Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ২ আশ্বিন ১৪২১ শুক্রবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
শুভেন্দু, রবীনকে ডাকল সি বি আই ।। ‌ট্যাক্সি নেই পথে, আজও নাকাল হবেন যাত্রীরা ।। যাদবপুর: উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে অনড় ছাত্রছাত্রীরা ।। পুলিস আইন মেনেই কাজ করেছে: নগরপাল ।। শিক্ষামন্ত্রীকে রাজ্যপাল: যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মিটিয়ে ফেলুন ।। ছোট ঘটনাকে তিল থেকে তাল করে দেখানোর চেষ্টা হচ্ছে: মুখ্যমন্ত্রী ।। বাড়ছে বাণিজ্য, সীমাম্ত সমস্যার দ্রুত সমাধানে রাজি চীন-ভারত ।। সুদীপ্ত, দেবিকা হাজিরা দেবেন বালেশ্বরের আদালতে ।। ব্রিটেন থেকে বিচ্ছিন্ন? ভোট দিল স্কটল্যান্ড ।। বকেয়া বিষয়ে উদ্যোগী হোক দিল্লি, চায় ঢাকা ।। সারদা তদম্তে সি বি আই আমাকে ডাকে না কেন? সূর্য ।। যাদবপুর-কাণ্ডে প্রতিবাদ
আজকাল-ত্রিপুরা

জনগণের টাকা আত্মসাৎ করা বিশ্বাসঘাতকতা: মুখ্যমন্ত্রী

শিক্ষা মিশনে চেক জালিয়াতির সঙ্গে বিশালগড় ব্লকে ১৭ কোটি ‘নয়ছয়’

ইদগা না পুজোর মাঠ!

বিলোনিয়ায় হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি

শ্যামসুন্দরের স্বর্ণসম্ভার শুরু ২৩শে সুন্দর ত্রিপুরা ঋতুপর্ণাকে টানে

উপ-অধিকর্তার বিরুদ্ধে মহিলা কর্মীকে অশ্লীল প্রস্তাবের অভিযোগ: উত্তেজনা

কমান্ডার জিপ দুর্ঘটনায় চালকের মৃত্যু দশদায়

পুজো এসে গেল

নৃশংস! সাত মাসের শিশুকন্যাকে আছড়ে মারল মা রাধানগরে

গন্ডাছড়া ফুটবল সংস্হার উদ্যোগে আজ থেকে শুরু সহদেব স্মৃতি ফুটবল

জনগণের টাকা আত্মসাৎ করা বিশ্বাসঘাতকতা: মুখ্যমন্ত্রী

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

আজকালের প্রতিবেদন: জনগণের টাকা আত্মসাৎ বা নয়ছয় করা জনগণের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা৷‌ বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার৷‌ তিনি বলেন, শুধু স্বাক্ষর করলেই চলবে না, নব স্বাক্ষরদের উপযুক্ত প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের রোজগারের পথ করে দেওয়াই রাজ্য সরকারের লক্ষ্য৷‌ বৃহস্পতিবার মহাকরণে মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার রাজ্য স্বাক্ষরতা মিশন অথিরিটির সাধারণ পরিষদের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন৷‌ এদিন মুখ্যমন্ত্রী পূর্ত দপ্তরের জলসম্পদ বিভাগের কাজকর্ম বিশেষত সেচ-এর অগ্রগতি নিয়েও বৈঠক করেন৷‌ গত ক’দিন ধরেই মুখ্যমন্ত্রী বিভিন্ন দপ্তরের কাজকর্ম পর্যালোচনা করে দেখছেন৷‌ এতে বিভাগীয় মন্ত্রীরা ছাড়াও দপ্তর কর্মকর্তারা থাকছেন৷‌ বুধবারও মুখ্যমন্ত্রী সর্বশিক্ষা অভিযানের রাজ্য মিশনের সাধারণ সভারও বৈঠক করেন৷‌ বিকেলে বৈঠক করেন স্টেট মিউজিয়ামের ম্যানেজমেন্ট সোসাইটির কর্মকর্তাদের সঙ্গে৷‌ জলসম্পদ নিয়ে বৈঠকে, আগামী তিন বছরে রাজ্যে আরও ২৭ হাজার ৫৭৭ হেক্টর জমি সেচের আওতায় আনার লক্ষ্য নেওয়া হয়েছে বলে বৈঠকে জানানো হয়৷‌ বৈঠকে জানানো হয়, পূর্ত দপ্তর ও গ্রামোন্নয়ন দপ্তর যৌথভাবে ১ লাখ ১২ হাজার ৮০৬ হেক্টর জমিতে সেচের জল পৌঁছে দিয়েছে৷‌ বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন, যে সব কৃষিযোগ্য জমিতে এখনও সেচের জল পৌঁছানো যায়নি সেখানে সেচ পৌঁছে দিতে পরিকল্পনা তৈরি করতে হবে৷‌ মুখ্যমন্ত্রীর আরও নির্দেশ, আগামী ৩১ জানুয়ারির মধ্যে মনু সেচ প্রকল্প এবং মার্চ মাসের মধ্যে গোমতী সেচ প্রকল্পের কাজ শেষ করতে হবে৷‌ বৈঠকে জানানো হয় হাওড়া, গোমতী এবং খোয়াই নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য তিনটি প্রকল্পের অনুমোদন পাওয়া গেছে৷‌ মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, চম্পকনগর থেকে আগরতলা পর্যম্ত হাওড়া নদীর দুই পাড় বাঁধা হবে৷‌ এ ছাড়া গোমতী ও খোয়াই নদীর যে অংশ ভাঙছে, সেখানেও বাঁধ দেওয়া হবে৷‌ তিনটি কাজই খুব দ্রুত করার নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর৷‌ মানিক সরকার বলেছেন, নদীরগুলোর পলি মাটি সরানোর জন্য একটি ড্রেজিং মেশিন রাজ্যে আনা হচ্ছে৷‌ এ ছাড়া ছোট আকারের আরও দুটো ড্রেজিং মেশিন কেনার উদ্যোগ নিতেও বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷‌ যে সব নদীর জল সেচ ও পানীয় জলের জন্য ব্যবহূত হয় সেই সব নদীতে আগে ড্রেজিং করতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷‌ বৈঠকে পূর্তমন্ত্রী বাদল চৌধুরিও ছিলেন৷‌ এদিকে স্বাক্ষরতা মিশনের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশ দেন, নব স্বাক্ষরদের বিভিন্ন কাজে দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে তাদের রোজগারের ব্যবস্হা করে দেওয়ার৷‌ এর জন্য রাজ্য সরকারের বিভিন্ন স্কিমে বেনিফিসিয়ারি নির্বাচন এবং স্ব্বালম্বনের মধ্যে ব্যাঙ্ক ঋণেরও সুযোগ করে দেওয়া৷‌ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আসলে এটা নব স্বাক্ষরদের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সম্ভাবনার একটা নতুন রাস্তা খুলে দেওয়া৷‌ এ ক্ষেত্রে জেলাশাসক ও জেলা সভাধিপতিদের বিশেষ উদ্যোগ নিতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷‌ এর জন্য জেলাশাসকদের নেতৃত্বে জেলায় জেলায় সেল তৈরি করারও পরামর্শ দেন মুখ্যমন্ত্রী৷‌ স্বাক্ষরতা মিশনে ১৫ থেকে ৫০ বছর বয়সী ৫৮ হাজার ৬৭৭ জন নব স্বাক্ষরকে চিহ্নিত করা হয়েছিল৷‌ আটটি জেলায় ২৫টি ট্রেনিং সেন্টারের মাধ্যমে এখন পর্যম্ত ৬৫৭৮ জনকে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে৷‌ মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, স্বাক্ষরতা কর্মসূচি যথাযথভাবে পালনের জন্য সরকারিভাবে যে টাকা দেওয়া হয় তার যেন ঠিকঠাক অডিট করা হয়৷‌ এ ব্যাপারে জেলাশাসকদের নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রী৷‌ মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, জনগণের টাকা আত্মসাৎ করা বা নয়ছয় করা জনগণের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা করা৷‌ সমস্ত খরচের হিসাব আপ-টু ডেট রাখতে হবে এবং প্রতি বছর অডিট করা করারও নির্দেশ দেন৷‌ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, কারও হাতেই কোনও নগদ টাকা দেওয়া চলবে না৷‌ টাকা থাকবে ব্যাঙ্কে৷‌ সব লেনদেন হবে চেকের মাধ্যমে৷‌ এ বিষয়ের প্রতিও মুখ্যমন্ত্রী সবাইকে কঠোরভাবে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন৷‌ এদিনের এই বৈঠকে অর্থমন্ত্রী ভানুলাল সাহা এ ডি সি-র মুখ্য কার্যনির্বাহী রণজিৎ দেববর্মাও ছিলেন৷‌


kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited