Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৩ চৈত্র ১৪২১ শনিবার ২৮ মার্চ ২০১৫
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  সংস্কৃতি  ঘরোয়া  পর্দা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
রানাঘাট গণধর্ষণ: সি বি আই তদম্ত ভার না নেওয়ায় বিস্মিত মুখ্যমন্ত্রী ।। গোপালই চক্রী, ডাকাতদের চিনিয়ে এনে ছিল--সব্যসাচী সরকার ।। চিটফান্ড সংস্হার দপ্তরে সি বি আই তল্লাশি ।। আলুর সঙ্কট: রাজ্যের লিখিত জবাব চাইল হাইকোর্ট ।। স্কুলে ঢুকে তাণ্ডব, ভাঙচুর ১২ বাস, তছনছ অফিসঘর ।। কড়াকড়ি কেন? স্কুলে আগুন পরীক্ষার্থীদের! ।। ফের জমি অর্ডিনান্স আনতে চলেছে সরকার ।। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৬৯০ ফি‘ড ডিপোজিট ।। টসে হারাই নাকি বিপর্যয়ের প্রধান কারণ--দেবাশিস দত্ত, মেলবোর্ন ।। হোমওয়ার্ক করেনি ভারত--সম্বরণ ব্যানার্জি ।। বাজপেয়ীকে ভারতরত্ন সম্মান প্রদান ।। বেলগাছিয়ায় আজ মিছিলে বিমান বসু
আজকাল-ত্রিপুরা

সেলিম-হত্যাকাণ্ডে আরেক অভিযুক্ত পুলিসের জালে

আলু আতঙ্ক!

বাদ গজেন্দ্র, দাঁড়াচ্ছেন না মংসাজাই

দেবেন্দ্র চৌধুরি পাড়ায় ছাত্রাবাসের উদ্বোধন করে অঘোর

দুরম্ত টাকাওয়ালা, সঞ্জয় আসামকে হারিয়ে প্রথম জয়ের মুখ দেখল ত্রিপুরা

চিটফান্ড নিয়ে মানিককে জিজ্ঞাসাবাদের দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাব: সুদীপ

জীবনের অভিজ্ঞতায় এ ডি সি-তে ফের বামফ্রন্টকেই চান দামছড়ার রূপইতি হালাম

বিদ্যালয় শিক্ষা: মূল্যায়ন পদ্ধতি নিয়ে বৈঠক বিলোনিয়ায়

এ ডি সি ভোট ২০১৫ বামফ্রন্টের প্রার্থী-তালিকা

রাজ্যের বিজ্ঞানী দেবাশিস দেবকে জাতীয় সম্মান দেবেন রাষ্ট্রপতি

সেলিম-হত্যাকাণ্ডে আরেক অভিযুক্ত পুলিসের জালে

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

আজকালের প্রতিবেদন: কৈলাসহর, ২৭ মার্চ– কামরাঙাবাড়ি ব্রিজের কাছে সেলিম-হত্যাকাণ্ডে আরেক অভিযুক্ত ধরা পড়ল পুলিসের জালে৷‌ ২৫ মার্চ আটক অভিযুক্তকে আদালতে তোলা হয়৷‌ ধৃত অভিযুক্ত অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার কারণে তাকে আগরতলা জুভেনাইল হোমে রাখার নির্দেশ দেয় আদালত৷‌ গত ২৩ মার্চ সোনামুড়ার কলমচৌরা থানা এলাকা থেকে মুজিবর রহমান (৪২) এবং তার ছেলে তাহের সুলতান (১৯)-কে গ্রেপ্তার করে পুলিস কৈলাসহরে নিয়ে আসে৷‌ তিন দিনের পুলিস হোফাজতে রাখার পর ২৬ মার্চ তাদের ফের পুলিস হেফাজতে নিয়ে আসা হয়৷‌ পুলিসের আবেদন মঞ্জুর করে মুখ্য বিচার বিভাগীয় বিচারক আগামী ৩০ মার্চ পর্যম্ত পুলিস হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেয়৷‌ আসামের কাছাড় জেলার বাজারিছড়ার বাসিন্দা মুজিবর রহমান ও তার ছেলে তাহের সুলতানের বয়ানের ভিত্তিতে তৃতীয় অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে পুলিস৷‌ তৃতীয় অভিযুক্ত মুজিবরের ভাইপো৷‌ পুলিস তদম্তে অনেক দূর এগিয়েছে৷‌ বলা যায় ৮৫ শতাংশ খুনের কিনারা করতে সক্ষম হয়েছে পুলিস৷‌ পুলিসের সন্দেহ আম্তঃরাজ্য গাড়ি পাচারচক্রে অন্য কেউ যুক্ত কি না৷‌ নজরে রয়েছে কাছারের বাজারিছড়ার দু’জন৷‌ কাছাড়ের কাঁঠালতলির কোটামণি থেকে নিহত সেলিমের মোবাইল ফোন উদ্ধার করে পুলিস৷‌ মোবাইল যার কাছ থেকে উদ্ধার হল, সে হচ্ছে প্রধান অভিযুক্ত মুজিবরের ভাইপো৷‌ তদম্তে আরও কয়েকটি বিষয় খতিয়ে দেখতে মুজিবর ও তার ছেলেকে নিয়ে খুনের পরিকল্পিত স্হানগুলি ঘুরে দেখে৷‌ এগজিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে তাদের বয়ান রেকর্ড করে৷‌ প্রসঙ্গত, গত ৮ ফেব্রুয়ারি উত্তর কুমারঘাটের যুবক সেলিম তার গাড়ি নিয়ে নিখোঁজ হয়৷‌ পরদিন কামারাঙাবাড়ি মনু নদীর ব্রিজের পাশে সেলিমের ব্যবহূত মাফলার দেখে সন্দেহ হয়৷‌ দিনভর তল্লাশি চালিয়ে হদিশ করতে পারেনি পুলিস৷‌ ১০ ফেব্রুয়ারি টি এস আর জওয়ারা মনু নদীর গভীর জল থেকে সেলিমের নিথর দেহ উদ্ধার করে৷‌ সেলিম ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে যাত্রী পরিবহণের পেশায় যুক্ত ছিল৷‌ ঊনকোটি জেলার পুলিস মোবাইল ট্র্যাক করে দীর্ঘদিন ধরে তল্লাশি চালায়৷‌ এ মাসের প্রথম সপ্তাহে কাছাড়ের বাজারিছড়া থেকে সেলিমের গাড়ি উদ্ধার করে কৈলাসহর পুলিস৷‌ গাড়ির নম্বর প্লেট এবং স্টিকার পাল্টে দেয় পুলিসকে ধোঁকা দেওয়ার জন্য৷‌ ধৃত মুজিবর এবং তার ছেলের বয়ানের ভিত্তিতে বর্তমানে এগোচ্ছে পুলিস৷‌ সেলিম নিখোঁজ হওয়ার দিন বিকেলে কুমারঘাট থেকে কৈলাসহরে আসার জন্য মুজিবর সেলিমের গাড়ি রিজার্ভ করে৷‌ কুমারঘাট থেকে বাপ-বেটা ছনতৈল রোড ধরে চলে আসে হালাইছড়া এক আত্মীয়ের বাড়িতে৷‌ মিনিট পনেরো থাকার পর বেরিয়ে পড়ে৷‌ সোজা চলে আসে পাইতুরবাজারে সংহতি মেলায়৷‌ সেখানে মুজিবর স্ত্রীর সঙ্গে শ্রীরামপুরে দেখা করবেবলে সেলিমকে নিয়ে আসে৷‌ সেখানে গাড়ি থামিয়ে বলে চা-খাবার কথা৷‌ সেলিম সাধারণত চা খায় না৷‌ সেদিন ঠান্ডা বেশি পড়েছিল৷‌ তা কাটাতে অনেকটা অনিচ্ছা সত্ত্বেও চা খেতে রাজি হয় সেলিম৷‌ তাহের সুলতান গাড়ি থেকে নেমে চা আনতে যায় রাস্তার পাশে একটি চায়ের স্টলে৷‌ গাড়িতে সেলিম, মুজিবর এবং ভাইপো৷‌ সুলতান চা নিয়ে আসার সময় সেলিমের কাপে চারটি ঘুমের ট্যাবলেট মিশিয়ে দেয়৷‌ চারজনই একসঙ্গে চা খায়৷‌ চা পানের পর আরও কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে স্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবার নাম করে৷‌ সেলিম কোনও কিছু টের পায়নি৷‌ হয়নি কোনও সন্দেহ৷‌ কিছুটা সময় যাবার পর ঘুমের কোলে ঢলে পড়ে সেলিম৷‌ সেলিমকে সরিয়ে চালকের আসনে বসে মুজিবর৷‌ গাড়ি চালিয়ে ছনতৈল সড়ক দিয়ে ছুটে চলে গাড়ি৷‌ নির্জন জায়গায় যেতেই মুজিবরের ছেলে সুলতান ও ভাইপো সেলিমের মাফলার দিয়ে সেলিমকে ফাঁস দেয়৷‌ মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর সেলিমের দেহ কামরাঙাবাড়ি স্টিল ব্রিজ থেকে মনু নদীর গভীর জলে ফেলে দেয়৷‌ এরপর গাড়ি নিয়ে চম্পট দেয় কাছাড়ের বাজারিছড়ায়৷‌





kolkata || bangla || bharat || editorial || post editorial || khela || sangskriti ||
ghoroa || tv/cinema || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited