Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ৭ কার্তিক ১৪২১ শনিবার ২৫ অক্টোবার ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  সংস্কৃতি  ঘরোয়া  পর্দা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
বোমা উদ্ধার করতে গিয়ে আক্রাম্ত পুলিস--পাড়ুই থানার ও সি-র মাথা লক্ষ্য করে বোমা ।। খাগড়াগড়, বেলডাঙায় সরেজমিনে এন আই এ-র ডি জি--পলাতকদের ধরতে বিশেষ স্ট্র্যাটেজি ।। সীমাম্তে ১০০০ অননুমোদনহীন মাদ্রাসা ।। মাদ্রাসা নিয়ে অপপ্রচার বন্ধের দাবি ।। কালো টাকার মালিকদের আড়াল করছেন! জেটলিকে জেঠমালানি ।। সোমবার মহারাষ্ট্রে নেতা নির্বাচন করবে বি জে পি ।। সেন কমিশন কেন বন্ধ হল?--রাজ্যের রিপোর্ট চান বিমান ।। রাজ্যে গ্রেপ্তার ১০৭৯ জন--বেহালায় মার খেলেন কনস্টেবল ।। আজ রবীন্দ্র সদন চত্বরে শুরু বাংলাদেশ বইমেলা ।। ৩০ বছর পূর্তিতে বিশেষ সাফাই অভিযান মেট্রো রেলে ।। পার্থর নিন্দা ।। রাজ্যে সদলে নিরাপত্তা কর্তারা
ভারত

কালো টাকার মালিকদের আড়াল করছেন! জেটলিকে জেঠমালানি

২৬-২৯ অক্টোবর সি পি এম কেন্দ্রীয় কমিটি

কোচি, মুম্বই, আমেদাবাদ সতর্ক

সোমবার মহারাষ্ট্রে নেতা নির্বাচন করবে বি জে পি

সঙেঘর পত্রিকা লিখল

সীমাম্তে ১০০০ অননুমোদনহীন মাদ্রাসা

‘জেলের ভেতর জেল’ রেখে চলে গেলেন মীনাক্ষী সেন

বছরে ভর্তুকির ১২ সিলিন্ডারই

জেল হেফাজতে আসামের ৬

খুচরো খবর

কালো টাকার মালিকদের আড়াল করছেন! জেটলিকে জেঠমালানি

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

রাজীব চক্রবর্তী, দিল্লি

২৪ অক্টোবর– কালো টাকা ইস্যুতে এবার আইনজীবী রাম জেঠমালানির তীব্র সমালোচনার মুখে পড়তে হল অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলিকে৷‌ কংগ্রেসের তরফে এদিন বলা হয়েছে, বিদেশি ব্যাঙ্কে মজুত কালো টাকার মালিকদের তালিকায় কংগ্রেসের কেউ জড়িত থাকলে সেটা তার ব্যক্তিগত অপরাধ৷‌ বৃহস্পতিবার প্রবীণ আইনজীবী জেঠমালানি অরুণ জেটলিকে চিঠি লিখে সরাসরি তাঁর ভূমিকার নিন্দা করেছেন৷‌ কালো টাকা ইস্যুতে সরকারের সদিচ্ছা নিয়ে প্রশ্ন তোলার পাশাপাশি আসল অপরাধীদের আড়াল করার চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি৷‌ জেঠমালানি জেটলিকে লিখেছেন, আমার সন্দেহ হচ্ছে, আরও অনেকের মতো আপনিও আসল সত্যিটা সামনে আনতে চাইছেন না৷‌ গত কয়েকদিন ধরে আপনার নানা মম্তব্যে জনমানসে বিভ্রাম্তি ছড়িয়েছে৷‌ কালো টাকার মালিকদের পরিচয় গোপন করে আপনি দেশকে আত্মহত্যার দিকে নিয়ে যাচ্ছেন৷‌ বড় অপরাধীদের পালানোর পথ করে দিচ্ছেন৷‌ একইসঙ্গে তিনি আর্জি জানিয়েছেন, সুইস কর্তৃপক্ষকে আমানতকারীদের নাম পাঠানোর পরিবর্তে সরকারের গঠিত ‘সিট’-কে সেই নামের তালিকা দেওয়া হোক৷‌ যাতে তারা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্হা নিতে পারে৷‌ কংগ্রেস নেতা, ইউ পি এ সরকারের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম শুক্রবার বলেছেন, কালো টাকার মালিকদের তালিকায় যদি কংগ্রেসের কারও নাম থাকে তবে সেটা সেই ব্যক্তির কাছে অস্বস্তির বিষয় হবে৷‌ সেটা তার ব্যক্তিগত অপরাধ৷‌ গোটা কংগ্রেস দল অস্বস্তিতে পড়বে কেন? এক টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, বিদেশি ব্যাঙ্কের দেওয়া কালো টাকার ভারতীয় মালিকদের নামের তালিকা আমাকে কেউ দেখাতে চায়নি, আমি দেখিওনি৷‌ তাই তালিকায় কাদের নাম আছে তা আমার জানা নেই৷‌ গত এপ্রিলে চিদম্বরম যখন অর্থমন্ত্রী ছিলেন তখন লিকটেনস্টাইনের ব্যাঙ্কের দেওয়া ভারতীয় গ্রাহকদের একটি তালিকা সুপ্রিম কোর্টে জমা দিয়েছিল ইউ পি এ সরকার৷‌ যদিও ইউ পি এ এবং এন ডি এ উভয় সরকারই দ্বৈত কর পরিহার চুক্তির কারণ দেখিয়ে ওই তালিকা প্রকাশ করতে রাজি হয়নি৷‌ সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টে বর্তমনা সরকারে তালিকা প্রকাশ না করার কথা বলে এবং একই যুক্তি দেখায়৷‌ এই নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক দেখা দেয়৷‌ কংগ্রেস ও বাম দলগুলি মোদি সরকারের বিদেশ থেকে কালো টাকা ফেরানোর সদিচ্ছা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে৷‌ সরকারের পরস্পর-বিরোধী মম্তব্য নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে বিভিন্ন মহলে৷‌ নাম প্রকাশ করলে কংগ্রেসই অস্তিতে পড়বে বলে বিতর্ক আরও বাড়িয়ে জেটলি৷‌ কংগ্রেস মুখপাত্র অজয় মাকেন অভিযোগ করেন, ‘ব্ল্যাক মানি’ ফেরাতে না পেরে ‘ব্ল্যাকমেল’ করছে বি জে পি৷‌ বুধবার একটি সর্বভারতীয় টিভি চ্যানেল সাক্ষাৎকারে বিদেশি ব্যাঙ্কে মজুত কালো টাকা প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেছেন, কর আইনের জটিলতার কারণে এখনই কালো টাকার মালিকদের নাম প্রকাশ করা যাচ্ছে না৷‌ তবে, খুব শিগ‍্গিরই সুইস ব্যাঙ্কে ভারতীয় অ্যাকাউন্ট হোল্ডারদের নাম প্রকাশ্যে আসবে৷‌ নাম প্রকাশ্যে এলে অস্বস্তিতে পড়তে হবে কংগ্রেসকে৷‌ ইউ পি এ সরকারের একাধিক মন্ত্রীর নাম ওই তালিকায় থাকতে পারে বলে ইঙ্গিত দেন জেটলি৷‌ এদিকে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর সূত্রে খবর, সুইস ব্যাঙ্কের ভারতীয় আমানতকারীদের তালিকা তৈরি করে এক এক করে অভিযোগ নথিভুক্ত করতে শুরু করেছে আয়কর বিভাগ৷‌ বহু প্রতীক্ষিত এই তালিকায় অনেক রাঘববোয়ালদের নাম থাকা নিয়ে জেল্পনা দানা বেঁধেছে৷‌ অর্থমন্ত্রক সূত্রে জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে একজন ব্যক্তিকে চিহ্নিত করে তাঁর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্হা নেওয়ার প্রস্তুতি শুরু হয়েছে৷‌ শিগগিরই আরও ২০ জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্হা নিতে চলেছে অর্থমন্ত্রক৷‌ এই সমস্ত গ্রাহকের সন্ধান মিলেছে জেনিবার এইচ এস বি সি-র তালিকা থেকে৷‌ ইতিমধ্যেই সুইস কর্তৃপক্ষ ভারত সরকারকে এই সব বেআইনি ব্যাঙ্ক গ্রাহকদের পরিচয় জানিয়েছে৷‌ লিকটেনস্টাইন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে পাওয়া আরও ১৯ জনের একটি তালিকা এসে পৌঁছেছে সরকারের হাতে৷‌ সুপ্রিম কোর্টে সেই তালিকা জমা দেবে সরকার৷‌





kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
sangskriti || ghoroa || tv/cinema || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited