Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৭ চৈত্র ১৪২১ বুধবার ১ এপ্রিল ২০১৫
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
বাবরি: আদবানিদের নোটিস সুপ্রিম কোর্টের--রাজীব চক্রবর্তী ।। সেবি-র নিষেধ উড়িয়ে টাকা তুলেছে রোজভ্যালি--সোমনাথ মণ্ডল ।। রাজনাথের রাজনৈতিক সফর! প্রতিবাদ মমতার ।। আলুচাষের বিপর্যয়, আর্থিক সঙ্কটে তল্লাটের কৃষি সমবায় ।। ওরা স্বস্তিতে নেই বলেই শক্তি প্রয়োগ করছে: সূর্য ।। খাগড়াগড় নিয়ে মমতাকে সিদ্ধার্থনাথের ১০ প্রশ্ন ।। সন্ত্রাস দমনের নামে আনা মোদির রাক্ষুসে বিল ফের পাস গুজরাটে ।। নতুন দল? যোগেন্দ্র-প্রশাম্ত বৈঠক ডেকেছেন ১৪ তারিখ ।। চীনে ঝাড়ুতে কলকাতা সাফ!--তাপস গঙ্গোপাধ্যায় ।। পুরভোটে তৃণমূলকে সমর্থন সিদ্দিকুল্লার--দীপঙ্কর নন্দী ।। ওপারেও পুরভোট ।। ইয়েমেনে আটকে আছে ৪০ বাঙালি
সম্পাদকীয়

অন্য পরীক্ষা

অন্য পরীক্ষা

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

একটু অন্যভাবে বললে সেখানে সকল বাবাজীবনই উন্নতিশীলেষু৷‌ তা মাননীয়া মা ষষ্ঠীর কৃপায় সমগ্র বিহারে ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষার পরীক্ষার্থীর সংখ্যা বিশেষ কম নয়৷‌ যারা পরীক্ষা দিচ্ছে তারা স্বাভাবিক কৃতিত্বেই প্রায় শিক্ষাবীর৷‌ কিন্তু যাঁরা সেখানে পরীক্ষার্থীদের সাহায্যকারী (এখনকার ক্রিকেট খেলায় যেমন সাপোর্ট)স্টাফ-, তাঁরাও কিছু কম বীর নন৷‌ একাধিক সংবাদপত্রে একটা রোমহর্ষক ছবি ছাপা হয়েছে, সেখানে পরীক্ষার্থী বাবাসকলদের বাবা-দাদারা উচ্চস্হানে আরোহণের একাধিক পরীক্ষিত পদ্ধতিতে নির্মীয়মাণ বা অসম্পূর্ণভাবে নির্মিত বাড়ির বাতায়নসমূহে উঠে পড়েছেন৷‌ এই চমকপ্রদ ছবি ও সংবাদ গোপন থাকার যোগ্য নয় বলে গোপন নেই৷‌ বিহার রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী প্রায় অসহায় ভঙ্গিতে প্রাসঙ্গিক মম্তব্য হিসেবে বলেছেন, প্রশাসন ও পুলিস চেষ্টা করছে৷‌ কিন্তু বাস্তবে কিছুই করতে পারছে না পুলিস৷‌ মাননীয় মন্ত্রী বলেছেন, ১৪ লাখের ওপর পরীক্ষার্থী, মাথাপিছু অভিভাবক-সহ ৪-৫ জন, ৬০-৭০ লাখ লোকের ওপর নজর রাখা সম্ভব? একেবারে খাঁটি কথা৷‌ খবরের জাত তেমন হলে তার সমর্থনে একই রকম খবর বিভিন্ন রাজ্য থেকেও পাওয়া যায়৷‌ উত্তরের ভাষা বা হাতের লেখা একই রকম হলেই বা উদ্বিগ্ন হওয়ার কী আছে! দেশের শাসকবর্গ বা রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ নিশ্চয় বুঝতে পারছেন এই প্রকারের পরীক্ষা গ্রহণ পদ্ধতিতে দেশে গণতন্ত্রের ভিতও মজবুত হচ্ছে৷‌ নতুন করে পরীক্ষা গ্রহণে আবার প্রচুর অর্থ ব্যয় হবে৷‌ দেশের অর্থ অপচয়ের অধিকার কারও নেই৷‌ তা ছাড়া আবার নেওয়া পরীক্ষার লগ্নে উদ্যমী অভিভাবকবৃন্দ যে আবার অট্টালিকা আরোহণ কর্মে উৎসাহী হবেন না তার কি কোনও নিশ্চয়তা আছে? তার চেয়ে পরীক্ষা গ্রহণের আগে সগর্জন ঘোষণায় জানানো যায় না যে পরীক্ষা কেন্দ্রের হাজার গজের মধ্যে ছাত্ররা ছাড়া কাউকেই ঢুকতে দেওয়া হবে না? প্রয়োজনে স্হানীয় পুলিসের সঙ্গে সামরিক বাহিনীর একটা-দুটো গাড়িও হাজির থাকতে পারে৷‌ প্রয়োজনে পরীক্ষার জন্য প্রশাসনের বুদ্ধি-বিবেচনারও পরীক্ষা দিতে হয় কিনা৷‌





kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited