Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১১ ভাদ্র ১৪২১ বৃহস্পতিবার ২৮ আগস্ট ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  খেলা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
অপলকা ভাবনার দাসত্ব থেকে মুক্তি!--দেবাশিস দত্ত ।। এবার লন্ডনে সুদীপ্তর দুই দোসরের খোঁজ পেল সি বি আই--সব্যসাচী সরকার ।। সিঙ্গাপুর সফরে শিল্প-সম্ভাবনা নিয়ে পর্যালোচনা মুখ্যমন্ত্রীর ।। রাজ্য কমিটিতে সিদ্ধাম্ত: অক্টোবরেই শুরু সি পি এমের সম্মেলন পর্ব ।। সুপ্রিম কোর্ট কার্যত দাগি মন্ত্রীদের সরাতে চাপ দিল প্রধানমন্ত্রীকে ।। রাজনাথের ছেলেকে হঠাৎ ক্লিন চিট মোদির দপ্তর থেকে ।। কলকাতা ‌ট্যাক্সিহীন হওয়ার আশঙ্কা ।। প্রয়োজনে মাসে একাধিক রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার ।। কুমোরটুলিতে তৈরি হয়েছে দ্বিগুণ গণেশ মূর্তি--সুরজিৎ ঘোষ ।। গণেশ পুজোয় যেতে হবে তৃণমূলিদের--দীপঙ্কর নন্দী ।। শিল্পের কুমিরছানা দেখাচ্ছেন তৃণমূল নেত্রী: অধীর ।। আজ ছাত্রদের নতুন বার্তা দেবেন মমতা
বাংলা

রাজ্য কমিটিতে সিদ্ধাম্ত: অক্টোবরেই শুরু সি পি এমের সম্মেলন পর্ব

এবার লন্ডনে সুদীপ্তর দুই দোসরের খোঁজ পেল সি বি আই

আসানসোলের বিষ-গ্যাসে গাছের পাতাও শুকিয়ে গেছে

সিঙ্গাপুর সফরে শিল্প-সম্ভাবনা নিয়ে পর্যালোচনা মুখ্যমন্ত্রীর

দোর্দণ্ডপ্রতাপ ‘সোনাদা’ এখন অশক্ত, অভিমানী

গণেশ পুজোয় যেতে হবে তৃণমূলিদের

শিল্পের কুমিরছানা দেখাচ্ছেন তৃণমূল নেত্রী: অধীর

চাই বেকারদের হাতে কাজ, ৫ লক্ষ সই সংগ্রহে বাম যুবরা

কামদুনি: সি আই ডি-র ভূমিকায় অসন্তুষ্ট হাইকোর্ট

কিশোর ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নের পুরস্কারের টাকা-সহ সর্বস্ব লুট করমণ্ডলে

‌ট্যাক্সিচালকদের বিক্ষোভ, জামিনের বিরোধিতায় রাজ্য

রাজ্য কমিটিতে সিদ্ধাম্ত: অক্টোবরেই শুরু সি পি এমের সম্মেলন পর্ব

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

আজকালের প্রতিবেদন: অনেক দিন ধরেই দলের মধ্যে নেতৃত্ব ঢেলে সাজা বা যুবশক্তিকে সামনে নিয়ে আসার যে-আওয়াজ উঠেছে, এবার তার প্রক্রিয়া শুরু হতে চলেছে সি পি এমে৷‌ আগামী অক্টোবর মাসের শেষ দিক থেকে রাজ্য জুড়ে শুরু হয়ে যাবে সি পি এমের শাখা সম্মেলন৷‌ এর পর আঞ্চলিক, জোনাল ও জেলা সম্মেলন পর্ব৷‌ ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে ২১তম পার্টি কংগ্রেস৷‌ তার আগে হাতে কিছুটা সময় রেখে রাজ্য সম্মেলন করে নিতে চায় দল৷‌ কারণ, এই সময়ের মধ্যে বেশ কিছু নির্বাচন সামনে এসে যেতে পারে৷‌ বিশেষ করে কলকাতা পুরসভার নির্বাচন৷‌ বুধবার সি পি এম রাজ্য কমিটির বৈঠকে এই সিদ্ধাম্ত চূড়াম্ত হয়েছে৷‌ কিছু কিছু জেলা সম্মেলনের সময়ও মোটামুটি নির্ধারিত হয়ে গেছে এদিন৷‌ তার আগে ২-১০ সেপ্টেম্বর মূল্যবৃদ্ধি, গণতন্ত্র রক্ষা, নারী নিগ্রহ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে রাজ্য জুড়ে শুরু হবে প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ কর্মসূচি৷‌ এর পর ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যম্ত ৫ দিন চলবে সক্রিয় প্রতিরোধ৷‌ এদিন রাজ্য কমিটির বৈঠকে বিভিন্ন জেলা যে-রিপোর্ট পেশ করেছে, তাতে নির্বাচন-পরবর্তী সন্ত্রাস, খুন, পার্টি অফিস ভাঙচুর, পার্টি কর্মীদের জরিমানা, ঘরছাড়া করা ইত্যাদি বিস্তারিত একটি রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে৷‌ উল্লেখ্য, ২০১১ বিধানসভা নির্বাচনের পর থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রাম্তে সি পি এম পার্টি অফিস ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, হুমকি, স্বপরিবার এলাকাছাড়া করা এবং মিথ্যে মামলা শুরু হয় বামপম্হীদের ওপর৷‌ এর পাশাপাশি সি পি এমের বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠতে থাকে নেতৃত্ব নিয়ে৷‌ পার্টির বাইরে এবং ভেতরে কর্মী বা শুভানুধ্যায়ীরা নেতৃত্বে প্রবীণদের সরিয়ে তুলনায় নবীন কর্মীদের নিয়ে আসার ব্যাপারে সওয়াল শুরু করেছিলেন৷‌ কিন্তু কমিউনিস্ট পার্টিতে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী রাতারাতি নেতৃত্ব বদল সম্ভব নয়৷‌ এই সম্মেলন সেই সুযোগ এনে দেবে দলীয় কর্মীদের কাছে৷‌ এদিন রাজ্য কমিটির বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন পলিটব্যুরো সদস্য ডাঃ সূর্যকাম্ত মিশ্র৷‌ রাজ্য সম্পাদক বিমান বসু রিপোর্ট পেশ করেন এবং বলেন, জনগণের নিত্য সমস্যা নিয়ে আন্দোলন আরও জোরদার করতে হবে৷‌ বামফ্রন্টের উদ্যোগে যে লাগাতার কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে, গোটা সেপ্টেম্বর মাস জুড়ে সেই প্রতিরোধ ও প্রতিবাদ কর্মসূচি নিবিড়ভাবে পালন করতে হবে৷‌ রাজ্য কমিটি সিদ্ধাম্ত নিয়েছে, ৩১ আগস্ট খাদ্য আন্দোলনের শহিদ দিবস, যা এখন গণআন্দোলনের শহিদ দিবস, তা সর্বত্র পালন করতে হবে৷‌ পাড়ায় পাড়ায় যত বেশি সম্ভব শহিদ বেদি বানিয়ে পার্টির পতাকা উত্তোলন করে শহিদ দিবস হবে৷‌ কলকাতায় ওই দিন প্রমোদ দাশগুপ্ত ভবনে শহিদ দিবস উপলক্ষে বিশেষ সভা ডাকা হয়েছে৷‌ পাশাপাশি ১ সেপ্টেম্বর যুদ্ধবিরোধী দিবসে এবার ১৫ বামপম্হী দল যে শাম্তি মিছিলের ডাক দিয়েছে, তাতে পার্টিকে অংশ নিতে হবে৷‌ মিছিল সফল করতে সমস্ত কর্মীর কাছে সর্বাত্মক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছে রাজ্য কমিটি৷‌ ঠিক হয়েছে, উত্তরবঙ্গে কোনও কেন্দ্রীয় শাম্তি মিছিল হবে না৷‌ তার বদলে ৭টি জেলায় জেলা বামফ্রন্ট পৃথকভাবে শাম্তি মিছিলের আয়োজন করবে৷‌ উল্লেখ্য, দিল্লিতে কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকেই ঠিক হয়েছে এবার ২১তম পার্টি কংগ্রেস হবে বিশাখাপত্তনমে৷‌ ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে৷‌ তার আগে সব রাজ্যে শাখা সম্মেলন থেকে শুরু করে রাজ্য সম্মেলন শেষ করতে হবে৷‌ ইতিমধ্যেই সমস্ত জেলায় বামফ্রন্টের উদ্যোগে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি ও শাসক দলের সন্ত্রাসের প্রতিবাদে অবস্হান-বিক্ষোভ হয়েছে এবং হচ্ছে শেষ কয়েকটি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে৷‌ জেলায় জেলায় উঠে এসেছেন কিছু সম্ভাবনাময় তরুণ কর্মী৷‌ এঁদেরকে উপযুক্ত দায়িত্বে নিয়ে এসে এবং রাজনৈতিক শিক্ষায় শিক্ষিত করে সংগঠনকে চাঙ্গা করতে চায় সি পি এম৷‌ এদিন রাজ্য কমিটির বৈঠকে নির্বাচন-পরবর্তী সন্ত্রাস নিয়ে যে-রিপোর্ট তৈরি হয়েছে, তাতে দেখা যাচ্ছে ২০১১-র ১৪ মে থেকে ৩১ জুলাই, ২০১৪ পর্যম্ত ১৫৯ জন বামপম্হী খুন হয়েছেন৷‌ আর শাসক দলের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করেছেন ১৩ জন৷‌ গ্রামে নিজের বাড়িতে পরিবারের থাকার জন্য শাসক দলের দুষ্কৃতীদের ‘জরিমানা’ দিতে হয়েছে ২৮ কোটি ৮৮ লক্ষ ৫৮ হাজার টাকারও বেশি৷‌ ৯ হাজার ৪১১ একর জমি থেকে পাট্টাপ্রাপক এবং বর্গাদারকে উচ্ছেদ করা হয়েছে৷‌ ১ হাজার ৩৭৩টি পার্টি অফিস ভাঙচুর ও দখল করা হয়েছে৷‌ ৬ হাজার ৫৫০ জনের বাড়ি ভাঙচুর ও লুট করেছে শাসক দলের কর্মীরা৷‌ রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, এ পর্যম্ত ৯০ জন কৃষক আত্মঘাতী হয়েছেন৷‌ ধর্ষিত হয়েছেন ২৭৩ জন মহিলা৷‌ শ্লীলতাহানির ঘটনা ১৬৬টি৷‌ এখনও ৪৯ হাজার ৫২৫ জন ঘরছাড়া রয়েছেন৷‌ এই সমস্ত কিছুই হয়েছে শুধুমাত্র সি পি এম করার অপরাধে৷‌ রাজ্য কমিটি মনে করে, রাজ্যের সর্বত্র সাধারণ মানুষের সামনে বিশেষ উদ্যোগ নিয়ে এই তথ্য নিয়ে যেতে হবে৷‌ একই সঙ্গে এই তথ্য পাঠানো হবে কেন্দ্রীয় স্তরেও৷‌ যাতে গোটা দেশের মানুষ জানতে পারেন বাংলায় পরিবর্তন ও তৃণমূল কার্যকলাপের ফল৷‌


kolkata || bangla || bharat || editorial || khela || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited