Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৪ মাঘ ১৪২১ বৃহস্পতিবার ২৯ জানুয়ারি ২০১৫
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
এখনও বলছি কোনও অনৈতিক কাজ করিনি: মুকুল--দীপঙ্কর নন্দী ।। মুখ্যমন্ত্রী: রাজ্যে শিল্প হচ্ছে,আর চিম্তা নেই--আবির রায় ।। নিগ্রহের কথা বলে আক্রাম্ত শিক্ষক ।। রামপুরহাটে ১০০ আদিবাসীকে ধর্মাম্তরকরণ বিশ্ব হিন্দু পরিষদের ।। কিরণকে তুলে ধরে বি জে পি-তে ভাটার টান? ।। পদক পেয়ে পরের দিনই কাশ্মীরে শহিদ তরুণ কর্নেল ।। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ভোট হয়েছ শাম্তিপূর্ণ, ফল আজ দুপুরে ।। খানাকুলে তরুণীকে পণের দাবিতে চুল কেটে ছ্যাঁকা ।। সারাদিন দুর্ভোগ, বিকেলে উঠল ‌ট্যাক্সি ধর্মঘট ।। এস এস সি দপ্তরে চাকরিপ্রার্থীদের অনশন দ্বিতীয় দিনে পড়ল ।। বইমেলা শুরু, চলছে তুলির শেষ টান ।। সুন্দরবন বাঁচাতে বিশ্বব্যাঙ্ক
ভারত

কিরণকে তুলে ধরে বি জে পি-তে ভাটার টান? ১ ডজন মন্ত্রীকে নামালেন মোদি

পদক পেয়ে পরের দিনই কাশ্মীরে শহিদ তরুণ কর্নেল

‘ধর্মনিরপেক্ষ’, ‘সমাজতান্ত্রিক’ শব্দ দুটি সংবিধান থেকে বাদ যাক, দাবি শিবসেনার

খুচরো খবর

কিরণকে তুলে ধরে বি জে পি-তে ভাটার টান? ১ ডজন মন্ত্রীকে নামালেন মোদি

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

রাজীব চক্রবর্তী, দিল্লি

২৮ জানুয়ারি– অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে আটকাতে এক ডজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে ময়দানে নামালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷‌ পরিচিত বি জে পি নেতাদের পরিবর্তে কেজরিওয়ালেরই প্রাক্তন সহযোগী কিরণ বেদিকে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করে আপ নেতাকে মাত করতে চেয়েছিলেন মোদি৷‌ কিন্তু, শাম্তি নেই৷‌ তরতরিয়ে বাড়ছে কেজরিওয়ালের জনপ্রিয়তা৷‌ মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সদ্য সমাপ্ত সফর নিয়ে প্রচার শুরু করেছে বি জে পি৷‌ তাতেও খুব একটা লাভ হচ্ছে না৷‌ তাই এবার প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে শুধুমাত্র কেজরিওয়ালের অভিযোগ ও বক্তব্যের পাল্টা জবাব দিতে এক ডজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে বেছে নিয়েছেন মোদি৷‌ নিজেদের দপ্তর অনুযায়ী কেজরিওয়ালের বক্তব্যের জবাব দেবেন এঁরা৷‌ এঁদের মধ্যে রয়েছেন শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রী নির্মলা সীতারামণ, শিক্ষামন্ত্রী স্মৃতি ইরানি, স্বাস্হ্যমন্ত্রী জগৎপ্রকাশ নাড্ডা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ডাঃ হর্ষ বর্ধন, কয়লা ও বিদ্যুৎ মন্ত্রী পীযূষ গোয়েল এবং সংসদ বিষয়ক রাষ্ট্রমন্ত্রী রাজীবপ্রতাপ রুডি৷‌ এছাড়াও সার্বিকভাবে দিল্লি বিধানসভার নির্বাচনী কৌশল ঠিক করার দায়িত্ব বর্তেছে অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির ঘাড়ে৷‌ এখন থেকে প্রতিদিন সকালে দলের সদর দপ্তরে এক ঘণ্টা বসবেন জেটলি৷‌ নিয়মিত সাংবাদিকদের মুখোমুখি হবেন তিনি৷‌ এদিকে, একটি পোস্টারকে কেন্দ্র করে বিতর্ক তৈরি হয়েছে৷‌ দিল্লির সড়কে অটোরিকশা-সহ বিভিন্ন জায়গায় পোস্টার নজরে আসতেই আপ-প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে আইনি নোটিস পাঠিয়েছেন কিরণ বেদি৷‌ তাঁর অভিযোগ, আগাম অনুমতি না নিয়ে কীভাবে নির্বাচনী পোস্টারে তাঁর ছবি ব্যবহার করলেন কেজরিওয়াল৷‌ নির্বাচনী পোস্টারে আম আদমি পার্টির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দিল্লিতে কেমন মুখ্যমন্ত্রী চান, সৎ নাকি সুবিধাবাদী? কেজরিওয়াল ও কিরণ বেদির দুটি ছবি-সহ ওই পোস্টারে কেজরিওয়ালের ছবির নিচে সৎ এবং কিরণ বেদির ছবির নিচে সুবিধাবাদী লেখা হয়েছে৷‌ এদিন বি জে পি মুখপাত্র প্রবীণশঙ্কর কাপুর জানিয়েছেন, আইনি নোটিস পাঠিয়ে প্রতিবাদ জানানোর পাশাপাশি কেজরিওয়ালকে দিল্লির বুক থেকে এই ধরনের সমস্ত পোস্টার সরিয়ে ফেলার কথা বলা হয়েছে৷‌ এদিন টুইটারে অরবিন্দ কেজরিওয়াল আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন, তাঁর দলের কয়েকজন নেতার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে৷‌ স্টিং অপারেশনের নামে মিথ্যা ও অপপ্রচার চালানো হতে পারে সংবাদমাধ্যমে৷‌ এই বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি৷‌ এই খবর তিনি নাকি কোনও এক অভি: নেতার কাছ থেকে জেনেছেন৷‌ যদিও ওই নেতার নাম জানাতে অস্বীকার করেছেন কেজরিওয়াল৷‌ কেজরিওয়াল আরও একবার কিরণ বেদির বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন৷‌ তাঁর অভিযোগ, বেদি বরাবরই বি জে পি-র প্রতি দুর্বল ছিলেন৷‌ ২০১২ সালে নীতিন গাডকারির বাড়ির সামনে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে অংশ নেননি তিনি৷‌ উল্টে বিরোধিতা করেছিলেন৷‌ অভিযোগ শুনে পাল্টা তোপ দেগেছেন কিরণ বেদিও৷‌ তিনি বলেন, উনি যদি জানতেন যে আমি বি জে পি-র প্রতি দুর্বল তবে এর আগে কেন আমাকে ওঁর দলের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করতে চেয়েছিলেন? কেজরিওয়ালের জবাব এখনও মেলেনি৷‌ তবে এই বিষয়ে আপ-নেতা দিলীপ পান্ডে বলেছেন, কিরণ বেদিকে দলের মুখ্যমন্ত্রীর পদে আনতে চাওয়া ঠিক হয়নি৷‌ উনি সুবিধাবাদী৷‌ যে ইস্যুর ভিত্তিতে আমরা সবাই ‘ইন্ডিয়া এগেইনস্ট কোরাপশন’ আন্দোলনে যুক্ত হয়েছিলাম, আম আদমি পার্টি এখনও সেই ইস্যু আঁকড়ে আছে৷‌ কিন্তু বেদি সব কিছু ভুলে কীসের আশায় বি জে পি-তে গেলেন? ২৪ ও ২৫ জানুয়ারি দিল্লির ৭০টি বিধানসভা এলাকা থেকে মোট ২২৬২ জন ভোটারের সঙ্গে কথা বলে ও তাঁদের নিজস্ব মত সংগ্রহের ভিত্তিতে সমীক্ষা করেছে একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেল৷‌ এই সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, কিরণ বেদিকে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করার পরেও মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে বেশিরভাগ মানুষ এখনও অরবিন্দ কেজরিওয়ালকেই চাইছেন৷‌ প্রায় ৫১ শতাংশ মানুষ কেজরিওয়ালের ওপর ভরসা রাখছেন৷‌ জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহের সমীক্ষার থেকে ৪ শতাংশ জনপ্রিয়তা বেড়েছে আম আদমি পার্টির৷‌ অপরদিকে, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে কিরণ বেদিকে পছন্দ করছেন মাত্র ৪০ শতাংশ ভোটার৷‌ কিরণ বেদিকে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করার আগে বি জে পি-র পক্ষে ছিলেন ৪৫ শতাংশ ভোটার৷‌ কংগ্রেস নেতা অজয় মাকেনকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চান মাত্র ৮ শতাংশ ভোটার৷‌ সমীক্ষা অনুযায়ী, মুসলমান, তফসিলি জাতি, উপজাতি ও অনগ্রসর জাতি ছাড়াও নিম্নবিত্ত মানুষের মনে আগের মতোই জায়গা করে রেখেছেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল৷‌ অন্যদিকে, মাসে ২৫ হাজার বা তার বেশি রোজগারের মানুষদের বেশিরভাগই বি জে পি-র সঙ্গে আছেন৷‌





kolkata || bangla || bharat || editorial || post editorial || khela || Tripura ||
Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited