Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৪ আশ্বিন ১৪২১ বুধবার ১ অক্টোবার ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
আনন্দ প্রহর তুঙ্গে...--সব্যসাচী সরকার ।। ইস্টবেঙ্গলের পর এবার মোহনবাগানের অ্যাকাউন্ট সিল--অগ্নি পান্ডে ।। বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি হলেও পুজো ভাসবে না বলছে আবহাওয়া দপ্তর--সুরজিৎ ঘোষ ।। মিরিটির বাড়ির পুজোয় অংশ নিয়েই দেশবাসীকে শারদ শুভেচ্ছা জানালেন রাষ্ট্রপতি--চন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় ।। আজ ফের শুনানি, জামিন পেলেন না জয়ললিতা ।। কেন্দ্রে শিবসেনা থাকবে কি না মোদি ফিরলে কথা: উদ্ধব ।। তাপস পালের অশালীন মম্তব্য: তদম্তে নামল সি আই ডি ।। কয়লা কেলেঙ্কারি, অফিসারদের ক্লিনচিট ।। ‘কেম ছো?’ হোয়াইট হাউসে মোদিকে ওবামার আপ্যায়ন ।। বঙ্গের শারদোৎসবে কলিঙ্গ, কম্বোডিয়া, নাগাল্যান্ডের কারুবাসনা ।। পেট্রল কমছে লিটারে ৬৮ পয়সা ।। কলকাতাশ্রী ঘোষণা করলেন মহানাগরিক
বিদেশ

‘কেম ছো?’ হোয়াইট হাউসে মোদিকে ওবামার আপ্যায়ন

ওই বাংলায় এবার পুজো ২৮,৪৫৮

শুধু এক গ্লাস জল

‘কেম ছো?’ হোয়াইট হাউসে মোদিকে ওবামার আপ্যায়ন

‘বিশ্ববন্ধু’কে ভারতে আমন্ত্রণ

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

ওয়াশিংটন, ৩০ সেপ্টেম্বর (সংবাদ সংস্হা)– ভারত এবং আমেরিকা আরও কাছে এল৷‌ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বললেন, আমরা স্বাভাবিক ‘বিশ্ববন্ধু’৷‌ হোয়াইট হাউসে দুই শীর্ষনেতার বৈঠকের পর সাংবাদিক সম্মেলনে ভারত এবং আমেরিকার সম্পর্কের এই নতুন স্লোগানের পাশাপাশি মোদি জানান, এই সফরে দুই দেশের মধ্যে বিভিন্ন আলোচনা একটি মঙ্গল উদ্যোগ৷‌ তিনি জানান, দক্ষিণ এবং পশ্চিম এশিয়ায় জঙ্গি মোকাবিলায় বৈঠকে আমরা দুই দেশ পারস্পরিক সহযোগিতা বাড়াতে সহমত হয়েছি৷‌ মোদি এবং ওবামা দুই নেতাই জানান, অসামরিক পারমাণবিক শক্তির ক্ষেত্রে সহযোগিতা বাড়াতে তাঁরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ৷‌ খাদ্য নিরাপত্তা নিয়েও আলোচনা হয়েছে, জানালেন দুই নেতা৷‌ বৈঠকে ওবামাকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন মোদি৷‌ হোয়াইট হাউস সূত্রে জানা গেছে, ওবামা এই আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন৷‌ যদি ওবামা ভারত সফরে আসেন, তবে তিনিই হবেন প্রথম মার্কিন প্রসিডেন্ট, যিনি দ্বিতায় বার ভারত সফর করবেন৷‌ এই বৈঠকের আগে সোমবার হোয়াইট হাউসের দুয়ারে পা রাখতেই ‘কেম ছো?’ (কেমন আছেন?গ্গ বলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে সাদর প্রশ্ন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার৷‌ মোদি সাড়া দিলেন ইংরেজিতেই: আপনাকে অনেক ধন্যবাদ, প্রেসিডেন্ট৷‌ সাক্ষাৎ)সৌজন্যের গুজরাটি বচনে মোদিকে আপ্যায়িত করে গোড়াতেই ব্যক্তিগত সংযোগ গড়ে তোলার চেষ্টা করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট৷‌ গুজরাট-দাঙ্গার জেরে একসময় তাঁকে ভিসা না দেওয়ার বৃত্তাম্তটি নিশ্চয়ই পেছনে সরিয়ে দিতেই বাড়তি উদ্যোগ নিয়েছেন ওবামা৷‌ মোদির সফরের শেষদিনে আজ হোয়াইট হাউসে নিয়মমাফিক দ্বিপাক্ষিক শীর্ষবৈঠক বসে৷‌ তার আগে কাল রাতে ছিল নৈশভোজের বিরল আয়োজন৷‌ এবং আরও বিরল যে ঘটনাটি ঘটালেন মোদি এবং ওবামা মিলে, তা হল দু’জনে মিলে একটি উত্তর-সম্পাদকীয় নিবন্ধ লেখা৷‌ বেরিয়েছে আজ ওয়াশিংটন পোস্টে৷‌ আমেরিকার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ভারতের কোনও প্রধানমন্ত্রীর এহেন যৌথ উদ্যোগ এই প্রথম৷‌ এতে দু’দেশের অংশীদারিকে ‘পরিমিত ও প্রথাগত’ লক্ষ্য ছাপিয়ে ‘নতুন অ্যাজেন্ডায়’ নিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার করেছেন দুই রাষ্ট্রনেতা৷‌ স্পষ্ট সঙ্কেত, মোদির ভারত এবং ওবামার আমেরিকা আরও নিবিড় সঙ্গী হয়ে উঠতে চাইছে বাণিজ্যে, প্রতিরক্ষায়, সন্ত্রাস দমনে ও আম্তর্জাতিক সম্পর্কের মঞ্চে৷‌ গতকালের নৈশভোজ ছিল দুই নেতার প্রত্যক্ষ বোঝাপড়া তৈরির আসর৷‌ নির্দিষ্ট কিছু বিষয় নিয়ে যে বিশদ আলোচনা হয়েছে, এমন নয়৷‌ সে আলোচনা হয় আজকের বৈঠকে৷‌ পেন্টাগন সূত্রের খবর, ভারত-মার্কিন প্রতিরক্ষা চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে ১০ বছর৷‌ কাল রাতে নৈশভোজে দুই নেতার মধ্যে কথা হয় নানা বিষয় নিয়েই, তবে কিছুটা আলাপসালাপের মেজাজে৷‌ পরস্পরকে চেনা-জানার চেষ্টা৷‌ দেড় ঘণ্টার ভোজসভার পর মোদি জানান, চমৎকার বৈঠক হয়েছে৷‌ নানা বিষয় নিয়ে কথা হয়েছে৷‌ ‘গোটা মানবজাতির মঙ্গলের লক্ষ্যে দুই দেশের অংশীদারি নিয়ে ওবামা এবং আমি আমাদের চিম্তাভাবনা বিনিময় করেছি’, টুইট করেছেন মোদি৷‌ হোয়াইট হাউসের ব্লু রুমে কাল নানাবিধ খাদ্য-পানীয়র সম্ভার ছিল৷‌ নবরাত্রির উপোস বলে মোদি সেসব ছোঁননি৷‌ খেয়েছেন শুধু গরম জল৷‌ ভোজসভায় দু’তরফের জনা কুড়ি সহযোগী ছিলেন৷‌ যেমন মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, বিদেশ সচিব জন কেরি, ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল প্রমুখ৷‌ আমেরিকার ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা বাইরে, তিনি ছিলেন না ভোজসভায়৷‌ মোদি ব্যক্তিগতভাবে ওবামাকে উপহার দিলেন মহাত্মা গান্ধীর গীতার একটি বিশেষ সংস্করণ, খাদিতে যার মলাট তৈরি করিয়েছেন তিনি নিজে৷‌ গান্ধীজির নিজস্ব ভাষ্য রয়েছে এতে৷‌ দিয়েছেন মার্টিন লুথার কিং-এর ১৯৫৯-এর ভারত সফরের সময়কার কিছু অডিও-ভিডিও ক্লিপিং, ছবি৷‌ গান্ধী ও মার্টিন লুথার ওবামার দুই আদর্শ ইতিহাসপুরুষ৷‌ ওবামার দুই কন্যা মালিয়া এবং সাশার জন্যই মোদি উপহার এনেছেন বলে খবর৷‌ ভোজসভার আগেই প্রকাশ করা হয় একটি দিশা-বিবৃতি, যার শিরোনামে সচেতনভাবে হিন্দি ভাষার প্রয়োগ৷‌ ‘চলেঁ সাথ সাথ– ফরওয়ার্ড টুগেদার উই গো’৷‌ এতে সন্ত্রাস, গণবিধ্বংসী অস্ত্রের প্রসার রোধে দুই দেশের সহযাত্রার অভিপ্রায় ব্যক্ত হয়েছে৷‌ বলা হয়েছে কৌশলগত অংশীদারির কথা৷‌ বস্তুত যৌথভাবে লেখা দুই রাষ্ট্রনেতার নিবন্ধে তা আরও খোলসা করেই বলা হয়েছে৷‌ জানানো হয়েছে, বাণিজ্য বিনিয়োগ প্রযুক্তিতে সম্প্রসারিত হবে দু’দেশের সহযোগিতা, যার সঙ্গে সমন্বয় থাকবে ভারতের বিপুল উন্নয়ন কর্মসূচির এবং আমেরিকাও বিশ্ব-উন্নয়নের চালিকা শক্তির জায়গায় থাকতে পারে৷‌ নিজ নিজ দেশের নিরাপত্তার জন্য গোয়েন্দা তথ্য বিনিময়, আইনের প্রয়োগে সহযোগিতার কথা বলা হয়েছে৷‌ বলা হয়েছে অবাধ সমুদ্রযাত্রা এবং সমুদ্রপথে বাণিজ্যের অধিকার সুরক্ষিত রাখার কথাও৷‌ দুই নেতা লিখেছেন, শুধু কেন্দ্রীয় স্তরেই নয়, দু’দেশের সম্পর্ককে প্রসারিত করা হবে রাজ্য স্তরে, স্হানীয় স্তরে, সামরিক বাহিনীর মধ্যে, নাগরিক সমাজের মধ্যে৷‌ কী করে মোদি আর ওবামা দু’জনে মিলে এই লেখাটি লিখলেন? কাল রাতে সবে তো প্রথম দেখা হল! ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র সৈয়দ আকবরউদ্দিনের বক্তব্য, এই ডিজিটাল সংযোগের দিনে এ আর এমন কী কঠিন কাজ৷‌ দুই নেতাই ডিজিটাল কূটনীতিতে দড়৷‌ সন্দেহ নেই, এশিয়ায় ভারতকে মজবুত এক শরিক করে তুলতে চাইছে আমেরিকা৷‌ মোদিকে আপ্যায়নের পেছনে আছে সেই তাগিদ৷‌ কিন্তু কিছু অস্বস্তিকর প্রশ্নও এর সঙ্গে জুড়ে আছে৷‌ যেমন মানবাধিকার প্রসঙ্গ৷‌ দুই নেতার বৈঠকের আগে আপাত-নিরীহ এই বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে৷‌ কারণ মার্কিন কংগ্রেসের ৯ সদস্য এক চিঠিতে ওবামার কাছে আর্জি জানিয়েছেন, ভারতে ধর্মাচরণের স্বাধীনতা ও মানবাধিকারের বিষয়টি তিনি যেন তোলেন মোদির সঙ্গে বৈঠকে৷‌ অর্থাৎ গুজরাট দাঙ্গার ছায়া থেকেই যাচ্ছে৷‌ বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে, হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জানান, রাষ্ট্রনেতাদের সঙ্গে বৈঠকে সাধারণভাবে মানবাধিকারের বিষয়টি অনেক সময়ই ওঠে৷‌ এই বিষয়ে নির্দিষ্ট করে কিছু জানানোর নেই৷‌ গতকাল মোদির আগমন উপলক্ষে একদল উৎসাহী প্রবাসী ভারতীয় হোয়াইট হাউসের সামনে গরবা নাচ নাচেন৷‌ রাতে প্রেসিডেন্টের অতিথশালা ব্লেয়ার হাউসে থাকেন মোদি৷‌ আজ সকালে মোদি ভারতীয় দূতাবাসের সামনে গান্ধীমূর্তিতে শ্রদ্ধা জানান৷‌ সেখানেও তাঁকে ঘিরে মার্কিনি-ভারতীয়দের উচ্ছ্বাস, স্লোগান ‘মোদি-মোদি’৷‌ মোদির আমেরিকা সফরের পঞ্চম তথা শেষদিন আজ৷‌


kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited