যের লিখিত জবাব চাইল হাইকোর্ট ।। স্কুলে ঢুকে তাণ্ডব, ভাঙচুর ১২ বাস, তছনছ অফিসঘর ।। কড়াকড়ি কেন? স্কুলে আগুন পরীক্ষার্থীদের! ।। ফের জমি অর্ডিনান্স আনতে চলেছে সরকার ।। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৬৯০ ফি‘ড ডিপোজিট ।। টসে হারাই নাকি বিপর্যয়ের প্রধান কারণ--দেবাশিস দত্ত, মেলবোর্ন ।। হোমওয়ার্ক করেনি ভারত--সম্বরণ ব্যানার্জি ।। বাজপেয়ীকে ভারতরত্ন সম্মান প্রদান ।। বেলগাছিয়ায় আজ মিছিলে বিমান বসু
বাংলা

বহিরাগতদের চাহিদার ভোট

ওয়ার্কিং কমিটির শীর্ষে সিদ্ধার্থনাথ

গোপালই চক্রী, ডাকাতদের চিনিয়ে এনে ছিল

আলিপুরদুয়ারে আত্মঘাতী আলুচাষী

কোনও রঙ নয়, বিরোধীদের বাড়িতে গিয়ে প্রচারের নির্দেশ দিল তৃণমূল

দুর্গাপুরের কলেজ ছাত্রীর ঝুলম্ত মৃতদেহ হস্টেল থেকে উদ্ধার, বিক্ষোভ, ভাঙচুর

চিটফান্ড সংস্হার দপ্তরে সি বি আই তল্লাশি

আলুর সঙ্কট: রাজ্যের লিখিত জবাব চাইল হাইকোর্ট

নীল-সাদায় কর ছাড়: পুরসভা ও রাজ্যের জবাব চাইল হাইকোর্ট

হাওড়া পুরসভা

রানাঘাট-কাণ্ড: ধৃত গোপালই মূল ষড়যন্ত্রকারী

শাসকের চোখরাঙানি, ভয়ে কেউ দেওয়াল দিতে চান না বিরোধীদের

কাঁথিতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী দিব্যেন্দু

হাওড়ায় স্কুলে সালোয়ার পরে আসায় শিক্ষিকাদের কাজে যোগ দিতে বাধা!

সোমেন: সি পি এম গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়েছে আর তৃণমূল অধিকার লুট করছে

রোজভ্যালি কর্মীদের বিক্ষোভ চলছেই

দল ফেরালে খুশি হবেন সোমনাথ

আজ রাজ্যের সব জেলাতেই বৃষ্টির সম্ভাবনা

প্রচারে বেরিয়ে মার খেলেন তৃণমূল কর্মীরা

মানুষ গালি দিলে লক্ষণ ভাল: সূর্য

স্কুলে ঢুকে তাণ্ডব, ভাঙচুর ১২ বাস, তছনছ অফিসঘর

শ্রম-কর্তার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির নালিশ

মধ্যমগ্রামে বাতিল ৩ প্রার্থীর মনোনয়ন

সি পি এম সাংসদ ঋতব্রতর বোন রাজপুর-সোনারপুর পুরসভার প্রার্থী

ঊষা মিশ্রের এন জি ও-তে তল্লাশি চলছেই

উত্তরপাড়া হোম: সরকারের জবাব চাইল হাইকোর্ট

স্কাইব্রিজ প্রকল্পে বাধা দক্ষিণেশ্বরে ধর্মঘটে ব্যবসায়ীরা

খাগড়াগড়: চার্জশিট পিছিয়ে গেল

কড়াকড়ি কেন? স্কুলে আগুন পরীক্ষার্থীদের!

জলদাপাড়ার ‘অনাথ’ গন্ডারের দেখা মিলছে চিড়িয়াখানায়

ভর্তুকি ছাড়বেন?

বিনা লড়াইয়ে জয়ী অর্জুন ভাই অনিলও

বাস উল্টে বর্ধমানে মৃত ৩

বিষয় প্যারা টিচার

কেন্দ্রের বরাদ্দ: কোর্টের প্রশ্ন

মমতার ফেসবুক, ডিজিটাল রেশন কার্ড

মঙ্গলবার রাজ্যে আসছেন রাজনাথ

বহিরাগতদের চাহিদার ভোট

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

কাকলি মুখোপাধ্যায়

এই অঞ্চলে জনবসতি তুলনামূলক কম৷‌ তবে সকাল থেকে সন্ধে পর্যম্ত চলে লক্ষ লক্ষ মানুষের আনাগোনা৷‌ তাঁদের জন্য চাই পানীয় জল, শৌচালয়, পরিষ্কার ফুটপাত৷‌ এই সমস্ত পরিকাঠামোর খামতি রয়েছে কলকাতার ৫ নম্বর বরো এলাকায়৷‌ এই ইস্যুতেই এবার ভোট এখানে৷‌ শিয়ালদা স্টেশন পেরিয়ে কলকাতায় ঢোকার এটা অন্যতম পথ৷‌ এখানে রয়েছে হাইকোর্ট, মহাকরণ, রাজভবনের মতো প্রশাসনিক ভবন, লালদিঘি৷‌ রয়েছে দুটি বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ, মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল, কলকাতার বইপাড়াও৷‌ ঐতিহ্যবাহী কলকাতার বড় অংশ রয়েছে এই বরোয়৷‌ এখানকার ১১টি ওয়ার্ড হল ৩৬, ৩৭, ৪০, ৪১, ৪২, ৪৩, ৪৪, ৪৫, ৪৮, ৪৯ এবং ৫০৷‌ এর মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের ৭, সি পি এমের ২, বি জে পি-র ১ এবং কংগ্রেসের দখলে রয়েছে ১টি ওয়ার্ড. হাইকোর্ট ও অফিসপাড়া এলাকায় স্হানীয় দোকানদারদের অভিযোগ, এখানে পানীয় জলের সমস্যা রয়েছে৷‌ জল কিনে চালাতে হয়৷‌ রাস্তার জঞ্জালও ঠিকমতো পরিষ্কার হয় না৷‌ ৪৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর সম্তোষ পাঠক বলেন, তাঁর ওয়ার্ডে যেখানে ভোটার প্রায় ১১-১২ লাখ, সেখানে প্রতিদিন প্রায় ৪-৫ লক্ষ মানুষ বাইরে থেকে আসেন৷‌ গঙ্গা পেরিয়ে রোজ কয়েক হাজার মানুষ রুজিরুটির জন্য শহরে আসেন৷‌ অথচ এই এলাকাতেই রয়েছে পানীয় জলের সমস্যা৷‌ সুলভ শৌচালয়ের অভাব৷‌ পানীয় জলের সমস্যা মেটাতে পাইপ লাইন পাল্টেও কাজ হয়নি৷‌ পুরসভা থেকে জলের প্রেশার এত কমে গেছে যে সকাল ১১টার জল অর্ধেক জায়গায় আসে না৷‌ ২৪ ঘণ্টা জলের প্রতিশ্রুতি পালন করতে পারেনি এই পুরবোর্ড. দিনে দু বার ভাল জল পাওয়া যায়৷‌ এখানে ৪টি সুলভ শৌচালয় আছে৷‌ কিন্তু রোজ যে সংখ্যক মানুষ শহরে আসেন তার জন্য আরও ১০টি সুলভ শৌচালয় প্রয়োজন৷‌ জায়গার অভাব রয়েছে ঠিকই৷‌ তবুও মানুষের চাহিদার কথা মাথায় রেখে জায়গাও বের করতে হবে৷‌ এই পুরভোটে জিতে এলে আগে মানুষের জন্য সুলভ শৌচালয় এবং ২৪ ঘণ্টা পানীয় জল দেওয়ার জন্য কাজ করব৷‌ জমা জলের সমস্যার জন্য নতুন করে নিকাশি পাইপ লাইনও বসানো হয়েছে৷‌ ৪২ নম্বর ওয়ার্ডের বি জে পি-র কাউন্সিলর সুনীতা ঝাওয়ারের বক্তব্য, সাধ্যমতো পরিষেবা দেওয়ার চেষ্টা করেছি৷‌ সবসময় পুরসভার সহযোগিতা পাওয়া যায়নি৷‌ ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের সি পি এম-কাউন্সিলার ঋতা চৌধুরির অভিযোগ, এখানে পার্কিং একটা বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে৷‌ এখানে আগের থেকে কম হলেও জল জমার সমস্যা রয়েছে৷‌ মুক্তারাম বাবু স্ট্রিট, মহাজাতি সদনের সামনে এখনও জল জমে৷‌ তাঁর কথায়, এখানে বড় সমস্যা হয়ে উঠেছে লরি পার্কিং৷‌ মহাত্মা গান্ধী রোড, মেট্রোর একদিক থেকে মহম্মদ আলি পার্কের একাংশ জুড়ে সন্ধের পর থেকে লরি পার্কিং শুরু হয়ে যায়৷‌ ফল বাজারের জন্য দিনের বেলা ফলের লরি ওই জায়গা জুড়ে থাকে৷‌ আর সন্ধের পর বিভিন্ন ট্রান্সপোর্টের লরি ওখানে জায়গা জুড়ে রাখা হচ্ছে৷‌ এটা নিয়মিতভাবে চলছে৷‌ এটা উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে৷‌ এই সমস্যা কীভাবে সমাধান করা যায় তার জন্য ফিরে এলে কাজ করব৷‌ জায়গার অভাবে এখানে কোনও কমিউনিটি হল তৈরি করা যায়নি৷‌ ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডের সি পি এম কাউন্সিলর মৌসুমি ঘোষের অভিযোগ, লাল ফিতের গেরোয় আটকে কলকাতা পুরসভার বিরোধী কাউন্সিলরদের ওয়ার্ডগুলির উন্নয়ন৷‌ তিনি বলেন, রাজাবাজারের একদিক থেকে বেলেঘাটা রোড, বি আর সিং হাসপাতাল, সেলট্যাক্স, নারকেলডাঙা মেন রোড পড়ছে এই ওয়ার্ডে৷‌ মূলত এটা বস্তি-অধ্যুষিত এলাকা৷‌ ১৩-১৪টা বস্তি আছে৷‌ বস্তির উন্নয়ন তো দূরের কথা, দৈনন্দিন পরিষেবাই পাওয়া যায় না! বস্তি সংস্কারের জন্য টাকা চাইলে ফান্ড নেই বলা হয়৷‌ রয়েছে জঞ্জালের সমস্যা৷‌ এখনও পর্যম্ত এই ওয়ার্ডে আধুনিক কমপ্যা’র ভ্যাট করা হয়নি৷‌ এ প্রসঙ্গে বরো চেয়ারম্যান, ৪৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলার অপরাজিতা দাশগুপ্তের দাবি, এটা ভীষণ ঘিঞ্জি এলাকা৷‌ জায়গার অভাবে এখানে ইচ্ছে থাকলেও কাজ করা যায় না৷‌ এই এলাকাটাকে হেরিটেজ ঘোষণা করায় সাজানোর ভাবনা-চিম্তা রয়েছে পুরসভার৷‌ বাসিন্দা প্রায় ২৬-২৭ হাজার৷‌ এখানে প্রচুর মানুষ কাজের জন্য আসেন৷‌ জমা জলের সমস্যা আছে৷‌ নতুন পাইপ বসানো বা সংস্কারের কাজ করতে গিয়ে বাধা হচ্ছে মাটির নিচে মেট্রোর বড় বড় থাম৷‌ জায়গার অভাবে এখানে কোনও কমিউনিটি হল করা যায়নি৷‌ আমার বরোর জন্য ৬টি কমপ্যা’র স্টেশন ও মুভেবল কমপ্যা’রের দাবি করেছিলাম৷‌ তার মধ্যে ৪৪ ও ৪৯ নম্বর ওয়ার্ডে কমপ্যা’র স্টেশন করা হয়েছে৷‌ ৩৬ এবং ৩৭ নম্বর ওয়ার্ডে মুভবেবল কমপ্যা’র বসানো হয়েছে৷‌ পুরনো কাউন্সিলার বলে নয়, এতদিনে আমি এলাকার পরিবারের একজন হয়ে উঠতে পেরেছি৷‌ সেই জায়গা থেকে দায়িত্বও অনেক বেড়ে গেছে৷‌ পরিবারের এই দায়িত্ব ঠিকমতো পালন করাই এখন লক্ষ্য৷‌





kolkata || bangla || bharat || editorial || post editorial || khela || sangskriti ||
ghoroa || tv/cinema || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited