Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১০ ভাদ্র ১৪২১ বুধবার ২৭ আগস্ট ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
সংসদীয় বোর্ড থেকে বাদ আদবানি, যোশি ।। অধীর সরিয়ে দিতেই ক্ষুব্ধ শঙ্কর: অকৃতজ্ঞ ।। ডি ভি সি: রঘুনাথপুরে জমি বিক্রির চেক নিতে অভূতপূর্ব সাড়া! ।। নকল: অপমানিত অধ্যক্ষপদত্যাগ করেও ফিরলেন ।। মুম্বই, চেন্নাইয়ের ব্যবসায়ীর খোঁজে সি বি আই ।। সোনিয়াকে ভাঙন ঠেকাবার প্রস্তাব দিলেন মানস ।। বি জে পি-কে চাপ শিবসেনার: মোদি হাওয়ায় ভরসা নেই ।। ‌ট্যাক্সি ফের উধাও হবে কলকাতায়? ।। রায়দিঘি-খুন: জেল থেকে ছাড়া পেলেন সি পি এম নেতা বিমল ।। রাজস্হানে কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে এস এফ আইয়ের বিরাট জয় ।। ১৩ সেপ্টেম্বর বি জে পি-র ফের পরীক্ষা ।। রাজারহাটের নীলোৎপল কোথায়?
সম্পাদকীয়

আবাহন!

আবাহন!

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

যোজনা আয়োগের বিসর্জন ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷‌ ১৪ আগস্ট শেষ হয়েছে সংসদের সাম্প্রতিক অধিবেশন৷‌ কিছুই বলেননি তিনি৷‌ পরদিন, ১৫ আগস্ট, স্বাধীনতা দিবসে লালকেল্লার ভাষণে বাজালেন মৃত্যুঘণ্টা: গুডবাই প্ল্যানিং কমিশন৷‌ স্বাধীন ভারতে দরকার যোজনা আয়োগ, এই বক্তব্য প্রথম পেশ করেছিলেন সুভাষচন্দ্র বসু৷‌ প্রাথমিক খসড়া তৈরি করেন বিশ্ববিশ্রুত বিজ্ঞানী মেঘনাদ সাহা৷‌ প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর আগ্রহে যোজনা আয়োগের রূপরেখা তৈরি করেন প্রাতঃস্মরণীয় প্রশাম্তচন্দ্র মহলানবিশ৷‌ মার্কামারা দক্ষিণপম্হীদের বিরোধিতা ছিল৷‌ তবু, পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার মাধ্যমে ধাপে ধাপে এগনোর পথ তৈরি হয়েছিল৷‌ যত বেশি বেসরকারীকরণের হাওয়া ঢুকল, রাষ্ট্রায়ত্ত উদ্যোগকে অবহেলার হাওয়া ঢুকল, ততই উদ্দেশ্যপ্রণোদিত প্রশ্ন তোলা হতে থাকল যোজনা পরিষদের অস্তিত্ব নিয়ে৷‌ কী দরকার? প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী একবার যোজনা আয়োগের সদস্যদের বলেছিলেন ‘একঝাঁক জোকার৷‌’ কেউ ইস্তফা দেননি! মনমোহন সিংয়ের ঘনিষ্ঠতম সঙ্গী মন্টেক সিং আলুওয়ালিয়া দায়িত্ব নিয়ে যোজনা আয়োগকে ভয়ঙ্কর হাস্যকর জায়গায় নিয়ে গেলেন৷‌ দপ্তরের বাথরুম বানাতে খরচ ৩৫ লক্ষ৷‌ আর ঘোষণা, দেশবাসীর দৈনিক খরচ ২৮ টাকা হলেই দারিদ্র্যরেখার ওপরে! সংস্কার অবশ্যই জরুরি ছিল৷‌ কিন্তু একেবারে বিসর্জন? রাজ্যের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী ড. অসীম দাশগুপ্ত বললেন, ‘মত আদানপ্রদানের একটা জায়গা ছিল৷‌ ভিন্ন মতের মধ্যে থেকেই একটা পথ বেছে নেওয়ার সুযোগ ছিল৷‌’ একদম ঠিক৷‌ প্রচার হচ্ছে, যোজনা আয়োগের বিলুপ্তির ফলে নাকি রাজ্যের অধিকার বাড়বে৷‌ বিশ্বাস হয় না৷‌ যোজনা বরাদ্দ বিষয়ে কেন্দ্র-রাজ্য আলোচনার অনেক ইতিবাচক দিক ছিল৷‌ যোজনা আয়োগকে বিসর্জন দেওয়া হল? নাকি এক ব্যক্তিকেন্দ্রিক শাসনের আবাহন? সব ধরনের ক্ষমতার ও সিদ্ধাম্তের একটাই কেন্দ্র চাইছেন মোদি? প্রশ্ন নয়৷‌ উত্তর, হ্যাঁ, চাইছেন এবং পাচ্ছেন৷‌


kolkata || bangla || bharat || editorial || post editorial || khela || Tripura ||
Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited