Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ৬ ভাদ্র ১৪২১ শনিবার ২৩ আগস্ট ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  সংস্কৃতি  ঘরোয়া  পর্দা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
বাংলায় বিনিয়োগের জন্য এবার চীন, জাপান, আমেরিকায় যাব: মমতা ।। পদস্হ পুলিসকর্তাদের সঙ্গে সুদীপ্ত-সখ্যতা কেন? দেখবে সি বি আই ।। মান্নান, শঙ্করের ছেলেরা যোগ দিলেন তৃণমূলে ।। সুনিয়া: একঘরে বধূর পরিবার, পাশে দাঁড়াল ৮ বুদ্ধিজীবী মঞ্চ ।। সাম্রাজ্যবাদ-বিরোধী মিছিল: প্রভাস ঘোষের সঙ্গে কথা বললেন বিমান বসু ।। নিউ টাউনে সিন্ডিকেট নিয়ে ফের তৃণমূলের গোষ্ঠীসঙঘর্ষ, গুলিতে জখম পঞ্চায়েত সদস্য ।। বিরোধী দলনেতা: কেন্দ্রকে চাপে ফেলে দিল সুপ্রিম কোর্ট ।। দিল্লির গণধর্ষণ ‘ছোট ঘটনা’! জেটলির মম্তব্যে তুলকালাম ।। এইমসে দুর্নীতি: নেতা, আমলাদের তুলোধোনা করলেন অপসারিত কর্তা ।। বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে পাঠক্রমের মধ্যে বৈষম্য দূর করতে চায় রাজ্য শিক্ষা কমিশন ।। মুক্তির দু’দিন না পেরোতেই ফের গ্রেপ্তার শর্মিলা চানু! ।। কর্মসংস্কৃতি ফেরাতে সব কেন্দ্রীয় দপ্তরে জারি হল ফরমান
ভারত

বিরোধী দলনেতা: কেন্দ্রকে চাপে ফেলে দিল সুপ্রিম কোর্ট

মুক্তির দু’দিন না পেরোতেই ফের গ্রেপ্তার শর্মিলা চানু!

দিল্লির গণধর্ষণ ‘ছোট ঘটনা’! জেটলির মম্তব্যে তুলকালাম

এইমসে দুর্নীতি: নেতা, আমলাদের তুলোধোনা করলেন অপসারিত কর্তা

কর্মসংস্কৃতি ফেরাতে সব কেন্দ্রীয় দপ্তরে জারি হল ফরমান

খুচরো খবর

বিরোধী দলনেতা: কেন্দ্রকে চাপে ফেলে দিল সুপ্রিম কোর্ট

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

আজকালের প্রতিবেদন: দিল্লি, ২২ আগস্ট– কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদির সরকারকে লোকসভায় বিরোধী দলনেতার পদের গুরুত্ব স্মরণ করিয়ে দিল এবার দেশের শীর্ষ আদালত৷‌ চাপে পড়ে গেল বি জে পি৷‌ এবং কংগ্রেসের হাতে এসে গেল একটি বড় অস্ত্র৷‌ লোকসভায় বিরোধী দলনেতার পদটি কেন ফাঁকা আছে, কেন্দ্রের কাছে তার ব্যাখ্যা চাইল সুপ্রিম কোর্ট৷‌ আগামী দু’সপ্তাহের মধ্যে সরকারকে জবাব দিতে হবে৷‌ এমন নয় যে, কংগ্রেস এই নিয়ে আদালতে গেছে৷‌ লোকপাল আইন নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে একটি মামলা করেছিলেন আম আদমি পার্টির নেতা প্রশাম্ত ভূষণ৷‌ লোকপাল গঠনের জন্য আইন অনুযায়ী যে নির্বাচকমণ্ডলী থাকার কথা, লোকসভার বিরোধী দলনেতা তার অন্যতম সদস্য৷‌ সেই সূত্রেই এসে গেছে বিরোধী দলনেতার পদটির গুরুত্বের কথা৷‌ এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে তাদের অবস্হান স্পষ্ট করতে বলল সুপ্রিম কোর্ট৷‌ বিষয়টি গুরুতর৷‌ সংসদে পাস করা লোকপাল আইন ঠান্ডাঘরে পড়ে থাকবে, সুপ্রিম কোর্ট তা মেনে নিতে রাজি নয়৷‌ তাই দ্রুত বিষয়টির নিষ্পত্তি চায় শীর্ষ আদালত৷‌ ৯ সেপ্টেম্বর এই বিষয়ে চূড়াম্ত রায় ঘোষণা করবে সর্বোচ্চ আদালত৷‌ শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি আর এম লোধার নেতৃত্বাধীন একটি বেঞ্চ মম্তব্য করেছে, লোকপাল আইনে লোকসভার বিরোধী দলনেতা একটি অত্যম্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ৷‌ বেঞ্চের বক্তব্য, বর্তমান রাজনীতিতে বিরোধী দলনেতার পদটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়৷‌ এ বিষয়ে বাস্তবসম্মত চিম্তার প্রয়োজন আছে৷‌ বেঞ্চের মতে, শুধুমাত্র লোকপাল আইনের ক্ষেত্রেই নয়, আরও অনেকগুলি আইনের ক্ষেত্রে বিরোধী দলনেতা পদটির বিশেষ গুরুত্ব আছে৷‌ এই কারণেই বিষয়টি বেশিদিন ঝুলিয়ে রাখার পক্ষপাতী নয় আদালত৷‌ এই পদ নিয়ে সিদ্ধাম্ত ঝুলে থাকলে লোকপালের মতো আইনও কার্যত ঠান্ডাঘরে চলে যাবে৷‌ উল্লেখ্য, গত সপ্তাহেই স্পিকার সুমিত্রা মহাজন জানিয়ে দিয়েছেন, কংগ্রেসকে বিরোধী দলনেতার পদ দেওয়া হবে না৷‌ তার পরে সুপ্রিম কোর্টের এই ভূমিকা কংগ্রেস-বি জে পি লড়াইয়ে নতুন মোড় নিয়ে এল৷‌ কংগ্রেস নেতারা আক্রমণাত্মক৷‌ বি জে পি এবং সরকার সংসদ তথা স্পিকারের এক্তিয়ারের কথা বলে দায় এড়াতে চাইছে৷‌ সরকারি এক সূত্রের বক্তব্য, স্পিকারের রায়ই এক্ষেত্রে চূড়াম্ত৷‌ আমাদের কিছু করার নেই৷‌ সেই সঙ্গে কংগ্রেসের ১০ শতাংশের কম আসন পাওয়ার কথাও বলে যাচ্ছেন নেতারা৷‌ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং আজ গোরক্ষপুরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেছেন, দুর্ভাগ্যবশত ওরা লোকসভার মোট আসনের ১০ শতাংশ আসনও পায়নি৷‌ তাই বিরোধী দলনেতার পদ নিয়ে স্পিকারের রায় ওদের মেনে নেওয়াই উচিত৷‌ বি জে পি মুখপাত্র মীনাক্ষী লেখি বলেছেন, প্রকৃত অর্থে জনতার ইচ্ছায় বিরোধী দলনেতা নিযুক্ত হয়৷‌ এবারই প্রথম নয়, এর আগেও ৭ বার কোনও বিরোধী দলনেতা ছিলেন না৷‌ উল্টোদিকে কংগ্রেস মুখপাত্র আনন্দ শর্মা বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মুখে বলছেন তিনি বিরোধীদের সঙ্গে নিয়ে চলতে চান৷‌ কিন্তু তাঁর আচরণে উল্টোটাই ফুটে উঠছে৷‌ প্রধান বিচারপতির বেঞ্চের মম্তব্যে ভর করে বি জে পি-কে একহাত নিয়েছেন কংগ্রেস নেতা ও প্রাক্তন মন্ত্রী মণীশ তেওয়ারি৷‌ তাঁর কথায়, বি জে পি সরকার গণতন্ত্রের নিয়মকানুন ভাল করে জানে না৷‌ গণতান্ত্রিক সংস্হায় বিরোধীদের আওয়াজ শুনতে না চাওয়া মানে তো গণতন্ত্রকেই অপমান করা৷‌ বিরোধী দলনেতার পদটি ক্যাবিনেট মন্ত্রীর পদমর্যাদাসম্পন্ন৷‌ এটি প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন একাধিক কমিটির আবশ্যিক অংশ৷‌ যে কমিটিগুলির হাতে জাতীয় স্তরের প্রশাসনিক অভিযোগের তদম্তকারী আধিকারিক যেমন লোকপাল এবং চিফ ভিজিলেন্স কমিশনারের মতো কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়োগের ক্ষমতা আছে৷‌

প্রসঙ্গত, লোকসভায় এবার ৪৪টি আসন পেয়ে দ্বিতীয় বৃহত্তম দল কংগ্রেস৷‌ সরকার গঠনের পর থেকেই লোকসভায় বিরোধী দলনেতার পদটি নিয়ে জোরদার দাবি জানিয়ে আসছে তারা৷‌ যা বি জে পি সরকার কানে তুলতেই নারাজ৷‌ তাদের বক্তব্য, নিয়ম অনুযায়ী বিরোধী দলনেতার পদ পেতে হলে কোনও একটি দলকে মোট আসনের কমপক্ষে ১০ শতাংশ আসন পেতে হয়৷‌ সেক্ষেত্রে ন্যূনতম ৫৫টি আসন জরুরি, যা কংগ্রেসের হাতে নেই৷‌ এদিকে উত্তরাখণ্ডের রাজ্যপাল আজিজ কুরেশির মামলা প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং আজ দাবি করেন, তাঁকে সরানোর জন্য কোনও রকম চাপ দেওয়া হয়নি৷‌ কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে এ ব্যাপারে যথোচিত জবাব দেওয়া হবে আদালতে৷‌


kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
sangskriti || ghoroa || tv/cinema || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited