Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৬ ভাদ্র ১৪২১ মঙ্গলবার ২ সেপ্টেম্বর ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
ব্যারেটোর স্বজনকে সারদার টাকা ।। স্কুলে গিয়ে বাঁশি বাজিয়ে শোনালেন ‘ছাত্র’ মোদি ।। ঐতিহাসিক মহামিছিলে ১৫ দলের আবেদন, চাই আরও ঐক্যবদ্ধ বাম ।। চৌরঙ্গিতে বি জে পি-কে কোনও জমি না ছাড়ার নির্দেশ মমতার ।। ধর্মঘটে অনড় ‌ট্যাক্সি, রাজ্য আরও কড়া ।। ভাড়া বাড়লেও বাস কম কম! ।। আজ পাহাড়ের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীর চোখ উন্নয়নেই ।। কয়লা ব্লকের বণ্টন নাকচ না করতে অনুরোধ কেন্দ্রের ।। উদ্বিগ্ন রাষ্ট্রপতি: বিশ্বভারতী ছাত্রী নিগ্রহের ঘটনার খোঁজ নিলেন ।। বি জে পি-র রাজ্য কমিটিতে বিশেষ আমন্ত্রিত সদস্য বিশিষ্টরা ।। শরিফকে সরতে বলল পাক ফৌজ ।। ‘আগ্রাসী’ চীনকে খোঁচা মোদির
আজকাল-ত্রিপুরা

নারীরা কড়া নাড়ছেন দ্বারে দ্বারে

সোমার পরিবারের পাশে নারী সমিতি

দ্বিতীয় ডিভিশন: সুজিতকে লাল কার্ড

খাদ্য সুরক্ষা বিল: ৮ মাসেও চিঠির জবাব দেয়নি কেন্দ্র

নীরমহল পর্যটন উৎসব উদ্বোধন

তফসিলি জাতি সমন্বয়ের সম্মেলন কাঞ্চনপুরে

রাজ্যে এখনই পৃথক কমিশন হচ্ছে না

অনিল-হত্যা: কুখ্যাত অমিতকে জেরা করলেন বিচারক

ইতি আচার্য মামলা

মিড-ডে মিলে বিষক্রিয়া

নারীরা কড়া নাড়ছেন দ্বারে দ্বারে

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

কল্যাণ মজুমদার

নারীদের এগিয়ে চলার জয়ধ্বনি শোনা যাচ্ছে চারদিকে৷‌ সুদীর্ঘ বছরের প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে ব্যতিক্রমী দৃষ্টাম্ত স্হাপন করেছেন রাজ্যের নারীরা৷‌ ত্রিস্তর পঞ্চায়েত ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন ৫০ শতাংশের ওপর নারী প্রতিনিধি৷‌ মানুষের প্রতিদিনের স্বার্থ, সামাজিক সমস্যা নিয়ে নারীরাই সরব হচ্ছিলেন তার আগে৷‌ এবার এই নারীদের সংখ্যা আরও বাড়ল৷‌ নারীদের ঠেকিয়ে রাখার যে দীর্ঘ প্রচেষ্টা ছিল তা যেন খানখান হতে চলেছে৷‌ যে নারীরা ছিলেন পর্দানসিন, বাইরে মত প্রকাশ করার বিষয়টি তাঁদের কাছে ছিল কষ্টকর৷‌ আজ কত সভায় তাঁরা অনর্গল বলে চলেছেন৷‌ বলবেন৷‌ মুখ ঢাকা যে নারীরা শ্বশুর, ভাশুর দেখে ঘোমটা আরও দুই ইঞ্চি টেনে নামাতেন, আজ কোমরে আঁচল গুঁজে তাঁরা পুরনো ত্রিপুরা পরিচালনার দায়িত্ব নিচ্ছেন৷‌ প্রতিবাদী কন্ঠে আগুন ঝরাচ্ছেন৷‌ আর তা দেখে ভাশুর, শ্বশুর ও তাবড় পুরুষদের চোখ কপালে ওঠার জোগাড়৷‌ প্রশাসনের কর্তারা এসে ঘরের বৌমাকে বলছেন, ম্যাডাম, ম্যাডাম৷‌ ম্যাডাম বসতে বলার সৌজন্য প্রকাশ করলেই আধিকারিকরা বসছেন চেয়ারে! নইলে নয়৷‌ কারণ, আধিকারিক জানেন, জনপ্রতিনিধিদের সম্মান না জানানোর অর্থ জনশক্তির প্রতিই সম্মাননা প্রদর্শন৷‌ ব্লকের যে বি ডি ও কিংবা এস ডি এম-দের সঙ্গে পঞ্চায়েত প্রধান ম্যাডামের প্রতিনিয়ত আলাপ-আলোচনা চলছে– কিংবা চলবে, সেখানে তাঁর স্বামী, শ্বশুর, ভাশুরদের যেন বসারও সুযোগ নেই! নারীদের এ-ক্ষমতায় দেখবেন কোনও পুরুষ, কি তা সহজে মেনে নেওয়ার কথা? কল্পনা আজ বাস্তব৷‌ রাজ্যের ত্রিস্তর পঞ্চায়েতে আজ অর্ধেকের বেশি আসনেই জয়ী হয়ে এসেছেন নারীরা৷‌ পুরুষদের হাতে প্রতিনিয়ত অত্যাচারিত হওয়া নারীদের এই উত্থান দেখে হয়ত হতচকিত বহু পুরুষ! যুগ যুগ ধরে নারী সর্বক্ষেত্রেই অবহেলিত, অসম্মানিত, আক্রমণের নিশানা৷‌ যাবতীয় হুকুম তামিল করেও নারীর বিশ্রাম নেই৷‌ ধনী-দরিদ্র, শিক্ষিত-অশিক্ষিত প্রায় প্রতি ঘরেই কমবেশি নারী-নির্যাতন৷‌ ধীরে ধীরে শিক্ষার অগ্রগতির হাত ধরে নারীদের বিভিন্ন জায়গায় কর্ম-নিযুক্তির সুযোগ হয়৷‌ কিন্তু কর্মক্ষেত্রেও নারী নিরাপদ নয়৷‌ চারিদিকে লোলুপ পুরুষ-দৃষ্টি৷‌ ভোগবাদী সমাজে নারীকে পুরুষের ভোগ্যপণ্য করে তোলার চেষ্টা তীব্রতর হয়েছে৷‌ এ সময়েই নারীদের হাতে ব্যাপকহারে ক্ষমতার হস্তাম্তর চলছে! যেন ভূকম্পন শুরু হয়েছে সমাজের সর্বত্র৷‌ সমাজে তাই আজ ভাবনা বদলের পালা৷‌ বহু চোখ যেন বিশ্বাস করতে চাইছে না৷‌ অজস্র মনও মানছে না৷‌ কিন্তু এটাই সত্যি৷‌ রাজ্যের সর্বত্র ব্যাপকভাবে ক্ষমতায় আসীন নারীরা৷‌ অনেক গৌরবোজ্জ্বল লড়াইয়ের ফসল এটা৷‌ এ কোনও পাইয়ে দেওয়ার দান নয়৷‌ বহু মানুষের বিশ্বাস, সংসার পরিচালনায় নারী যেমন সফল, তেমনই পঞ্চায়েতের প্রতিটি স্তরেই নারীরা আগামীদিনেও সফলতার ছাপ রাখবেন৷‌ নারীঘটিত অপরাধ কমবে৷‌ কারণ, নারীদের এলাকায় বিশেষ অবস্হানে দেখে পুরুষ অপরাধীরাও দু’বার ভাববে৷‌ সমাজের পট পরিবর্তনে নারীদের এই অবস্হানে আসাকেও ইতিবাচক বলে মনে করছেন সমাদবিদরা৷‌ কারণ, নারী নির্যাতনের দীর্ঘ ইতিহাসে দেখা গেছে, পরিবারের অন্দরমহল ছেড়ে বের হয়ে আসতে যেখানে বহু যুগ লেগে গেছে, সেখানে আজ নারীরাই অংশ নিচ্ছেন সমাজের বহু পরিকল্পনা তৈরি ও রূপায়ণে৷‌ নারীরা আজ আদেশ করছেন৷‌ নির্দেশ দিচ্ছেন আধিকারিকদের৷‌ সমাজ তথা সমষ্টির উন্নয়নে বলিষ্ঠ ভূমিকা নেবেন নারীরা৷‌ পুরুষদের সমকন্ঠ হয়ে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে৷‌ সমাজসেবীদের আশা, ধীরে ধীরে এবার কমবে নারীঘটিত অপরাধ৷‌ অপরাধী পুরুষ মানুষটি অপরাধ করতে গিয়ে ভাববে, তাকে উপযুক্ত সাজাদানের ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় থাকবেন তার এলাকার নারী-জনপ্রতিনিধি৷‌ হয়ত তিনি গ্রামপ্রধান, চেয়ারম্যান কিংবা সভাধিপতি! অর্ধেক জনসমষ্টিকে পেছনে রেখে কোনও সমাজ, রাজ্য বা দেশ এগোতে পারে না৷‌ ত্রিপুরায় অনেক আগে থেকেই নারী ক্ষমতায়নের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে৷‌ এবার সেই প্রক্রিয়া বাস্তবেই আরও বেগবান হোক৷‌


kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || khela || Tripura ||
Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited