Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১২ কার্তিক ১৪২১ বৃহস্পতিবার ৩০ অক্টোবার ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
দলের বৃহত্তর স্বার্থে আরাবুলের বিরুদ্ধে ব্যবস্হা--দীপঙ্কর নন্দী ।। আড়ালে আরাবুল ফোনও ধরছে না--সব্যসাচী সরকার ।। পলিটব্যুরোকে নতুন করে খসড়া তৈরি করতে বলল কেন্দ্রীয় কমিটি ।। বর্ধমানে বাড়ির কাজের লোক, ভাড়াটের তথ্য নেবে প্রশাসন ।। সুইস ব্যাঙ্কে টাকা: মুখবন্ধ খামে ৬২৭ জনের তালিকা ।। দিল্লিতে সরকার: সব দলের সঙ্গে বসছেন উপ-রাজ্যপাল ।। ইংরেজবাজারে জমির দখল নিয়ে সঙঘর্ষে মৃত ৪ ।। সি বি আই চাই মাখড়ায়, হাইকোর্টে একাধিক মামলা ।। আজ মহাসপ্তমী, ষষ্ঠীতেই জনজোয়ার চন্দননগরে--নীলরতন কুণ্ডু ।। স্হায়ী পর্যটনকেন্দ্র গড়ে তোলার লক্ষ্যে শিল্পপতিদের নিয়ে সাগরে আজ মমতা ।। গুপ্তঘাতক জামাত প্রধান নিজামির ফাঁসির হুকুম ।। নির্দেশিকা নরম হল যাদবপুরে
খেলা

সূর্য়র ব্যাটে নতুন সূর্যোদয়, হারাল ডেথ বোলিং, আম্পায়ারিং

ধোনি খেলছেন না বলে আত্মতুষ্ট নন ম্যাথুজ

ব্র্যাডম্যান সম্মান দেওয়া হল শচীন, স্টিভকে

ব্যথা কমানোর ইঞ্জেকশন নিতে নিষেধ করেছিলেন এনরিকে

যুবির মনে হচ্ছে, দেশের হয়ে খেলা শেষ

দিল্লির মাঠে দেল পিয়েরোদের পয়েন্ট কাড়ল নর্থ ইস্ট

লড়ে হারল ইউনাইটেড

পুরোদমে অনুশীলনে সুস্হ গার্সিয়া

আজই কটকে যাচ্ছেন সুস্হ ঋদ্ধিমান

আজ নামছে মহমেডান

ফের ঝামেলায় বালোতেলি

মধ্যাঞ্চল ২৩৭৷‌৭

সূর্য়র ব্যাটে নতুন সূর্যোদয়, হারাল ডেথ বোলিং, আম্পায়ারিং

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

অগ্নি পান্ডে

অনেক দিন এমন টানটান উত্তেজক ম্যাচ বাংলার ক্রিকেটপ্রেমীরা দেখেননি৷‌ যার সাক্ষী, বুধবার সল্টলেকের যাদবপুর ক্যাম্পাস৷‌ স্নেহাংশু আচার্য চ্যালেঞ্জার ট্রফিতে বাংলা বনাম মুম্বই ম্যাচে রান উঠল প্রায় ৭০০! দুরম্ত দুটো সেঞ্চুরি৷‌ কিন্তু শেষ পর্যম্ত যা দেখতে চেয়েছিল যাদবপুর ক্যাম্পাসের মাঠ, তা হল না৷‌ ২৭ রানে হেরেই গেল লক্ষ্মীরতন শুক্লার বাংলা৷‌ চাপটা বাড়ল৷‌ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশকে হারাতে না পারলে প্রতিযোগিতার ফাইনালে ওঠা হবে না৷‌ বৃহস্পতিবার বাংলার কাছে ম্যাচটি সেমিফাইনাল হয়ে দাঁড়াল৷‌

বাংলা হারল দুটো কারণে৷‌ জঘন্য আম্পারিং ও ডেথ বোলিং৷‌ দিন্দা, বীরপ্রতাপরা ডেথ ওভারে যা বল ফেললেন, তা চোখে দেখা যায় না৷‌ সবই মাঠের বাইরে পড়ল৷‌ মুম্বই অধিনায়ক নাইট রাইডার্সের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য সূর্যকুমার যাদব বাংলার বোলারদের ঠেঙালেন বেধড়ক৷‌ মিডল অর্ডারের নিচের দিকে ব্যাট করতে নেমে সূর্যকুমার মাত্র ৪৬ বলে ১০২ রান করে অপরাজিত রইলেন ১৪টি চার, ৪টি ছয়ের সাহায্যে৷‌ বাংলার প্রধান স্ট্রাইক বোলার দিন্দাকে নিয়ে রীতিমতো ছেলেখেলা করলেন৷‌ সুইচ হিট, রিভার্স সুইপ কিছুই বাদ দিলেন না৷‌ যাদবপুর ক্যাম্পাসের বাইশ গজে সূর্যকুমারের ব্যাটে নয়া সূর্যোদয় দেখা গেল৷‌ যার সুবাদে টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করে মুম্বই বাংলার সামনে রাখল ৩৬০ রানের পাহাড়৷‌ সূর্যকুমার ছাড়াও রান পেলেন ব্রাভিস শেট্টি (৭৩), অভিষেক নায়াররা (৬৫)৷‌ শোনা গেল, ফিট না থাকায় দিন্দা নাকি এই ম্যাচটা খেলতে চাননি৷‌ তাঁর বোলিং গড়: ১০ ওভারে ৩টি মেডেন দিয়ে ৭৬ রানে ২টি উইকেট! না, যা দিন্দার সঙ্গে কোনওভাবে মানানসই বোলিং নয়৷‌

৩৬১ রানের চাপ মাথায় নিয়ে ব্যাট করতে নেমে বাংলার ফর্মে-থাকা ওপেনার অরিন্দম দাস দেখিয়ে দিয়ে গেলেন কীভাবে মাথা ঠান্ডা রেখে ব্যাট করতে হয়৷‌ শেষ রক্ষা হল না৷‌ তবুও অরিন্দম, যাকে ‘ডন’ নামেই চেনে বাংলার ক্রিকেটমহল, সেই ডন দেখালেন আধুনিক সীমিত ওভারের ক্রিকেটের উপযোগী শট ভাঁড়ারে না থাকলেও ধ্রুপদী স্টাইলে ১১৮ বলে ১৪৭ রান করা যায়৷‌ মনে রাখার মতো৷‌ ১৮টি চার ও ২টি ছয় বেরোলো ডনের উইলো থেকে৷‌ তাঁকে খানিকটা সাহায্য করেছিলেন শুভজিৎ ব্যানার্জি (৬১)৷‌ আর কেউ দাঁড়াতে পারলেন না৷‌ শুরুর দিকে সুদীপ চ্যাটার্জি (২৩) চেষ্টা করছিলেন৷‌ কিন্তু এত দুর্বল মানের আম্পায়ারিংয়ের শিকার হতে হবে বাংলা শিবির ভাবেনি৷‌ বল থাইয়ে লেগে উইকেটকিপারের হাতে গেল৷‌ আম্পায়ার সৌমেন সিং দ্রুত হাত তুলে দিলেন৷‌ জীবনে যা করেন না, সুদীপ দাঁড়িয়ে বিরক্তি প্রকাশ করলেন৷‌ আরও নমুনা? ম্যাচ তখন ৪৬ ওভারে৷‌ মাঠে অন্ধকার নেমে এসেছে৷‌ আশপাশের বড় বাড়িগুলোয় আলো জ্বলে উঠেছে৷‌ সি এ বি আম্পায়ার সৌমেন সিং ও শক্তিপদ ভট্টাচার্য খেলা চালিয়ে গেলেন৷‌ যা দেখে সবাই অবাক! নতুন নিয়মে ব্যাটসম্যান এখন খারাপ আলোর আবেদন করতে পারেন না৷‌ আম্পায়ারদেরই সিদ্ধাম্ত নিতে হয়৷‌ সি এ বি-র দুই মূর্তি করলেন না৷‌ খারাপ আলোর (সত্যিই ছিল) জন্য ম্যাচ বন্ধ হলে বাংলা জিতে যেত৷‌ পরের ওভারেই বাংলা গুটিয়ে গেল ৩৩৩ রানে৷‌ ম্যাচ শেষে অবাক করা দৃশ্য হল, বাংলার অন্য তিন নির্বাচক যখন দুর্বল আম্পারিংয়ের সমালোচনায় তখন প্রধান নির্বাচক রাজু মুখার্জি এগিয়ে গিয়ে আম্পায়ারদের সাধুবাদ জানিয়ে পিঠ চাপড়ে দিলেন! হতবাক সবাই! প্রধান নির্বাচকের ভূমিকা দিন দিন কেমন যেন লাগছে৷‌ সৌরভ দায়িত্ব নেওয়ার পর বাংলার ক্রিকেটে অনেক আধুনিকতা দেখা যাচ্ছে৷‌ বিনীত অনুরোধ, এবার সৌরভ আম্পায়ারদের মানে নজর দেন আখেরে বাংলা ক্রিকেটের ভাল হবে৷‌

বাংলার নেতা লক্ষ্মী বললেন, ‘দারুণ খেলা হয়েছে৷‌ দুটো দলই সমানে সমানে লড়েছে৷‌ আমরা শেষ দিকে অন্ধকারে তাড়াতাড়ি সবাই আউট হয়ে গেলাম৷‌ তবে এই ম্যাচ থেকে আমাদের সবার শিক্ষা হয়ে গেল৷‌ অরিন্দম অসাধারণ ব্যাট করল৷‌ ওর চেষ্টাটা আমরা দাম দিলাম না৷‌ খারাপ লাগছে৷‌ এবার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে আমাদের জিততেই হবে৷‌’ অরিন্দম দাসের আপশোস, জেতা গেল না৷‌ ‘সবাই মিলে একটা চেষ্টা করেছিলাম৷‌ আমি আগেও এমন ব্যাট করেছি৷‌ এটা নতুন কিছু নয় আমার কাছে৷‌ জিততে পারলে ভাল লাগত৷‌’ মুম্বই কোচ প্রবীণ আমরের গলায় দুই শতরানকারীর প্রসংশা৷‌ ‘দারুণ ম্যাচ দেখলাম৷‌ সূর্য অসাধারণ৷‌ মাত্র ৪৬ বলে সেঞ্চুরি সচরাচর দেখতে পাওয়া যায় না৷‌ অরিন্দম দেখিয়ে দিল মাথা ঠান্ডা রেখে কীভাবে ব্যাট করতে হয়৷‌’





kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || khela || Tripura ||
Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited