Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১ আশ্বিন ১৪২১ বৃহস্পতিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
তুলকালাম কাণ্ড ঘটল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে ।। আজ থেকে লাগাতার ‌ট্যাক্সি ধর্মঘট, কাল পরিবহণ ।। আত্মঘাতী আসামের প্রাক্তন ডি জি শঙ্কর--সব্যসাচী সরকার ।। মোহনবাগানের কর্তারা গেলেন ই ডি দপ্তরে--সদানন্দের ফের হেফাজত, রতিকাম্ত বসু সি বি আই দপ্তরে ।। বসিরহাট দক্ষিণ: ২১শে পর্যালোচনায় গৌতম ।। জঙ্গলমহলে গুলির লড়াই, মৃত ১ কোবরা জওয়ান ।। অভিযোগ নথিভুক্ত না হলেও ‘লাভ জেহাদ’ আছে: মানেকা ।। বাঙালি বিধবাদের বৃন্দাবন ছাড়তে বললেন হেমা মালিনী! ।। যাদবপুর-কাণ্ড: প্রতিবাদে ধিক্কার মিছিল অধ্যাপকদের ।। সাঈদির ফাঁসি রদ, শাহবাগ ফের উত্তাল ।। আজ ছাত্র ধর্মঘট ।। রাজ্যপালের কাছে পার্থ
আজকাল-ত্রিপুরা

প্রসঙ্গ ম্যালেরিয়া: মামলার রাজনীতি বিরোধীদের

জাতীয় নলেজ সেন্টার হোক স্টেট মিউজিয়াম: মুখ্যমন্ত্রী

চেক জালিয়াতি তদম্ত: তিন শিক্ষাকর্তার বাড়িতে পুলিসি তল্লাশি

কো-অপারেটিভ সোসাইটির অ্যাপিলেট অথরিটি নিযুক্ত

অঙ্গনওয়াড়ি কর্মীদের আলোচনাসভা

আলু-পেঁয়াজে সরকারি নিয়ন্ত্রণ: খুশি ভোক্তারা, ব্যবসায়ীদের মিশ্র প্রতিক্রিয়া

আবার অনুশীলন শুরু ২১শে

ক্রিকেটের দলবদল

সুকাম্তর জোড়া গোলে সেমিফাইনালে পল্ক স্কুল

ধর্মনগরে চ্যালেঞ্জ কাপ ফুটবল, সেমিফাইনালে কদমতলা

প্রসঙ্গ ম্যালেরিয়া: মামলার রাজনীতি বিরোধীদের

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

দেবল লস্কর

একটি কাগজে দেখা গেল অভিনেত্রী অর্পণা সেন ডেঙ্গুতে আক্রাম্ত৷‌ একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন৷‌ এবং তাঁর শারীরিক অবস্হার উন্নতি হচ্ছে৷‌ যতদূর খবর তিনি অভিজাত এলাকাতে থাকেন৷‌ তথাপিও তাঁকে ডেঙ্গুর শিকার হতে হল৷‌ তা হলে এখানে সরকারি ব্যবস্হার ত্রুটি রয়েছে এই অভিযোগে নিশ্চয় সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করবেন কোনও ব্যক্তি কিংবা সংগঠন৷‌ কারণ সরকারের স্বাস্হ্য সুরক্ষা কর্মসূচির এই দুর্বলতা কিছুতেই মেনে নেওয়া যায় না৷‌ ডেঙ্গুবাহী মশা সরকারি সুরক্ষা ব্যবস্হাকে বুড়ো আঙুল যেখানে অভিজাত এলাকায় হামলা করছে তা হলে অন্যত্র অবস্হা কতটা ভয়াবহ তা সহজে অনুমেয়৷‌ বিশেষ করে মহানগরীর অহঙ্কার চুরমার করতে যে নোংরা বস্তিগুলো যুগ যুগ ধরে অগ্রগতিকে চুন কালিতে কলঙ্কিত করছে? এ ছাড়া জঙ্গল পাহাড়ের অবস্হার কথা মনে পড়লে তো শিউরে উঠতে হবে৷‌

ত্রিপুরা ম্যালেরিয়া প্রবণ এলাকা৷‌ অম্তত কয়টি অঞ্চল তো বটেই৷‌ কয়েক বছর পর পরই এখানে ঘুরে আসে পতঙ্গের হামলা৷‌ এজন্য সারা বছরই সচেতনতা প্রচার করা হয় স্বাস্হ্য শিবিরের মাধ্যমে৷‌ পোস্টার, ব্যানার, লিফলেট, খবরের কাগজের অজস্র বিজ্ঞাপন তো রয়েছে৷‌ অতি সাধারণ সতর্কতা মশারি টাঙিয়ে ঘুমানোক্ট এটাও মানছেন না বহুজনজাতি ঘরের লোকজন৷‌ অর্থাৎ চিরাচরিত ভুল স্বভাবটুকু শোধরাচ্ছে না৷‌ খালি গায়ে থাকছেন অধিকাংশ সময়৷‌ ছোট ছোট বাচ্চারাও আদুড় গায়ে! তো বিস্তৃত উন্মুক্ত শরীরে অবাধে হামলা চালাচ্ছে মশারা৷‌ এবার দিনে যতগুলো মশা কামড় বসাল এগুলোর দু-চারটি যদি ম্যালেরিয়ার জীবাণুবাহী হয়? যেভাবে রাজনৈতিক লড়াইয়ে কোমর বেঁধে নামছেন বিরোধীরা এ যেন মশার কামড় থেকেও খারাপ৷‌ স্বাস্হ্য দপ্তরের কর্মীদের একটা বড় ভুল ছিল এটা মানতেই হবে যে প্রতিদিন ঘরে ঘরে আশা কর্মী কিংবা ডাক্তারবাবুরা মশারি টাঙিয়ে দিয়ে আসেননি৷‌ যারা খালি গায়ে ছিল তাদের জামা পরিয়ে দেননি? কোথায় ছিলেন বিরোধী দলের স্বাস্হ্য সচেতন সুনাগরিকগণ? অম্তত দু’চার দশটি স্বাস্হ্য শিবির নিশ্চয়ই তারা করতে পারতেন? কেন্দ্রীয় টিম তাদের রিপোর্টে বলেছে ‘সিস্টেম ফেলিওর’ক্ট যে ব্যবস্হাপনা ছিল সেটা ব্যর্থ৷‌ হতে পারে৷‌ ভিন্ন ব্যবস্হা আরও উন্নত ব্যবস্হা গ্রহণ করতে হতে পারে৷‌ কিন্তু যে যুদ্ধকালীন ব্যবস্হা গৃহীত হয়েছিল? ৩ লক্ষ ৬৪ হাজার রক্ত পরীক্ষা৷‌ এত বিশাল সংখ্যক শিবির৷‌

২০১৩ সালের বিশ্ব স্বাস্হ্য সংস্হার আলোচ্য বিষয় ছিল ভে’র বর্ন ডিজিজ৷‌ পতঙ্গবাহী রোগ৷‌ বলা হয় স্মল বাইট বিগ‍্ থ্রেট‍্৷‌ দিল্লিতে সেদিন আলোচনায় অংশ নিয়ে বিশ্ব স্বাস্হ্য সংস্হার প্রতিনিধি বলেছিলেনক্ট এ সময় বিশ্ব জনগোষ্ঠীর অর্ধেকের ওপরও কমবেশি পতঙ্গ-ঝড়ে আক্রাম্ত৷‌ আর বিশ্ব ব্যয় বোঝার ১৭ শতাংশ হচ্ছে পতঙ্গবাহী রোগ৷‌ প্রতিনিধি তার রিপোর্ট পেশ করতে গিয়ে বলেছিলেনক্ট জলবায়ুর পরিবর্তনে পতঙ্গবাহী রোগের ব্যাপকতা ভারতে ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে৷‌ স্বাভাবিক ভাবে সেদিনের আলোচনায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব আরোপ করা হয় সচেতনতা প্রচারের ওপর৷‌ প্রতিরোধের যা সর্বশক্তিমান অস্ত্র৷‌ বিশ্ব স্বাস্হ্য সংস্হার সহযোগী প্রতিনিধি ডা৷‌ নাটাম্যানাব‍্রে বলেছিলেন ডেঙ্গু এবং ম্যালেরিয়া আর্থসামাজিক প্রবৃদ্ধির অন্যতম বাধা স্বরূপ৷‌ বিশেষত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার৷‌ কোরিয়া, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, মায়ানমার, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড প্রভৃতি রাষ্ট্রে এই রোগের প্রকোপ খুব বেশি৷‌ বলা হয়েছিল এই অঞ্চলে একমাত্র মালদ্বীপ ম্যালেরিয়া মুক্ত (১৯৮৪ সাল থেকে) রাষ্ট্র৷‌ বলা হয় এই অঞ্চলে এই সকল রোগ প্রতিরোধে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি৷‌ এ-সব খবর কী রাখছেন বিরোধীরা?

প্রতিরোধের ব্যবস্হা নিতে কোনও রাজ্য সরকারই পিছিয়ে থাকে না৷‌ নীতি নির্দেশিকা মেনেই ব্যবস্হা নিতে হয়৷‌ রাজ্য সরকারও নিয়েছিল অথচ সরকারের চূড়াম্ত ব্যর্থতাক্ট দপ্তরের মন্ত্রীর ব্যর্থতা বলে চিৎকার করা হচ্ছে৷‌ ২০০৫-২০১২ প্রতি বছর যথাক্রমে ৭৫, ১০৯, ১২২, ৯৮, ১৯৮, ১৪৫, ৬৯ এবং ৪৫ জনের মৃত্যু হয় ম্যালেরিয়ায় তা শুধুমাত্র মুম্বই শহরে৷‌ এই রিপোর্ট ডিরেক্টর জেনারেল অফ হেলথ সার্ভিসেসের (ভারত সরকার)৷‌ কয়েকটি মামলা হয়েছিল স্হানীয় সরকারের বিরুদ্ধে৷‌ অদ্ভুত বিরোধী দল৷‌ মামলায় হামলা হচ্ছে প্রতিদিন৷‌ শিক্ষক নিয়োগের বিরুদ্ধে মামলা৷‌ ম্যালেরিয়া নিয়ে মামলা! রায়ের মালা পরবেন৷‌ রাজনৈতিক মঞ্চে দাঁড়িয়ে মালা গলায় শেষের হাসি হাসবেন৷‌ মামলার পথেই তাই হামলে পড়ছেন বিরোধীরা৷‌ বিরোধীদের এই অবস্হান দেখে আজকাল তাই বহিঃরাজ্যের মানুষও হাসছেন৷‌ বলছেন এদের কী বলা যায়? সুনাগরিক? নাকি সচেতন নাগরিক?


kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited