Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ৯ বৈশাখ ১৪২১ বুধবার ২৩ এপ্রিল ২০১৪
Aajkaal 33
 প্রথম পাতা   বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
সারদা-দুর্নীতি নজরে আসতেই ব্যবস্হা নিয়েছি: মমতা ।। রাজ্যের দোষেই পথে ১৮ লক্ষ: সোনিয়া ।। কত আশা! নাকি ভরসা কমিশনই?--প্রচেত গুপ্ত ।। সুষ্ঠু নির্বাচনের সব ওষুধ আমাদের জানা আছে: রাকেশ--অংশু চক্রবর্তী, রিনা ভট্টাচার্য ।। সারদায় সি বি আই? আজই রায় দিতে পারে সুপ্রিম কোর্ট--রাজীব চক্রবর্তী, দিল্লি ।। কেচ্ছার একরত্তি প্রকাশ পেতেই এত অসহিষুž মুখ্যমন্ত্রী! বিমান ।। নিরাপদ নন রাজনাথ,কথা তাই দিল্লি নিয়ে--দেবারুণ রায়, লক্ষ্নৌ ।। মনমোহনকে দুষলেন হতাশ কয়লামন্ত্রী--হারলেও ইউ পি এ ভাঙবে না: শারদ ।। সুশীল পাল হত্যা: যাবজ্জীবনে ৮, বাকিদের ৭ বছরের সাজা ।। মানিক: মানুষ প্রতিরোধ গড়লে তৃণমূল পালানোর পথ পাবে না ।। ৪ বছর পর কলকাতায় ৪০ ।। ইতালির গ্রামে রানীর বিয়ে
আজকাল-ত্রিপুরা

বিশ্ব পুস্তক দিবসের ভাবনা

দম্ভ নয়, নম্রতা, বিনয় আর শৃঙ্খলা দিয়ে নির্বাচনে আসা নতুন বন্ধুদের স্হায়ী করুন

তপন স্মৃতি: মণিশঙ্করের ৫ উইকেট

তপন স্মৃতি: নিরুপমের অর্ধশতরান

তাপমাত্রা আরও চড়ল, লু বইতে পারে রাজ্যে

সোনামুড়ায় বিজন: পুঁজিবাদী শোষণের শেষ সমাজতন্ত্রেই

মৎস্য দপ্তরের গড়িমসিতে সমবায়গুলোর ম্যানেজার নিয়োগ ব্যাহত

হৃদরোগে আক্রাম্ত হয়ে মারা গেলেন তরুণ ফুটবলার আবু

সি পি এমকে অভিযুক্ত করার চেষ্টা নস্যাৎ করলেন বাড়ির মালিক

অনূর্ধ্ব-১৫ আমন্ত্রণমূলক ক্রিকেট

বিশ্ব পুস্তক দিবসের ভাবনা

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

বিদ্যুৎবিকাশ দে

প্রতি বছর ২৩ এপ্রিল দিনটা ‘বিশ্ব পুস্তক দিবস’ হিসেবে পালিত হচ্ছে৷‌ সারা বছর এমন আরও অনেক দিবস ঘটা করে নানান কর্মসূচির মাধ্যমে পালিত হচ্ছে৷‌ উদ্দেশ্য, নানা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে তাৎপর্যপূর্ণ করে সমাজের মানুষের কাছে তুলে ধরা৷‌ এ যেন ভিন্ন ভিন্ন দিবসের ফুলের মালায় বিশ্ব-সমাজকে আরও শোভন করে তোলা৷‌

তবে ‘বিশ্ব পুস্তক দিবস’ হিসেবে পালন করার জন্য ষোড়শ শতকের এক কবির জন্মদিনকে টেনে আনা কেন? তাঁর লেখা বইয়ের চাহিদা, জনপ্রিয়তার জন্য? তা যদি বলি, ঔপন্যাসিক চার্লস ডিকেন্স কিছু কম নন৷‌ বইয়ের চাহিদার বিচারে চার্লস ডিকেন্সের বইয়ের চাহিদা বিশ্বের বাজারে বেশি৷‌ উইলিয়াম শে‘পিয়ার বলে কোনও নাট্যকার-কবি আদৌ ছিলেন কি না, তাই নিয়ে এক সময় প্রশ্ন ছিল৷‌ ইংল্যান্ডের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অ্যাস্কুইথ ছিলেন একজন পণ্ডিত ব্যক্তি৷‌ অ্যাস্কুইথ বলেছেন, সক্রেটিস প্রায় কিছুই লেখেননি৷‌ তবুও তাঁর সম্পর্কে অনেক কিছু জানা যায়৷‌ শে‘পিয়ার অনেক কিছু লিখেছেন, কিন্তু তাঁর ব্যক্তিগত জীবন সম্পর্কে তেমন কিছু জানা যাচ্ছে না৷‌ শে‘পিয়ার ৩৭ খানা নাটক, ১৫৭ খানা সনেট ও দুটো অতিদীর্ঘ কবিতা লিখেছেন৷‌ এ-সব যে তাঁরই রচনা, কোনও কোনও বুদ্ধিজীবী তা অস্বীকার করছেন৷‌ তাঁদের মতে, ক্রিস্টোফার মার্লো এই নাটকগুলি লিখেছেন৷‌ ঘটনাটা এরকম৷‌ মার্লো জনৈক ব্যক্তিকে খুন করে পালিয়ে গিয়েছিলেন৷‌ তাঁর গোপন আস্তানা থেকে এ-সব নাটক এক-এক করে লিখে তাঁর পৃষ্ঠপোষক এক আর্লকে পাঠিয়েছেন৷‌ আর আর্ল কিনা উইলিয়াম শে‘পিয়ার নাম দিয়ে নাটকগুলি প্রকাশ করেছেন৷‌ কথাটা বলেছেন জনৈক মার্কিন সাংবাদিক মিঃ কোলভিন হফম্যান৷‌ সে যাই হোক, মার্লো তত্ত্ব শে‘পিয়ারের লেখা নিয়ে প্রশ্ন তুললেও ব্যক্তি শে‘পিয়ারের অস্তিত্ব সম্পর্কে কোনও প্রশ্ন তোলেনি৷‌

শুধু মার্লো তত্ত্ব নয়, শে‘পিয়ারের অস্তিত্ব নিয়ে আরও চারটি তত্ত্ব বাজারে যথেষ্ট শোরগোল ফেলে দিয়েছিল৷‌ সেগুলো হল: (১) বেকন তত্ত্ব, (২) রুটল্যান্ড তত্ত্ব, (৩) ডার্বি তত্ত্ব ও (৪) অ‘ফোর্ড তত্ত্ব৷‌ বেকন তত্ত্ব তো ব্যক্তি শে‘পিয়ারের অস্তিত্ব নিয়েই প্রশ্ন তুলেছে৷‌ ফ্রান্সিস বেকন নাকি উইলিয়াম শে‘পিয়ার নাম দিয়ে নাটকগুলি প্রকাশ করেছেন৷‌ সে যাই হোক, নাট্যকার-কবি উইলিয়াম শে‘পিয়ারের অস্তিত্ব নিয়ে এ-সব বিভ্রাম্তিকর তত্ত্বের প্রভাব বুদ্ধিজীবী মহলে অষ্টাদশ শতক পর্যম্ত ছিল৷‌ পরবর্তীকালে তা স্তিমিত হয়ে কবি, সাহিত্যিক ও বুদ্ধিজীবীরা নাট্যকার-কবি হিসেবে উইলিয়াম শে‘পিয়ারের অতি প্রভাবশালী অস্তিত্বকে মেনে নেন৷‌

শে‘পিয়ারের সৃষ্টি অতুলনীয়৷‌ তাঁর কলানৈপুণ্য চমৎকার৷‌ তাঁর সৃষ্টির আবেদন অতলস্পর্শী৷‌ তাই তাঁকে আমরা হৃদয়াসনে ধারণ করি৷‌ তাঁকে স্মরণ করি৷‌ স্যর ওয়ালটার বেলি বলেছেন, তাঁর জ্ঞানের গভীরতা সাগরের ন্যায় এবং তাঁর বিস্তৃতি এই অনম্ত বিশ্বে৷‌ তাঁর মতে, শে‘পিয়ারের মধ্যে সমন্বয় ঘটেছিল ল্যাটিন কমেডিয়ান প্লুটাস এবং ল্যাটিন ফ্রাজেডিয়ান সেনেকার সৃজনশীল প্রতিভার৷‌ তাঁর নাটকের চরিত্রগুলি বর্তমান যুগের নারী-পুরুষের চেয়ে আরও জীবম্ত৷‌ যুগ যুগ ধরে পাঠকের নিকট তারা স্বপনচারী হয়ে থাকবে৷‌

তখনকার সময়ে প্রাচীন নাট্যকার যেমন অ্যাসাইলাম, সোফোকলস, ইউরিপিডস-দের রচনার একটা প্রভাব পরবর্তী নাট্যকারদের রচনায় থাকত৷‌ কিন্তু শে‘পিয়ার ছিলেন মুক্ত, স্বকীয়তায় পরিপূর্ণ৷‌ তাঁর মঞ্চায়ন-কৌশল, চরিত্রায়ণ ছিল সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র ও আকর্ষণীয়৷‌ বিশ্বের প্রতিটা বস্তুকে তিনি ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করতেন এবং ধারণা নিতেন৷‌ তা-ই তাঁর চরিত্রায়ণকে জীবম্ত ও মনোগ্রাহী করে তুলত৷‌ শে‘পিয়ারের রচনার এত সব বৈশিষ্ট্য বিশ্বের পাঠক সমাজের কাছে তাঁকে অবিস্মরণীয় করে রেখেছে৷‌ তাছাড়া তৎকালীন সময়ে গ্রিক নাটকের প্রভাব ইউরোপের সর্বত্র সাহিত্য জগৎকে আচ্ছন্ন করে রেখেছিল৷‌ তখন শে‘পিয়ার নিজস্ব কায়দায় স্বতন্ত্রভাবে নাটক রচনা করেন৷‌ এই মহান কবির জন্মদিনকে ইউনেস্কো তাদের ১৯৯৫ সালে প্যারিসে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে ‘বিশ্ব পুস্তক দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করে৷‌

ই পি হুইপল বলেছেন– Books are lighthouses erected in the great sea (f time৷‌ কিন্তু এই লাইটহাউসগুলির প্রতি মানুষের আকর্ষণ কি বাড়ছে? অতীতে ঠাকুরদাদা এবং সমবয়সী অন্যরা যাঁদের খানিকটা অক্ষর পরিচয় ছিল, তাঁদের দেখেছি অবসর সময়ে বই পড়তে৷‌ শুধু বই কেন, হাতের কাছে যা)ই পেতেন, মনোযোগ সহকারে পড়তেন৷‌ পড়াতেই ছিল তাঁদের আনন্দ৷‌ শুধু তা কেন, বই পড়ে মানুষ চেতনায় শান দিত৷‌ সেজন্যই তো জার্মানির ফ্যাসিস্ট নায়ক হিটলার এবং তাঁর দোসর গোয়েবল‍্স, গোয়েরিংরা বার্লিন শহরের রাস্তায় বইয়ের বহ্ন্যুৎসব করেছিল৷‌ সেজন্য ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে ব্রিটিশ পুলিস বিপ্লবীদের খানাতল্লাশি করে দেখত কোথাও বই পাওয়া যায় কি না৷‌ বই ছিল মানুষের শিক্ষক, পথের দিশারী৷‌ জননিপীড়ক শাসকরা এই জ্ঞানের উৎসগুলিকে ধ্বংস করে দিতে চেয়েছিল৷‌

আজ দেখা যাচ্ছে কেউ কেউ বইকে পাশ কাটিয়ে যাচ্ছেন৷‌ সে ছাত্র হোন, বুদ্ধিজীবী হোন৷‌ বইয়ের প্রতি আকর্ষণ তিনি অনুভব করেন না৷‌ ইলেকট্রনিক প্রযুক্তিই এখন ভরসা হয়ে দাঁড়িয়েছে৷‌ কিন্তু বই পড়ে যে আনন্দ পাওয়া যায়, যে সাহিত্যরস উপভোগ করা যায়, তা কি ইলেকট্রনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে পাওয়া যায়? অন্য কোনও ব্যবস্হাই বইয়ের বিকল্প হতে পারে না৷‌ বই পাঠের প্রতি মানুষের উৎসাহ বাড়াতেই হবে৷‌ এদিক থেকে ‘বিশ্ব পুস্তক দিবস’ অত্যম্ত তাৎপর্যপূর্ণ৷‌






bangla || bharat || editorial || post editorial || khela || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited