Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ৭ শ্রাবণ ১৪২১ বৃহস্পতিবার ২৪ জুলাই ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
লেক টাউনে শিশুকে আছাড়, কিল, চড়, লাথি, ঘুসি মেরে উধাও শিক্ষিকা ।। এনসেফেলাইটিসে মৃত্যু ১৫০ ছাড়াল উত্তরবঙ্গে ।। তৃণমূলের পুরভোট ।। তাপস পাল বক্তৃতা-কাণ্ড: সিডি দেখলেন বিচারপতি ।। কেন্দ্রীয় বাহিনী সরাবেন না, রাজনাথকে আর্জি তৃণমূলের ।। রেলের তৎপরতা, রক্ষা পেল হাওড়ামুখী রাজধানী ।। সুদীপ্তর ডায়েরি: সি বি আইয়ের নজরে রাজ্যের ৩ পুলিস অফিসার ।। ১১ জেলায় বৃষ্টি ঘাটতি, নিম্নচাপ অক্ষরেখায় বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি ।। যুদ্ধাপরাধ: ইজরায়েলকে সতর্ক করল রাষ্ট্রপুঞ্জের মানবাধিকার ।। আমস্টারডামে ফিরল ৪০ বিমানযাত্রীর দেহ ।। আজ রাজ্যপালের শপথ ।। মান উন্নয়নে ১০০ কোটি বরাদ্দ
সম্পাদকীয়

তিনি কেন?

তিনি কেন?

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

তৃণমূল কংগ্রেসের অধ্যাপক সংগঠন ওয়েবকুপা-র বয়স বেশি নয়৷‌ তবে, সভানেত্রী কৃষ্ণকলি বসুর নাম অনেকটাই ছড়িয়ে গেছে৷‌ তাঁর কথার ধরনধারণ, ভঙ্গি রীতিমতো অসাধারণ৷‌ সম্প্রতি তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় ভবনে যান সহযোগীদের নিয়ে৷‌ উদ্দেশ্য, উপাচার্যর কাছে দাবি জানানো, বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের রাজনীতি চর্চা চলবে না৷‌ প্রধান লক্ষ্য রোশনারা মিশ্র, শারীরবিদ্যার অধ্যাপিকা৷‌ তাঁর বড় অপরাধ, তিনি বিরোধী দলনেতা সূর্যকাম্ত মিশ্রর মেয়ে৷‌ সম্প্রতি ক্লাসঘরে তাঁকে ঘেরাও করেন কিছু ছাত্র ও অ-ছাত্র৷‌ আটকে পড়েছিলেন ছাত্রছাত্রীরাও৷‌ শারীরবিদ্যার ছাত্রছাত্রীরা এর প্রতিবাদে ক্লাস বয়কট শুরু করেন৷‌ উপাচার্যের আশ্বাসে সেই বয়কট উঠে যায়৷‌ কৃষ্ণকলি বসু উপাচার্যের কাছে গিয়েছিলেন কমবেশি দেড়শোজন সঙ্গীকে নিয়ে৷‌ উপাচার্য প্রস্তুত৷‌ কিন্তু মুশকিল, কৃষ্ণকলিরা সবাই, সবাই উপাচার্যের সঙ্গে কথা বলতে চান৷‌ তিন-পাঁচ-সাত-দশজন প্রতিনিধি দাবিপত্র দেন, কথা বলেন, এমনটাই চিরকাল হয়ে এসেছে৷‌ দেড়শো! ওয়েবকুপা সভানেত্রী তখন বলেন, ‘স্যর’ বাইরে এসে স্মারকলিপি নিন, কথা বলুন৷‌ উপাচার্য বেরিয়ে এলেন৷‌ দ্বারভাঙা হলে বসলেন৷‌ সামনে ওয়েবকুপার দেড়শো! সভানেত্রী শুধু দাবিপত্র জমা দিলেন না৷‌ স্পষ্ট হুমকি, যা চলছে, চলতে দেবেন না৷‌ প্রতিকার না হলে ফের আসবেন, দলবল নিয়েই৷‌ টেলিভিশনে তাঁর আক্রমণাত্মক ভাবভঙ্গি দেখা গেল৷‌ কৃষ্ণকলি বসুকে আমাদের কিছু বলার নেই৷‌ বলে লাভ নেই.৷‌ উপাচার্য সুরঞ্জন দাস কৃতী ইতিহাসবিদ৷‌ তাঁর গ্রম্হে গবেষণার মণিমুক্তো৷‌ প্রশাসক হিসেবেও দক্ষ, প্রশংসিত৷‌ বাইরে বেরিয়ে আসার আবদার বা দাবিতে সাড়া দিলেন কেন তিনি? একটা খারাপ দৃষ্টাম্তের শরিক হতে গেলেন কেন? সুরঞ্জন দাস, আমাদের বিস্ময় ও প্রশ্ন স্পষ্ট৷‌ মার্জনা করবেন৷‌


kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited