Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৪ ফাল্গুন শুক্রবার ২৭ ফব্রুেয়ারি ২০১৫
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
বেচে দিলেন প্রভু! ।। রেল বাজেট: বোকা বানাচ্ছে ওরা: মমতা ।। রেল বাজেটে বাংলার প্রাপ্তি শূন্য ।। সারদা: চ্যালেঞ্জ ছুঁড়লেন মুখ্যমন্ত্রী ।। বাম রক্তক্ষরণ অব্যাহত!--অসিত দাস ।। ধাক্কা খাবে অর্থনীতি বলছেন বিশেষজ্ঞরা ।। ভারতীয় রেল নাম সার্থক করলেন প্রভু: রাহুল সিনহা ।। কার্যত প্রভুর প্রশংসা মুকুলের ।। হুমায়ুনকে ৬ বছরের জন্য বহিষ্কার করল দল ।। চিটফান্ড নিয়ে বিধানসভায় খোদ মুখ্যমন্ত্রী এখন আলোচনা চাইছেন, চার বছরে হুঁশ ফিরল? - সূর্যকাম্ত ।। এই টিম ভারতকে রোখা কঠিন: গাভাসকার--দেবাশিস দত্ত ।। কাল কোচহীন ভারত
ভারত

বেচে দিলেন প্রভু!

ভারতীয় রেল নাম সার্থক করলেন প্রভু: রাহুল সিনহা

রেল বাজেট: বোকা বানাচ্ছে ওরা: মমতা

সমরে সেনা

ক্ষমা দাবি

রেল বাজেট: খুশি রাজ্যের বণিক মহল

ধাক্কা খাবে অর্থনীতি বলছেন বিশেষজ্ঞরা

ঋণ নিয়েই রেলের উন্নয়ন চান প্রভু

রাহুল জল্পনা

নত নাইডু

‘হে প্রভু’

বাগাড়ম্বর: পলিটব্যুরো

হতাশ রেল যাত্রী সমিতি

জেনে রাখুন

বিদ্যুৎ বেচেই তাঁর ‘সুনাম’

বেচে দিলেন প্রভু!

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share



দেবারুণ রায়: দিল্লি, ২৬ ফেব্রুয়ারি– ‘অচ্ছে দিন’-এর রেল বাজেট পেশ করলেন রেলমন্ত্রী সুরেশ প্রভু৷‌ প্রশ্ন তুললেন, রেলের পুনর্জন্ম কেন হতে পারে না? সেই পুনর্জন্মেরই একটি সঙ্কেত: বাজেটে কোনও নতুন ট্রেনের ঘোষণা নেই! নেই কোনও নতুন লাইন বা অন্য কোনও ঘোষণাও৷‌ মন্ত্রী প্রভু মহারাষ্ট্রের লোক৷‌ কিন্তু বাজেটে নেই মহারাষ্ট্রের জন্য কোনও বড় প্রাপ্তির সংবাদ৷‌ শুধু কিছু সুযোগ-সুবিধার কথা বলেছেন৷‌ প্রভু জানিয়েছেন, ১১টি মূল এলাকায় জোর দেওয়া হয়েছে৷‌ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতায় উন্নতি সাধনের জন্য ‘স্বচ্ছ রেল’ অভিযান৷‌ এর জন্য আলাদা দপ্তরও থাকবে৷‌ স্লিপারে বিছানার চাদরের মান উন্নত করার কথা বলা হয়েছে৷‌ নিরাপত্তার জন্য হেল্প লাইনের ব্যবস্হা করা হয়েছে৷‌ মহিলাদের নিরাপত্তার কথা ভেবে সুনিশ্চিত করা হয়েছে ক্যামেরার নজরদারি৷‌ পছন্দসই খাবারের জন্য টিকিট কাটার সময় ও ই-বুকিং করার সময়ই ব্যবস্হা রাখার কথা বলা হয়েছে৷‌ যাত্রী-সুবিধা কিছু বাড়ানো হয়েছে৷‌ বাছাই করা শতাব্দী ট্রেনগুলিতে প্রমোদের ব্যবস্হাও হবে৷‌ ওয়াই-ফাইয়ের সুবিধা রাখা হবে বি তালিকাভুক্ত ট্রেনগুলিতে৷‌ আরও ২০০ স্টেশনকে আনা হবে আদর্শ স্টেশন প্রকল্পের আওতায়৷‌ রেল বাজেট পরবর্তী পাঁচ বছরে ৮.৫ লক্ষ কোটি টাকা বিনিয়োগের কথা বলেছে৷‌ বলা হয়েছে, বিভিন্ন সূত্র থেকে টাকা আসবে৷‌ কিন্তু সুনির্দিষ্টভাবে বলা হয়নি কোন সূত্র থেকে৷‌ ২০১৫-১৬-র জন্য যোজনা বরাদ্দ ৫২ শতাংশ বাড়িয়ে ১০০,০১১ কোটি টাকা করা হয়েছে৷‌ যাত্রীভাড়া বাড়ানো হয়নি এ কথা জোর গলাতেই ঘোষণা করেছেন রেলমন্ত্রী৷‌ যদিও পণ্যমাশুল যে বেড়েছে সে কথা জানিয়েছেন কিছুটা নরম সুরে৷‌ সিমেন্ট, কয়লা, লোহা ও ইস্পাত, রান্নার গ্যাস, কেরোসিন, ডাল ও অন্যান্য দানাশস্য ইত্যাদির ওপর মাশুল বাড়ানো হয়েছে ০.৮ থেকে ১০ শতাংশ পর্যম্ত৷‌ অর্থাৎ দাম বাড়ানোর ভালই আয়োজন করে রাখলেন প্রভু৷‌ মাশুল বেড়েছে ইউরিয়া সারের ওপরও৷‌ কৃষকদের কোপ থেকে বাঁচতে বাড়তি ভর্তুকি জুগিয়ে এক্ষেত্রে মূল্যবৃদ্ধি ঠেকিয়ে রাখা হবে৷‌ বর্ধিত মাশুল থেকে বাড়তি ৪০০০ কোটি টাকা আয় হবে রেলের৷‌ যাত্রীভাড়া না বাড়লেও যাত্রীভাড়া বাবদও প্রায় ১৭ শতাংশ আয় বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে৷‌ ৫০,১৭৫ কোটি টাকা ধরা হয়েছে যাত্রীভাড়া বাবদ আয়৷‌ পণ্যমাশুল খাতে আয় ধরা হয়েছে ১,২১,৪২৩ কোটি টাকা৷‌ রেলকে বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়ার গুঞ্জনের মধ্যেই মন্ত্রী বলেছেন, রেল একটি উজ্জ্বল জাতীয় সম্পদ হয়েই থাকবে৷‌ ভারতের জনগণ সবসময়ই থাকবেন রেলের মালিক৷‌ রেল হবে জাতীয় অর্থনৈতিক অগ্রগতির ইঞ্জিন৷‌ এখানেই রাখঢাক করে আসল কথাটির ইঙ্গিত দিয়েছেন রেলমন্ত্রী৷‌ বলেছেন সম্পদ সংগ্রহের কথা৷‌ অন্য খাতে টাকা ঢালতে হলে রেল থেকেই সম্পদ সংগ্রহ করতে হবে৷‌ রেলকে বেচে দেওয়ার এই সুপরিকল্পিত বন্দোবস্ত খোলসা করতে চাননি সুরেশ প্রভু৷‌ এবং এজন্যই এই রেল বাজেটকে প্রথম উন্নয়নের রেল বাজেট বলে অভিহিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷‌ সংস্কারের ‘তেতো বড়ি’ খাইয়েই মানুষকে ‘অচ্ছে দিন’ উপহার দিতে চান মোদি৷‌ কিন্তু দিল্লিবাসীর ঘাড় ধাক্কা আর বিহারের অদূরবর্তী ভোটের দায় তাঁর সরকারকে কিছুটা চাপেও ফেলে দিয়েছে৷‌ সে কারণেই হয়ত যাত্রীভাড়া না বাড়ানোর সিদ্ধাম্ত নিতে বাধ্য হয়েছেন প্রভু৷‌ অম্তত বিহারের ভোটের আগে বাড়ছে না ভাড়া৷‌ এই ‘জনপ্রিয়তা-মুখী’ পদক্ষেপে খুব খুশি না হলেও কর্পোরেট মহল প্রভুর বাজেটকে স্বাগত জানাতে ভুল করেনি৷‌ এর ভেতরের বার্তাটি তাদের পড়তে ভুল হয়নি৷‌ তবে বাজেট শুনে শেয়ার বাজারে কিন্তু বেশ হতাশাই ছড়িয়ে পড়ে এদিন৷‌ পণ্যমাশুল বাড়ার সংবাদে কোল ইন্ডিয়া ছাড়াও ইস্পাত, সিমেন্ট ইত্যাদি ক্ষেত্রের কোম্পানিগুলির দর পড়তে থাকে৷‌

রেলমন্ত্রী এদিন বলেছেন, বিনিয়োগ দরকার রুটগুলিকে ভিড়মুক্ত করতে, ট্রেনের গতি বাড়াতে, যাত্রীদের সুযোগ-সুবিধা ও নিরাপত্তা দিতে৷‌ একটি বিস্তারিত বিনিয়োগ পরিকল্পনা তৈরি করা হয়েছে৷‌ তবে বিনিয়োগের জন্য এত টাকার দরকার যে, টাকার অনেক উৎস খুঁজতে হবে৷‌ বিভিন্ন সূত্র থেকে তহবিল সংগ্রহ করতে হবে৷‌ বহুমুখী উন্নয়ন ব্যাঙ্ক ও পেনশন তহবিলগুলি নতুন বিনিয়োগের আগ্রহ প্রকাশ করেছে৷‌ তারা ঘোষিত ও পৌনঃপুনিক রাজস্বের জোগান চায়৷‌ আমরা এটা দিতে পারি দীর্ঘামেয়দি ঋণচুক্তির মাধ্যমে৷‌ টাকার খোঁজে সাংসদ তহবিলের দিকেও হাত বাড়ান প্রভু৷‌ সাংসদদের আবেদন জানান, রেলের কাজেও টাকা বরাদ্দ করুন৷‌ প্রভুর পরিচ্ছন্নতার প্রকল্পের মধ্যে আছে ৬৫০টি নতুন স্টেশনে নতুন শৌচালয়, জৈব শৌচালয়৷‌ বেড রোল বিক্রি করা হবে অনলাইনে৷‌ অগ্রিম টিকিট কাটা যাবে দু’ মাসের জায়গায় ৪ মাস আগে৷‌ ‘অপারেশন ফাইভ মিনিটস’ চালু হবে অসংরক্ষিত টিকিট ইস্যু করার জন্য৷‌ অন্যান্য উদ্যোগের মধ্যে আছে হট বাটনস, কয়েন ভেন্ডিং মেশিনস ও সস্তায় ই-টিকিট৷‌ এটা করা হচ্ছে প্রতিবন্ধী যাত্রীদের জন্য৷‌ রেলমন্ত্রী মাল পরিবহণের জন্য ৪টি লক্ষ্য স্হির করেছেন৷‌ এর মধ্যে আছে রেলকে আরও নিরাপদ পরিবহণ করে তোলার কথা৷‌ রেলের মালবহন ক্ষমতা বাড়ানোর কথাও বলা হয়েছে৷‌ বলা হয়েছে পরিকাঠামোকে আধুনিক করার কথা৷‌ প্রভু বলেন, নতুন কিছু জুড়তে হবে, পুরনো কিছু ভাঙতে হবে৷‌ কিছু ইঞ্জিন বদলাতে হবে, কিছু মেরামত করতে হবে৷‌ কিছু শক্তি দেখাতে হবে, কিছু দুর্বলতা দূর করতে হবে৷‌ কিছু রাস্তা বদলাতে হবে, কিছু দিশা দেখাতে হবে৷‌ আমি বিশ্বাস করি, আমরা এ কাজ করতে পারব৷‌ কিন্তু রাতারাতি এটা সম্ভব নয়৷‌ ধাপে ধাপে আমরা সবটাকেই গড়ে তুলতে পারব৷‌ খুব অল্প সময়ের মধ্যে আমি বেশিরভাগ রাজ্য সফর করেছি৷‌ কথা বলেছি রেলের বহু কর্মীর সঙ্গে৷‌ সাধারণ মানুষের সঙ্গে৷‌ সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে রেলযাত্রীদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করেছি৷‌ ২০ হাজার প্রস্তাব এসেছে এবং সেগুলির ওপর কাজ শুরু হয়েছে৷‌ বাজেটেও কিছু কিছু নেওয়া হয়েছে৷‌ ভারতীয় রেলকে রূপাম্তরিত করার জন্য ৪টি লক্ষ্য ধার্য করা হয়েছে৷‌ প্রথমত, স্হায়ী ও পরিমাণগত অগ্রগতিকে ক্রেতা-অভিজ্ঞতা অনুযায়ী কার্যকর করা৷‌ দ্বিতীয়ত, রেলকে সফরের নিরাপদ মাধ্যম করে তোলা৷‌ তৃতীয়ত, রেলের ক্ষমতা ব্যাপকভাবে বাড়িয়ে তোলা ও পরিকাঠামোকে আধুনিক করা৷‌ চতুর্থত, ভারতীয় রেলকে অর্থনৈতিকভাবে স্বনির্ভর করা৷‌ রেল বাজেটের ছত্রে ছত্রেই প্রধানমন্ত্রীর কথা আউড়েছেন সুরেশ প্রভু৷‌ বলেছেন, রেলকে এগোতে হলে অংশীদারদের হাত ধরতে হবে৷‌ প্রধানমন্ত্রী যে ক্ষমতার যুক্তরাষ্ট্রীয়তার কথা বলেন, তার সঙ্গতি রাখতেই রাজ্যগুলির সঙ্গে হাত ধরাধরি করে চলতে হবে৷‌ তাহলেই রেল জাতীয় জীবনে যোগাযোগের মেরুদণ্ড হয়ে উঠতে পারে৷‌ রেলমন্ত্রী বলেন, রেল অন্য রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্হাগুলির সঙ্গে শরিকি সম্পর্ক স্হাপন করবে৷‌ পরিবহণের ক্ষেত্রে রেলের ক্ষমতা যাতে বৃদ্ধি পায় এবং রেল যাতে আরও বেশি করে কয়লা, লৌহ আকরিক, সিমেন্ট পরিবহণ করতে পারে সেদিকে নজর দিতে হবে৷‌ তৃতীয়ত, বিদেশ থেকে দীর্ঘকালীন ঋণ ও প্রযুক্তি পাওয়ার জন্য রেলকে দ্বিমুখী ও বহুমুখী সংগঠনগুলির সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে৷‌ অন্যান্য সরকারের সঙ্গেও সম্পর্ক রাখতে হবে রেলকে৷‌ এ ছাড়া বেসরকারি ক্ষেত্রের সঙ্গেও রেলকে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে গড়ে তুলতে হবে, যাতে রেল সর্বত্র পৌঁছতে পারে এবং স্টেশনের পরিকাঠামোকে আধুনিক করতে পারে৷‌ রেলমন্ত্রী জানান, হেল্প লাইনের নম্বর হল ১৩৮৷‌ চলম্ত ট্রেন থেকেও এই নম্বরে অভিযোগ জানানো যাবে৷‌ উত্তর রেলে এই হেল্প লাইন চালু হচ্ছে ১ মার্চ থেকে৷‌ এর অভিজ্ঞতা অনুযায়ী এই ব্যবস্হা সব রেলে সম্প্রসারিত হবে৷‌ নিরাপত্তাঘটিত বিষয়ের জন্য নিখরচার ফোন নম্বর হল ১৮২৷‌ রেল নির্ভয়া তহবিল থেকে টাকা নিয়ে মহিলা সুরক্ষার ব্যবস্হা করবে৷‌ মন্ত্রী জানান, যাত্রীদের আগাম ট্রেন ছাড়ার ও পৌঁছনোর সময় জানিয়ে দেওয়া হবে এস এম এসের মাধ্যমে৷‌ স্লিপারে ওপরের বার্থে ওঠার জন্য যে মইয়ের ব্যবস্হা আছে তা বাতিল করে নতুন সহজতর ব্যবস্হা চালু করা হবে৷‌ ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ডিজাইনকে এ জন্য বলা হয়েছে৷‌ প্রবীণ যাত্রীদের জন্য নিচের বার্থে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে৷‌ এ ব্যাপারে টি টি ই-দের বিশেষ নির্দেশ দেওয়া হবে৷‌ লিফট ও এসকালেটরের ব্যবস্হা রাখার কথা বলা হয়েছে বড় বড় স্টেশনগুলিতে, যাতে বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী যাত্রীদের সুবিধা হয়৷‌ যাত্রী সুবিধার জন্য তহবিল বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে ৬৭ শতাংশ৷‌ মন্ত্রীর অনুরোধ, এই খাতে সমস্ত কর্পোরেট, এন জি ও, স্বেচ্ছাসেবী ও ধর্মীয় সংস্হা উদারভাবে সাহায্য করুক৷‌ মার্চের মধ্যেই বরাক ভ্যালিকে ব্রডগেজের আওতায় আনা হবে৷‌ ৯টি রেল করিডরের গতি বাড়ানো হবে৷‌ এখন সর্বোচ্চ গতি আছে ১১০ থেকে ১৩০ কিমি প্রতি ঘণ্টায়৷‌ বাড়িয়ে করা হবে ১৬০ থেকে ২০০ কিমি প্রতি ঘণ্টায়৷‌ যাতে দিল্লি-কলকাতা, দিল্লি-মুম্বইয়ের যাত্রা এক রাতের মধ্যেই সম্পন্ন হয়৷‌ মালগাড়ির গতি বাড়ানো হবে৷‌ খালি মালগাড়ি ঘণ্টায় ১০০ কিমি ও মালভর্তি মালগাড়ি প্রতি ঘণ্টায় ৭৫ কিমি বেগে চালানোর চেষ্টা হচ্ছে৷‌ বুলেট ট্রেন মুম্বই থেকে আমেদাবাদে চালানোর জন্য সমীক্ষার কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে৷‌ এ বছরের মাঝামাঝি রিপোর্ট পাওয়ার কথা৷‌ সমস্ত প্রহরীবিহীন লেভেল ক্রসিং তুলে দেওয়া হবে রাস্তার ওপর ও নিচে সেতু করে৷‌ পি পি পি সেল চাঙ্গা করা হবে৷‌ পি পি পি বাড়তি কর্মসংস্হানের ক্ষেত্রে সাহায্য করবে৷‌ রেলমন্ত্রী বলেন, রেলের উন্নয়নের জন্য সম্পদ সংগ্রহের কথা ভাবতে হবে৷‌ শুধু বাজেট সাহায্যের দিকে তাকিয়ে থাকলে চলবে না৷‌ কারণ কেন্দ্রের অর্থনৈতিক বোঝা যথেষ্ট৷‌ দ্বিতীয়ত, একবার সংস্কারের কর্মসূচি শুরু হলে সম্পদ সংগ্রহের দরজা খুলে যাবে৷‌ কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে সাহায্যের পরিমাণ মোট যোজনা বরাদ্দের ৪১.৬শতাংশ৷‌ অভ্যম্তরীণ সম্পদ সংগ্রহের পরিমাণ ১৭.৮শতাংশ৷‌ রেল বোর্ডে একটি অর্থনৈতিক সেল চালু করার কথা হয়েছে৷‌ এই সেল বিশেষজ্ঞদের মতামত নেবে৷‌ রেলমন্ত্রী বলেন, রেলের গতিতে নানারকম বাধা-নিষেধের জন্য রেল চলাচলে দেরি হচ্ছে৷‌ এ ব্যাপারে পর্যালোচনা শিগগিরই শেষ হবে৷‌ তারপরই আমরা নতুন ট্রেন ঘোষণা করতে পারব৷‌ তিনি বলেন, যেমন চলছে চলুক, এভাবে রেল চলবে না৷‌ ভবিষ্যতের চ্যালেঞ্জের মোকাবিলায় আমাদের উঠে দাঁড়াতে হবে৷‌ রেল চোখে পড়ার মতো উন্নতি করবে কথা দিচ্ছি৷‌ সব আঞ্চলিক রেলগুলি দেখাশোনা করবে মন্ত্রকের সিনিয়র অফিসারেরা৷‌ মূল বিষয়গুলিতে আমি ব্যক্তিগতভাবে তদারকি করব৷‌ আমি মনে করি, এই প্রয়াসে আমি ১৩ লাখ উৎসর্গীকৃত নারী-পুরুষকে পাব৷‌ স্বামীজি বলেছিলেন, একটা ভাবনাকে মাথায় নাও৷‌ সেই ভাবনাকে তোমার জীবন করে নাও৷‌ ভাবো, স্বপ্ন দেখো৷‌ ওই ভাবনাকে অবলম্বন করে বাঁচো৷‌ শরীরের সমস্ত অংশ ওই ভাবনায় পূর্ণ হয়ে থাক৷‌ অন্য সব চিম্তাকে ভুলে যাও৷‌ এটাই সাফল্যের পথ৷‌ প্রভু বাজেট বক্তৃতার শেষে বলেন, রেলের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দিশাকে সফল করব৷‌









kolkata || bangla || bharat || editorial || post editorial || khela || Tripura ||
Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited