Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৫ মাঘ ১৪২১ শুক্রবার ৩০ জানুয়ারি ২০১৫
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
আজ সি বি আই-তে যাচ্ছেন মুকুল--দীপঙ্কর নন্দী ।। ডিম থেকে মাছ যে-কোনও ছোট শিল্পই স্বাগত: মমতা ।। ডি জে চালিয়ে চটুল নাচ, প্রতিবাদ করে আক্রাম্ত আবৃত্তিকার পার্থ ঘোষ, গৌরী ঘোষ ।। কলম্বাসের পদসঞ্চার পাইনো উপজাতিকে উপড়ে ফেলেছিল ।। দিল্লিতে ত্রিপক্ষ বৈঠকে ৬ দফা দাবি মোর্চার ।। এগোচ্ছে আপ? মোদি-শাহ শেষ সপ্তাহে ঝড় তুলতে চান ।। ইভটিজিং: মার খেয়ে কোমায় গেলেন যুবক ।। গডসেকে নিয়ে মেতেছে কিছু পাগল: আর এস এস ।। উত্তরবঙ্গে ১০০ বিঘা জমির খোঁজ দিলেন সুদীপ্ত সেন--সোমনাথ মণ্ডল ।। ওয়াইফাই সিটি হচ্ছে কলকাতা: মেয়র ।। প্রয়াত সুভাষ ঘিসিং ।। যাদবপুরে জয় কলরবের
ভারত

এগোচ্ছে আপ? মোদি-শাহ শেষ সপ্তাহে ঝড় তুলতে চান

মোদির মুঠোয় সুষমার দপ্তর! দায়িত্বে জয়শঙ্কর

দিল্লিতে ত্রিপক্ষ বৈঠকে ৬ দফা দাবি মোর্চার

খুচরো খবর

এগোচ্ছে আপ? মোদি-শাহ শেষ সপ্তাহে ঝড় তুলতে চান

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

রাজীব চক্রবর্তী: দিল্লি, ২৯ জানুয়ারি– মোদি-হাওয়া? ব্যাপারটা যে তত সহজ নয়, দিল্লির ভোট যত এগিয়ে আসছে ততই মালুম হচ্ছে বি জে পি-র৷‌ গত নভেম্বরেও যে সমীক্ষকেরা বি জে পি-কে নিরঙ্কুশ গরিষ্ঠতা দিয়ে দিচ্ছিলেন, তাঁদের হিসেবনিকেশে এখন অন্য সুর৷‌ হাওয়া ঘুরে গেছে কেজরিওয়ালের দিকে! এ সি নিয়েলসনের মত-সমীক্ষা অনুযায়ী জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে কেজরিওয়ালের দলের পেছনে সমর্থন ছিল ৪৬ শতাংশের, গত দু’সপ্তাহে তা বেড়ে ৫০ শতাংশ৷‌ আর বি জে পি-র সমর্থন ৪৫ থেকে কমে ৪১ শতাংশ৷‌ দলিত, অনগ্রসর, সংখ্যালঘুদের পছন্দ দানা বাঁধছে আপের পক্ষেই৷‌

একটি সর্বভারতীয় দৈনিকের জন্য করা সি ফোর সংস্হার সমীক্ষা বলছে, আপ এবং বি জে পি দু’দলেরই পেছনে এখন ৩৮ শতাংশের সমর্থন৷‌ মোদ্দা কথা, বি জে পি-র চিম্তা বাড়ছে৷‌ শেষ মুহূর্তে ঝড় তুলতে ১২০ জন সাংসদকে সঙ্গে নিয়ে মাঠে নামছেন বি জে পি সভাপতি অমিত শাহ৷‌ প্রচারের শেষ ক’দিনে গোটা দিল্লিতে মোট ২৫টি জনসভা করবেন বি জে পি-র এই সাংসদেরা৷‌ এর মধ্যে ৪টি সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে থাকছেন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷‌ এ ছাড়াও এক ডজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে আগেই মজুত রেখেছেন অমিত শাহ৷‌ বৃহস্পতিবার আনা হল আরও ৭ মন্ত্রীকে৷‌ এক কেজরিওয়ালকে ঠেকাতে ১৯ কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে নামাল বি জে পি! এবার কোনও ইস্তাহার প্রকাশ করছে না বি জে পি৷‌ বরং দু-এক দিনের মধ্যে দলের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী কিরণ বেদীকে সঙ্গে নিয়ে দলের ‘লক্ষ্য বিষয়ক একটি নথি’ প্রকাশ করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷‌ লক্ষ্য নাকি একটাই, যে কোনও উপায়ে দিল্লি বিধানসভায় দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা চাই৷‌ দিল্লির ভোট এখন সভাপতি অমিত শাহ ও নরেন্দ্র মোদির সম্মান রক্ষার লড়াইয়ে পরিণত হয়েছে৷‌ আম আদমি পার্টির তরতরিয়ে বাড়তে থাকা জনসমর্থন যে অমিত শাহ ও মোদির কপালে ভাঁজ ফেলেছে তা নিয়ে বিন্দুমাত্র সন্দেহ নেই৷‌ ৪৯ দিনের মাথায় সরকার ছেড়ে বেরিয়ে আসার পর আম আদমি পার্টির ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল৷‌ কিন্তু, দিল্লির বুকে পা-রাখলে এখনও কেজরিওয়ালের জনপ্রিয়তা মানতেই হয়৷‌ প্রথম দিকে গুরুত্ব না দিলেও নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে, ব্যাপারটা ততই বুঝছেন শাহ, মোদিরা৷‌ শেষমেশ কিরণ বেদীকে ময়দানে নামিয়ে আখেরে তেমন লাভ হয়নি৷‌ বরং হাওয়া আরও জটিল হয়েছে৷‌ দলের ভেতরেই বেড়েছে অসম্তোষ৷‌ সিধেসাধা কেজরিওয়ালের প্রশ্নবাণে আটকে যেতে হচ্ছে বেদীকে৷‌ ৭ ফেব্রুয়ারি বেশি দেরি নেই৷‌ তার আগে দলীয় কর্মীদের জন্য রণকৌশল ছকে দিতে জরুরি বৈঠকে বসেন বি জে পি নেতারা৷‌ দলের সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের নেতৃত্বে এদিনের উচ্চপর্যায়ের বৈঠকে ছিলেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি, নগরোন্নয়নমন্ত্রী বেঙ্কাইয়া নাইডু, অনম্ত কুমার এবং দিল্লির ৭ বি জে পি সাংসদ৷‌ বৈঠকে ঠিক হয়েছে, দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে জয় ছিনিয়ে আনতে ১৯ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী-সহ ১৩ রাজ্য থেকে দলের মোট ১২০ সাংসদকে নামানো হবে৷‌ এ ছাড়াও কেজরিওয়ালদের ঠেকাতে দলের রণকৌশল কী হবে তা নিয়ে আলোচনা হয়৷‌ অমিত শাহ ছাড়াও বৈঠকে দলের আরও কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা উপস্হিত ছিলেন৷‌ দিল্লিতে ভোটগ্রহণ পর্যম্ত আপ-প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়ালের কাছে প্রতিদিন গড়ে ৫টি করে প্রশ্ন রাখবে বি জে পি৷‌ এই খবর জানিয়েছেন বি জে পি-র দিল্লি প্রদেশ সভাপতি সতীশ উপাধ্যায়৷‌ আপের ‘৫ সাল কেজরিওয়াল’ স্লোগানের জবাবে বি জে পি-র ‘৫ সওয়াল কেজরিওয়াল’ প্রচার৷‌

মোদির দশ লাখি স্যুট!

অন্যদিকে, দেরিতে হলেও মাঠে নেমেছেন কংগ্রেস সহসভাপতি রাহুল গান্ধীও৷‌ এদিন সিলমপুরে এক দলীয় জনসভায় বক্তব্য পেশ করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নাম করে একহাত নিয়েছেন৷‌ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন বিদেশ থেকে কালোটাকা ফিরিয়ে এনে প্রত্যেক দেশবাসীর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে গড়ে ১৫ লাখ টাকা দিয়ে দেবেন৷‌ কোথায় গেল সেই টাকা? আপনারা কেউ পেয়েছেন? পাননি! কিন্তু, মোদিজি তো নিজের নাম লেখা দশ লাখি স্যুট পরে মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে হাত মেলাচ্ছেন৷‌ দেশবাসীকে বোকা বানাচ্ছে বি জে পি৷‌ জাতিদাঙ্গা ইস্যু তুলে ধরে বি জে পি-কে আক্রমণ করেছেন রাহুল৷‌ বলেছেন, যেখানেই নির্বাচন হয় সেখানেই নির্বাচনের আগে জাতিদাঙ্গা হয়৷‌ দিল্লির ত্রিলোকপুরীতে দাঙ্গার পর কোনও বি জে পি অথবা আপ নেতাকে দেখা যায়নি৷‌ কংগ্রেস নেতারা এখনও মানুষের পাশে আছেন৷‌ কংগ্রেস দুর্বল হয়ে যায়নি৷‌ দিল্লির প্রত্যেক গরিব মানুষের মাথায় ছাদ তৈরি করে দেওয়াই কংগ্রেসের প্রধান লক্ষ্য৷‌ আম আদমি পার্টিকেও দুষেছেন তিনি৷‌ বলেছেন, আপের একটাই ইস্যু, যেভাবেই হোক কংগ্রেসকে আটকাও৷‌





kolkata || bangla || bharat || editorial || khela || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited