Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ৫ কার্তিক ১৪২১ বৃহস্পতিবার ২৩ অক্টোবার ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
সারদা: সেন কমিশনের ইতি ।। সারদা-তদম্তে প্রথম চার্জশিট দিল সি বি আই ।। সারদার সম্পত্তির খোঁজে এবার রাজ্যের কাছে নথি চায় ই ডি ।। ভোট কোথায় পেলেন? বি জে পি-কে সি পি এম ।। সূর্যকাম্ত: মেহনতি মানুষ জাগছে বলেই বিভাজনের রাজনীতি বি জে পি, তৃণমূলের ।। অধীর: সাম্প্রদায়িক রাজনীতিকে হাতিয়ার করে বাংলা ভাগের চেষ্টা ।। উপাচার্যের মতে, প্রায় স্বাভাবিক যাদবপুর ।। বর্ধমান-কাণ্ডে দুই মহিলার জেল, হাসেমের পুলিস হেফাজত ।। নেই পুলিসের কড়াকড়ি, নুঙ্গিতে দেদার বিক্রি হচ্ছে শব্দবাজি ।। জোটসঙ্গী হতে বি জে পি-র দরবারে শিবসেনা নেতারা ।। রাত বাড়তেই ফাটল শব্দবাজি ।। দেশের নিরাপত্তার সমান দায় কেন্দ্র, রাজ্যের: প্রভাস
আজকাল-ত্রিপুরা

আলোর ঝর্নায় হেসে রাত জাগছে মাতাবাড়ি

বর্ণাঢ্য আলোকমালায় সেজে অপেক্ষা করছে ধর্মনগর

টাকা নেই, তাই সব রাজ্যেই রেগার বরাদ্দ কমেছে: কেন্দ্রের সাফ কথা

দীপ উৎসব: যানবাহন চলাচলে কিছু বিধিনিষেধ

দীপ উৎসবের প্রস্তুতি

‘ব্রেন ডেথ’ হয়ে গেছে, মীনাক্ষী সেন খুবই সঙ্কটাপন্ন: মৃত্যুর গুজবে বিড়ম্বনা

পিপলস ফোরামের সেমিনার

মানুষের পাশে ফর্ম পূরণ করে দিচ্ছেন ডি ওয়াই এফ কর্মীরা

আলোর ঝর্নায় হেসে রাত জাগছে মাতাবাড়ি

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

বাণীব্রত দত্ত | মাতাবাড়ি (উদয়পুর)

২২ অক্টোবর– রাত পোহালেই আলোর উৎসব দীপাবলি৷‌ ইতিমধ্যেই আলোর ঝর্নাধারায় সেজে উঠেছে গোমতী জেলার সদর উদয়পুরের ত্রিপুরেসুন্দরী মন্দির প্রাঙ্গণ৷‌ অন্ধকার থেকে আলোয় এই উৎসবে অমাবস্যার গভীর অন্ধকার রাত্রিতে হৈমম্তিক নির্মেঘ আকাশে মানুষ আলোকের ঝর্নাধারায় স্নাত হবে৷‌ প্রস্তুত হয়ে বুধবারের রাত জাগছে মাতাবাড়ি৷‌ আলোর বন্যা বইয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে পোড়ানো হবে নানান আকর্ষণীয় আতশবাজি৷‌ এ ছাড়াও আকাশে ওড়ানো হবে ২০টি ফানুস৷‌ দীপাবলি মেলাকে কেন্দ্র করে ব্যস্ত হবেন দোকানিরা৷‌ সমগ্র মাতাবাড়ি চত্বরের এক ইঞ্চি জায়গাও খালি নেই৷‌ মেলা এলাকা ১১টি ব্লকে ভাগ করে নিয়ে দোকানিরা তাঁদের মালপত্র নিয়ে বসেছেন৷‌ এখন আসবাবপত্র এদিক-ওদিক সাজানো-গোছানো করছেন৷‌ মৃৎশিল্পের দোকানিরা দেখা পেল কিছু হরিণ নিয়ে এদিক-ওদিক করছেন৷‌ কোথায় ভাল লাগবে? হরিণগুলির শিং ছিল না৷‌ পরক্ষণেই দেখলাম হরিণের শিংগুলি লাগিয়ে দিলেন৷‌ এখন দুর্দাম্ত লাগছে৷‌ অন্যদিকে গাড়ি বোঝাই করে মালপত্র অনবরত আনছেন আসবাবপত্র দোকানিরা৷‌ আলমারি, সোফা, চেয়ার-টেবিল, মোড়া আরও বাঁশ-বেতের কত কী! অন্যদিকে কল্যাণদিঘির পূর্ব পাড়ে ৩০টি স্টলের প্যান্ডেলে ছবি আঁকছেন বিশিষ্ট চিত্রশিল্পীরা৷‌ অপেক্ষা কখন শেষ হবে কাজ৷‌ আর কিছুক্ষণ পরই শঙ্খধ্বনির জোয়ারে ভাসবে মাতাবাড়ি৷‌ সামরিক বাহিনীর জোয়ানদের পাশাপাশি চোখে ঘুম নেই রাতপ্রহরীদেরও৷‌ বন্দুকের নিশানার পাশাপাশি ১০টি টাওয়ার থেকে কড়া নজরদারি চলছে সমগ্র মন্দিরচত্বরে৷‌ চোখে ঘুম নেই মাতাবাড়ির বিখ্যাত পেঁড়া দোকানিদের৷‌ পেঁড়া নিয়ে চলছে দোকানিদের মধ্যে তৎপরতা৷‌ উদয়পুর মাতাবাড়ির পেঁড়া জগৎ-বিখ্যাত৷‌ একবার খেলেই বলে দেওয়া যায় এটা মাতাবাড়ির পেঁড়া৷‌ ফলে দেওয়ালির প্রাক‍্লগ্নে পেঁড়া ব্যবসায়ীদের দৌড়ঝাঁপ রয়েছে প্রবল৷‌ দুধ ও ক্ষীর জাল দেওয়া হচ্ছে দফায় দফায়৷‌ যাতে পেঁড়া শেষ না হয়! তবুও প্রতি বছর দীপাবলির শেষ মুহূর্তে একটাই রব ওঠে দোকানগুলির মধ্যে পেঁড়া শেষ! এদিকে, রাত যত পেরিয়ে ভোর হচ্ছে তত মেলা-মেলা ভাব জেগে উঠছে৷‌ মেলাকে কেন্দ্র করে প্রায় ৬০০ স্বেচ্ছাসেবক-নিরাপত্তাকর্মীর দৌড়ঝাঁপ লক্ষ্য করা গেল মন্দিরচত্বরে৷‌ মেলা কমিটির চেয়ারম্যান মাধব সাহা ও প্রশাসনের উচ্চপদস্হ কর্মকর্তারাও চরম ব্যস্ততার মধ্যেই মেলা সম্পন্ন করার লক্ষ্যে তৎপর হয়েছেন৷‌ দীপাবলি উৎসবকে কেন্দ্র করে শুধু মাতাবাড়ির নয়, সারা শহরেই নানান আলোতে পরিপূর্ণ৷‌ চলছে কোথাও কোথাও কালীপূজার ধুম৷‌ প্রস্তুতি চলছে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মাতাবাড়ি মেলার উদ্বোধনী পর্বের৷‌ সন্ধ্যা ৫-১৬ মিনিটে পুলিস ব্যান্ডের সঙ্গে স্হানীয় মাতাবাড়ি উচ্চতর বিদ্যালয়ের দুই শতাধিক ছাত্রছাত্রী কল্যাণসাগরের চার পাড়ে মশাল মিছিল করছে৷‌ তাদের সঙ্গে আমন্ত্রিত অতিথিদের পা মিলিয়ে ধন্যমাণিক্য মঞ্চের দিকে যাবেন৷‌ মশালের উদ্বোধন এবং প্রদীপ জ্বালিয়ে দীপাবলি উৎসবের উদ্বোধন করবেন রাজ্যের বিদ্যুৎ, পঞ্চায়েত এবং নগরোন্নয়নমন্ত্রী মানিক দে৷‌ তারপর ত্রিপুরা সংস্কৃতি সমন্বয় কেন্দ্রের শিল্পীরা উদ্বোধনী সঙ্গীত পরিবেশন করবেন৷‌ পরে প্রদর্শনী স্টলের উদ্বোধন করবেন ত্রিপুরা উপজাতি এলাকা স্ব-শাসিত জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মংসাজাই মগ৷‌ এ ছাড়াও উপস্হিত বক্তা থাকছেন রাজ্যের পর্যটন, তফসিলি জাতি উন্নয়ন ও পানীয় জল দপ্তরের মন্ত্রী রতন ভৌমিক, বন ও গ্রামোন্নয়ন দপ্তরের মন্ত্রী নরেশ জমাতিয়া-সহ অন্যরা৷‌ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের শেষে বিগত বছরের প্রদর্শনী মণ্ডপ সজ্জা এবং সার্বিক উৎকর্ষের নিরিখে যে সমস্ত দপ্তর প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় হয়েছে তাদের পুরস্কার প্রদান করা হবে৷‌ পুরস্কার প্রদান করবেন পঞ্চায়েত নগরোন্নয়ন এবং বিদ্যুৎ দপ্তরের মন্ত্রী মানিক দে, গোমতী জেলা পরিষদের সভাধিপতি সুনীতি সাহা এবং উদয়পুর পুরপরিষদের চেয়ারপার্সন মণিকা দাস৷‌ এ ছাড়া দেওয়ালি পুজোকে কেন্দ্র করে প্রত্যেক বছরের মতো এ বছরও ত্রিপুরাসুন্দরী মন্দিরের দরজা সারা রাত খোলা থাকবে৷‌ থাকবে মহিষ বলিও৷‌ যাকে কেন্দ্র করে প্রতি বছরই মানুষের ভিড় হয়৷‌ দেওয়ালি মেলাকে কেন্দ্র করে বিলোনিয়া, শাম্তিরবাজার ও সাব্রুম থেকে আগত দর্শনার্থীদের গাড়ি চন্দ্রপুর কলোনি স্কুলের সামনে থাকবে৷‌ আগরতলা-সহ উত্তর অঞ্চলের সমস্ত গাড়ি (অটো বাদে) রাজারবাগ মোটর স্ট্যান্ডে এসে থামবে৷‌ পশ্চিম দিক থেকে আগত অটোগুলি চন্দ্রপুর স্কুল মাঠ পর্যম্ত আসতে পারবে৷‌ উদয়পুর ও অন্যান্য দিক থেকে আগত অটো রমেশ চৌমুহনি, রাজারবাগ, জগন্নাথ দিঘির পশ্চিম পাড় হয়ে ব্রহ্মাবাড়ি আসতে পারবে৷‌ অন্য সমস্ত অটো রমেশ চৌমুহনি, রাজারবাগ, জগন্নাথ দিঘির পশ্চিম পাড় হয়ে ব্রহ্মাবাড়ি আসতে পারবে৷‌ রিকশা অবস্হা বিবেচনা করে ম্যাচ ফ্যা’রি পর্যম্ত আসতে পারবে৷‌ জরুরি কাজে সমস্ত যানবাহন এবং সরকারি কাজে ব্যবহূত গাড়ির কারপাস নিয়ে চলতে পারবে৷‌





kolkata || bangla || bharat || editorial || khela || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited