Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২১ বৃহস্পতিবার ২৭ নভেম্বর ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
সি বি আই ডাকলেই যাব: মদন--দীপঙ্কর নন্দী ।। মডেল পি পি পি শিল্পে লগ্নিতে ডাক মমতার--আবু রাইহান, হলদিয়া ।। সারদার ডিরেক্টরদের নথিই নেই!--সব্যসাচী সরকার ।। হিমম্তকে ৭ ঘণ্টা জেরা, চিঠি সুদীপ্তর লেখা নয়, আগেই মামলা করেছি ।। পুড়ল পুলিসের গাড়ি, লাঠিচার্জ, জখম বহু--রামঘাট এবার রণক্ষেত্র ।। কালো টাকার আলোচনায় সারদা তুলল বি জে পি--রাজীব চক্রবর্তী, দিল্লি ।। ফের চেষ্টা: ঘটনার ২ মাস পর তদম্ত কমিটির কথা বললেন মরিয়া অভিজিৎ ।। কৃষকদের ন্যায্য দাবি আদায়ে জেলায় জেলায় আন্দোলন বাম কৃষক সভার ।। এল পি জি ভর্তুকি নগদ হস্তাম্তর নতুন বছরে শুরু হবে দেশ জুড়ে ।। রাজাকারদের বিচারে আপত্তি পাক আইনসভার, ক্ষুব্ধ ঢাকা ।। শিল্পী শুভা কোথায়? ।। ১৪ট্র! আরও নামবে পারদ
সম্পাদকীয়

আন্দোলনের নামে

আন্দোলনের নামে

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

ছাত্র আন্দোলনের নামে গুন্ডামি আর বিরল ঘটনা নয়৷‌ কম নম্বর পাওয়া ছাত্রদের ভর্তি করতে হবে বেশি নম্বর-পাওয়াদের বঞ্চিত করে, এমন আন্দোলনও এখন দেখা যায়৷‌ টেস্টে নিতাম্তই খারাপ করা সত্ত্বেও পরীক্ষায় বসতে দিতে হবে, এমন আন্দোলন হয় এবং কখনও কখনও সফল! প্রেসিডেন্সি কলেজে অতি সম্প্রতি একটি আন্দোলন হল৷‌ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের নিয়ম, ক্লাসে ৭৫ শতাংশ উপস্হিতি থাকতে হবে পরীক্ষা দিতে হলে৷‌ বিশ্ববিদ্যালয় বিশেষ পরিস্হিতিতে ৫০ শতাংশ উপস্হিতিকেও যথেষ্ট মনে করতে পারে৷‌ প্রেসিডেন্সির ১৮০ জন ছাত্রছাত্রীর উপস্হিতির হার তার চেয়েও কম, অনেক কম৷‌ দাবি, পরীক্ষায় বসতে দিতে হবে৷‌ উপাচার্য অনুরাধা লোহিয়া আবদার মানতে রাজি হননি৷‌ ধর্না, ঘেরাও ইত্যাদি চলল৷‌ উপাচার্যর যা করা উচিত তা-ই করলেন৷‌ অন্যায্য দাবি মানলেন না৷‌ পুলিসও ডাকলেন না! আপসের পথ খোলা রাখলেন৷‌ শেষমেশ সিদ্ধাম্ত, এখনই নয়, তবে পরে সাপ্লিমেন্টারি পরীক্ষায় বসতে পারবেন সংশ্লিষ্ট ছাত্ররা৷‌ দেখা হবে, যাতে বছর নষ্ট না হয়৷‌ এমন একটা মত উঠে আসছে, যে, ক্লাসে হাজিরা নিয়ে বেশি কড়াকড়ি উচিত নয়৷‌ পরীক্ষায় বসা থেকে বঞ্চিত করা উচিত নয়৷‌ সন্দেহ নেই, কোনও কোনও ছাত্রছাত্রীর অনুপস্হিতির জন্য বিশেষ কারণ দায়ী হতে পারে৷‌ হতে পারে অসুস্হতা, কিংবা পারিবারিক সমস্যা৷‌ এই দিকটাও ভেবে দেখা উচিত, পড়ুয়ারা ক্লাসে যেতে উৎসাহী নন কেন? শুধু কি ফাঁকি দেওয়ার জন্য? সিনেমা দেখা আর আড্ডা মারার জন্য? সব শিক্ষক কি সত্যিই উপযুক্ত বা আম্তরিক? কেন কোনও কোনও শিক্ষকের ক্লাস করতে যাওয়ার কথা ভাবলে হাই ওঠে শিক্ষার্থীদের? আগ্রহী করে তোলার চেষ্টা সব সময় হয়? এ সবই ভেবে দেখার মতো কথা৷‌ কিন্তু, নিয়ম যখন আছে, হাওয়ায় উড়িয়ে দেওয়া চলে না৷‌ ক্লাস করলে কারও ক্ষতি হয়, এ কথাও বলা চলে না৷‌ প্রেসিডেন্সির উপাচার্য অনুরাধা লোহিয়াকে অভিনন্দন৷‌ চাপের মুখে নিয়মকে বুড়ো আঙুল দেখাতে রাজি হননি, আবার ১৮০ জন ছাত্রছাত্রীকে শত্রু মনে করেননি৷‌ কথা হচ্ছে শিক্ষা নিয়ে৷‌ অন্য এক বিশ্ববিদ্যালয়ের বিচিত্র উপাচার্য শিখলেন কি?





kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || khela || Tripura ||
Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited