Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৫ শ্রাবণ ১৪২১ শুক্রবার ১ আগস্ট ২০১৪
 প্রথম পাতা   বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
মমতা: দিল্লির সঙ্গে লড়ে উন্নয়ন অব্যাহত রেখেছি--দীপেন গুপ্ত ।। না ঘরকা না ঘাটকা ২ বিধায়ক--দীপঙ্কর নন্দী ।। সারদা: বাংলা, ওড়িশায় তালা ভেঙে তল্লাশিতে সি বি আই ।। তাপসের নামে সোমবার পর্যম্ত এফ আই আর নয় ।। পুনে: ধসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩১ ।। পেট্রলের দাম কমল, বাড়ল ডিজেলের ।। গণফ্রন্টকে স্বাধীন করে খেতমজুর সংগঠনও চায় সি পি এম ।। ১০০ দিনের কাজ নিয়ে কড়া নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর ।। ‘বাবলি’র আবদার মেটাতেই ‘বান্টি’র প্রতারণায় হাতেখড়ি ।। লেকটাউন-কাণ্ড: গৃহশিক্ষিকা পূজা সিং-এর জামিন নাকচ ।। তসলিমার ভিসা বাতিল ।। নবারুণ ভট্টাচার্য প্রয়াত
ভারত

ক্যাবিনেটে আলোচনা না করেই শ্রীলঙ্কায় সেনা পাঠান রাজীব: নটবর

তসলিমার ভিসা বাতিল

পুনে: ধসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩১

সাংসদদের অমিতের উপদেশ

সুহাগ হলেন সেনাপ্রধান

রেলমন্ত্রীকে আর্জি অধীরের

পেট্রলের দাম কমল, বাড়ল ডিজেলের

খুচরো খবর

ক্যাবিনেটে আলোচনা না করেই শ্রীলঙ্কায় সেনা পাঠান রাজীব: নটবর

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

দিল্লি, ৩১ জুলাই (সংবাদ সংস্হা)– প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী এবং বহিষ্কৃত কংগ্রেস নেতা নটবর সিংয়ের অভিযোগ ঘিরে অস্বস্তি কাটাতে বৃহস্পতিবার মাঠে নামলেন কংগ্রেসের উচ্চতম পর্যায়ের দুই নেতা৷‌ স্বয়ং কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং৷‌ সত্যি প্রকাশ্যে আনতে নিজেই বই লিখবেন বলে জানালেন সোনিয়া৷‌ আর ‘মৃদু’ মনমোহন নটবরের কড় সমালোচনা করে বললেন, রাজনৈতিক আলোচনায় উপস্হিত থাকার সুযোগ পেয়ে তার বাণিজ্যিক অপব্যবহার করছেন প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী৷‌ ২০০৪ সালে সোনিয়া যে ‘অম্তরের ডাক’ শুনে প্রধানমন্ত্রী হতে চাননি, তাকে আত্মত্যাগের অন্যতম সেরা উদাহরণ বলে প্রচার করে থাকেন কংগ্রেসিরা৷‌ কিন্তু প্রকাশিতব্য আত্মজীবনী নিয়ে বুধবার এক টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নটবর দাবি করেছেন, অম্তরের ডাক না ছাই! আসলে ছেলে রাহুলই তাঁকে প্রধানমন্ত্রী হতে দেননি৷‌ রাহুলের আশঙ্কা ছিল, প্রধানমন্ত্রী হলে বাবা রাজীব এবং ঠাকুমা ইন্দিরার মতো তাঁর মাকেও খুন হতে হবে৷‌ গান্ধী পরিবারের একদা ঘনিষ্ঠ এই নেতার মম্তব্যে অস্বস্তিতে পড়েছেন কংগ্রেস নেতারা৷‌ অম্বিকা সোনি বা অজয় মাকেনদের মতো কয়েকজন নটবরের সমালোচনা করলেও বাকিরা মুখ খুলবেন কিনা বুঝতে পারছিলেন না৷‌ শাকিল আহমেদের মতো নেতারা বই প্রকাশ পর্যম্ত অপেক্ষা করার কথা বলেন৷‌ এই পরিস্হিতিতে বৃহস্পতিবার নিজেই সংসদ ভবনে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেন সোনিয়া৷‌ বললেন, নিজে বই না লিখলে সত্যি সামনে আসবে না৷‌ আমি বই লেখার ব্যাপারে খুব আগ্রহী৷‌ আমি লিখব৷‌ পাশাপাশি জানালেন, নটবর সিংয়ের মম্তব্যে তিনি আহত হননি৷‌ স্বামী রাজীবের হত্যা এবং শাশুড়ি ইন্দিরার গুলিতে ঝাঁঝরা হয়ে যাওয়ার মতো আরও অনেক দুর্বিষহ অবস্হা তিনি কাটিয়ে এসেছেন৷‌ ‘এ ধরনের বিষয় আমাকে আর স্পর্শ করে না’, বলেছেন সোনিয়া৷‌ ২০০৫ সালে ইরাকে ‘তেলের বদলে খাদ্য’ প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগে মন্ত্রিত্ব ছাড়তে বাধ্য হন নটবর সিং৷‌ ২০০৮ সালে ছাড়েন কংগ্রেস৷‌ সাক্ষাৎকারে বলেছেন, সোনিয়া গান্ধী এবং মনমোহন সিং দুর্নীতি নিয়ে তাঁকে ফাঁসাতে তদম্তকারী সংস্হার ওপর চাপ সৃষ্টি করেছিলেন৷‌ কংগ্রেসের পক্ষে আরও অস্বস্তিকর মম্তব্য করেছেন নটবর৷‌ লোকসভা নির্বাচনের আগে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের মিডিয়া উপদেষ্টা সঞ্জয় বারু বই লিখে দাবি করেছিলেন, সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ফাইল সোনিয়া গান্ধীকে দেখানো হত৷‌ সঞ্জয়ের সেই দাবিকে সমর্থন করে নটবর বলেন, ঠিকই তো৷‌ পি এম ও-র পুলক চ্যাটার্জি ফাইল নিয়ে সোনিয়ার কাছে যেতেন৷‌ আর এর বিরুদ্ধে মুখ খোলার কোনও প্রশ্নই ছিল না৷‌ কারণ, সোনিয়াই ছিলেন ‘সর্বোচ্চ নেত্রী’৷‌ বৃহস্পতিবার এই মম্তব্যের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন মনমোহন সিং৷‌ নটবরের দাবিকে উড়িয়ে দিয়ে বলেছেন, আমি পরিষ্কার করে জানাতে চাই, পি এম ও থেকে কখনও কোনও ফাইল সোনিয়া গান্ধীর কাছে পাঠানো হয়নি৷‌ সঞ্জয় বারুর বই প্রকাশের সময়েও আমি এর প্রতিবাদ করেছিলাম৷‌ এখনও প্রতিবাদ করছি৷‌ নটবর সিংয়ের সাক্ষাৎকারকে ‘রাজনৈতিক আলোচনার বাণিজ্যিক অপব্যবহার’ বলেও মম্তব্য করেছেন তিনি৷‌ বলেন, ব্যক্তিগত আলোচনা আর্থিক লাভ বা অন্য কোনও লাভের জন্যই প্রকাশ্যে আনা উচিত নয়৷‌ তবুও সেই রাস্তাতেই ওঁরা নিজেদের পণ্যের প্রচার করে থাকেন৷‌ সঞ্জয় বারু করেছিলেন, নটবরও করছেন৷‌ সবটাই ‘মার্কেটিং গিমিক’৷‌ নটবরের সাক্ষাৎকারের একটা অংশ প্রচারিত হয়েছে বৃহস্পতিবার৷‌ সেখানেও রয়েছে নানা বিস্ফোরক মম্তব্য৷‌ বিদেশিনী ইস্যুতে সোনিয়াকে খোঁচা দিয়ে তিনি বলেছেন, ৪৫ বছর ধরে গান্ধী পরিবারের অনুগত থাকার পরে কংগ্রেস সভানেত্রী তাঁর সঙ্গে যে ‘নিষ্ঠুর’ আচরণ করেছিলেন, কোনও ভারতীয় তা করতে পারতেন না৷‌ প্রয়াত রাজীব গান্ধীর সমালোচনা করতেও ছাড়েননি তিনি৷‌ বলেছেন, ক্যাবিনেট বা সরকারের শীর্ষ অফিসারদের সঙ্গে আলোচনা না করেই রাজীব শ্রীলঙ্কায় সেনা পাঠানোর সিদ্ধাম্ত নিয়েছিলেন৷‌ রাজীবের মন্ত্রিসভায় বিদেশ দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন নটবর৷‌ সেই সময়কার অভিজ্ঞতা সম্পর্কে তাঁর মম্তব্য, প্রধানমন্ত্রী থাকার প্রথম ১৮ মাস ৩ জন আত্মগর্ব-সর্বস্ব গণ্ডমূর্খের ওপর সম্পূর্ণভাবে নির্ভরশীল ছিলেন রাজীব৷‌ এঁদের মধ্যে দু’জন হলেন অরুণ নেহরু ও গোপী অরোরা৷‌ দু’জনেই মারা গেছেন৷‌ তৃতীয় জনের নাম করতে চাননি নটবর৷‌ বলেছেন, তিনি এখন অতি বৃদ্ধ এবং বিষয়টা আর গুরুত্বপূর্ণ নয়৷‌ সিং জানিয়েছেন, যে ‘অপারেশন ব্রাসট্যাকস’-এর ফলে ভারত এবং পাকিস্তান প্রায় যুদ্ধের মুখে চলে গিয়েছিল, তার পরিকল্পনা করেছিলেন তৎকালীন প্রতিরক্ষা দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী অরুণ সিং এবং সেনাপ্রধান কে সুন্দরজি৷‌ রাজীবকে অন্ধকারে রেখেই৷‌ প্রকাশিতব্য বই এবং সে সম্পর্কে সাক্ষাৎকার নিয়ে কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেতৃত্ব এদিন নটবর সিংয়ের বিরুদ্ধে মুখ খোলার পর প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রীকে আক্রমণ করেছে কংগ্রেসও৷‌ দলের মুখপাত্র অভিষেক সিংভির অভিযোগ, তথ্য বিকৃত করছেন নটবর৷‌ কংগ্রেস থেকে বহিষ্কৃত হওয়ার পর তিনি বি জে পি-তে যোগ দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন৷‌ তাঁর ছেলে এখন রাজস্হানের বি জে পি বিধায়ক৷‌ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এসব অভিযোগ করছেন তিনি৷‌ তাহলে কী কংগ্রেস নটবরের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করবে? উত্তরে অভিষেক মনু সিংভি প্রথমে বলেন, দেখা যাক৷‌ তারপরেই বলেন, রাজনীতি এবং আদালত দু’টি পৃথক বিষয়৷‌ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কংগ্রেস নেতা বলেন, এসব বিতর্ক কয়েকদিন পরেই থিতিয়ে যায়ÿ৷‌ শুধু শুধু মামলা করে তার আয়ু আরও বাড়ানোর কোনও মানে হয় না৷‌ বুধবারই নটবর জানিয়েছিলেন, তাঁর অভিযোগকে এক বহিষ্কৃত কংগ্রেস নেতার উষ্মা বলে উড়িয়ে দেওয়া যাবে না৷‌ কারণ, ৭ মে সোনিয়া এবং প্রিয়াঙ্কা তাঁর সঙ্গে দেখা করে এসব বিতর্কিত বিষয় বইতে না রাখতে অনুরোধ করেছিলেন৷‌ সে প্রসঙ্গে ওই কংগ্রেস নেতার মম্তব্য, এটা ঠিক কিনা জানি না৷‌ তবে ঠিক হলে বলতে হবে, দ্বিগুণ বিশ্বাসভঙ্গ করেছেন নটবর৷‌ এদিকে বি জে পি দাবি করেছে, নটবরের তোলা অভিযোগের উত্তর দিন সোনিয়া৷‌ জানান আত্মজীবনীতে এসব বিতর্কিত তথ্য লিখতে নিষেধ করতে তিনি নটবর সিংয়ের সঙ্গে দেখা করেছিলে কিনা৷‌


bangla || bharat || editorial || khela || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited