Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৫ ফাল্গুন শনিবার ২৮ ফব্রুেয়ারি ২০১৫
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
আজ মমতার বাড়িতে বৈঠক-- থাকছেন না মুকুল ।। কর্মসংস্হান, কর কাঠামো সরল করে রাজস্ব বাড়ানোর লক্ষ্যে রাজ্য বাজেট ।। ঋণ কিন্তু বেড়ে চলেছে: অসীম ।। সহজ কর ব্যবস্হা ছাড় বিভিন্ন ক্ষেত্রে ।। রাজ্য বাজেটে শুধুই মিথ্যা চমক: বি জে পি ।। সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে বার্তা --জমি বিলে রফার সঙ্কেত দিলেন মোদি ।। ফরাসি দরিয়ায় প্রমোদতরণীতে ফূর্তি-সফর! গাডকারি গাড্ডায় ।। তেলে হাত দিয়ে আয়করে ছাড়? ।। সামিহীন ভারত, পিচকে চেনা বললেন শিখর ।। সানি: যা খুশি করতে পারে ডি’ভিলিয়ার্স --লারার দেখা সেরা ।। নাস্তিক ব্লগার অভিজিৎকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে খুন! ।। অর্থনৈতিক বৃদ্ধির হার ৮ শতাংশের ওপর সংস্কারে মহা ঝটকার সময় এটাই: অর্থনৈতিক সমীক্ষা
খেলা

পালিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়া যায় না: শাস্ত্রী

অতীনের তীব্র বিরোধিতা, পাল্টা আক্রমণে রণে ভঙ্গ

সুপ্রিম কোর্টে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা

শিলংয়ে দুঃসাহসিক জয়, ক্লাবে অভূতপূর্ব ঘটনা সত্ত্বেও সুবিধায় শাসকগোষ্ঠী

ডি’ভিলিয়ার্সের অভিমান ঝরে পড়ল ব্যাটে রান হয়ে!

নিজেই চমকে গেছেন ডি’ভিলিয়ার্স হারের যন্ত্রণাই কাজ করেছে

সেই ভারত আর এই ভারত এক নয়

সামিহীন ভারত, পিচকে চেনা বললেন শিখর

উত্তেজিত ক্লার্ক, চিম্তায় ম্যাকালাম

রাহানের ফর্ম পরম প্রাপ্তি

ফ্লেচারের পর ম্যানেজারও ফিরে আসছেন!

সানি: যা খুশি করতে পারে ডি’ভিলিয়ার্স

ইস্টবেঙ্গলে ফুটবলারদের টাকা কমছে

ডিম! কলা! পালাতে হল মঈনকে

ভারতকে ভয় পাচ্ছেন না তৌকির

জেলে থাকার সময় শ্রীশাম্তর ওপর হামলা হয়েছিল

যাচ্ছেন না আনফিট দীপেন্দু

অসিদের নাকি হারাতে পারেন আফগানরা

লড়ছে মুম্বই

মুম্বই হারাল ভারতকে

পালিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়া যায় না: শাস্ত্রী

দেবাশিস দত্ত

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

‘‘চিরকাল কি কোনও ব্যক্তি বা দল পড়ে পড়ে মার খায়? হুইল অফ ফরচুন ঘুরতেই থাকে৷‌ এবং, এ মুহূর্তে ওই চাকা আমাদের অনুকূলে যেই ঘুরতে শুরু করেছে, সবাই মিলে ওই চাকাটাকে জাপটে ধরে রেখেছি৷‌’’



‘‘দ্য টিম ইজ প্লেয়িং গুড ব্র্যান্ড অফ ক্রিকেট৷‌ ভয় পাচ্ছে না কোনও বিপক্ষ দলকে৷‌ কোনও বড় নামকে৷‌ প্রচুর খাটাখাটনি করছে৷‌ পারফে’ প্র্যাকটিস বলতে যা বোঝায়, আমাদের ক্রিকেটাররা সেদিকেই মন দিয়েছে৷‌’’



‘‘ভারতের কোনও দল, দক্ষিণ আফ্রিকাকে এভাবে কান ধরে ওঠ-বস করিয়ে, বোধহয় হারাতে পারেনি৷‌ প্রায় ৮০ হাজার দর্শকের সামনে মেলবোর্নের মতো বড় মাঠে ভাল খেলাটা একটা ব্যাপার৷‌ এ সব ক্ষেত্রে দরকার বুকের পাটা যা কিনা গোটা দল মেলে ধরে দেখিয়ে দিয়েছে৷‌’’



‘‘দলে কোনও ধরনের নেগেটিভ আলোচনা বরদাস্ত করছি না৷‌ সমস্যা থাকবেই৷‌ ইউ হ্যাভ টু ফেস দ্যাট৷‌ তৈরিই করতে হবে ওই প্রতিকূল পরিস্হিতিকে জয় করার জন্য৷‌ মানসিক দিক থেকে নিজেদের প্রস্তুত হওয়ার পালা৷‌ বিশ্বাস করি, মন যদি ফুরফুরে থাকে, ইউ ক্যান গো আ লং ওয়ে৷‌’’





পার্থে তখন সকাল ৮টা ৪০৷‌ আমাদের কলকাতায় তখন বাজে সকাল ৬টা ১০৷‌ ছোট্ট এস এম এস, কেমন আছেন? আমাদের নিয়ে উৎসাহ কেমন? প্রেরক রবি শাস্ত্রী৷‌ টিম ইন্ডিয়ার ডিরেক্টর৷‌ বিশ্বকাপের শুরু থেকেই যিনি ধোনিদের এক ও অদ্বিতীয় বস৷‌ আসমুদ্র হিমাচল যে উত্তেজিত হয়ে রয়েছে, সে খবর জানালাম৷‌ দিল্লিতে আমআদমির সরকার কেমন চলছে? বোর্ডের আসন্ন নির্বাচন, এ সব টুকরো-টাকরা প্রসঙ্গকে ছুঁয়ে তিনি যখন টেলিফোন রেখে দেওয়ার কথা ভাবছেন, তখনই ‘আজকাল’ তাঁকে যে প্রশ্নমালার সামনে দাঁড় করাল এবং তিনি উত্তর দিয়ে গেলেন, তা নিম্নরূপ: | মহম্মদ সামির চোটটা কেমন? সিরিয়াস নাকি?

রবি শাস্ত্রী: খুব সিরিয়াস নয়৷‌ পরের দিকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া হবে৷‌ মনে হয় না, শনিবার সংযুক্ত আরব আমিরশাহির ম্যাচে খেলতে পারবে৷‌ আমরাও ঝুঁকি নিতে চাইছি না৷‌ সামনে প্রচুর খেলা রয়েছে যে৷‌

· তা হলে কি স্টুয়ার্ট বিনি? নাকি ভুবনেশ্বর কুমার?

শাস্ত্রী: পার্থে এসেছি বটে৷‌ কিন্তু ওয়াকা মাঠে অনুশীলন করতে যাব আজ প্রথম৷‌ মাঠটা না দেখলে বলা কঠিন৷‌

· ভুবনেশ্বর কুমার কি সম্পূর্ণ সুস্হ? আমরা তো জানি তাঁকে বয়ে বেড়ানো হচ্ছে, হয়ত তিনি সুস্হ হয়ে উঠছেন ক্রমশ৷‌ এখনও ম্যাচ ফিট নন৷‌ যেহেতু শনিবার বিপক্ষে থাকবে সংযুক্ত আরব আমিরশাহি, সেই যুক্তিতে স্টুয়ার্ট বিনিকে দেখে নেওয়া যেতেই পারে...৷‌

শাস্ত্রী: মাঠে না গিয়ে, এরকম একটা সিদ্ধাম্ত নেওয়া কি ঠিক হবে? তবে হ্যাঁ, যদি দেখে নিতেই হয়, তা হলে রিজার্ভ বেঞ্চের দিকেই তাকানো উচিত, তাই না?

· হঠাৎ, টিম এভাবে ঘুরে দাঁড়াল কীভাবে?

শাস্ত্রী: চিরকাল কি কোনও ব্যক্তি বা দল পড়ে পড়ে মার খায়? হুইল অফ ফরচুন ঘুরতেই থাকে৷‌ এবং, এ মুহূর্তে ওই চাকা আমাদের অনুকূলে যেই ঘুরতে শুরু করেছে, সবাই মিলে ওই চাকাটাকে জাপটে ধরে রেখেছি৷‌ দেখা যাক, কতদিন এই চাকাকে শিবিরের মধ্যে রেখে দেওয়া যায়৷‌

· সে কী, গোটা ভারত তো ধরে নিয়েছে, আপনারাই চ্যাম্পিয়ন হবেন...৷‌

শাস্ত্রী: চ্যাম্পিয়ন? দিল্লি আভি দূর হ্যায়৷‌ যেটা গুরুত্বপূর্ণ, তা হল, দ্য টিম ইজ প্লেয়িং গুড ব্র্যান্ড অফ ক্রিকেট৷‌ ভয় পাচ্ছে না কোনও বিপক্ষ দলকে৷‌ কোনও বড় নামকে৷‌ প্রচুর খাটাখাটনি করছে৷‌ পারফে’ প্র্যাকটিস বলতে যা বোঝায়, আমাদের ক্রিকেটাররা সেদিকেই মন দিয়েছে৷‌ আর আমরা, ব্যাক রুমে যারা থাকি, তারা চাইছি উপযুক্ত আবহ তৈরি করে ওদের সামনে রাস্তাটা মসৃণ করে দিতে৷‌ সম্ভাব্য সমস্ত সমস্যার তালিকা তৈরি করা হচ্ছে প্রতিদিন, এবং কালবিলম্ব না করে ওই চিহ্নিত হওয়া সমস্যাগুলো সমাধানের জন্য ঝাঁপাতে হচ্ছে সাপোর্ট স্টাফদের৷‌ জেতা-হারা পরের ব্যাপার৷‌ উদ্যোগ, আম্তরিকতা, নিষ্ঠা, এ সব দিকে নজর দিলে ভাল ফল পাওয়া যায় বলেই জেনে এসেছি৷‌ ঠিক সেদিকেই নজর রেখেছি৷‌

· কোনও বিশেষ মুহূর্ত, যাতে, আপনি ব্যক্তিগতভাবে প্রবল আলোড়িত হয়ে আছেন?

শাস্ত্রী: সে মুহূর্ত আসেনি তো এখনও৷‌ আমি বলতেও চাইছি না৷‌ বড্ড তাড়াতাড়ি এ প্রশ্ন করে ফেললেন৷‌ তবে হ্যাঁ, দক্ষিণ আফ্রিকাকে অত বড় ব্যবধানে হারানোটা একটা ব্যাপার বটে৷‌ এর আগে, ভারতের কোনও দল, দক্ষিণ আফ্রিকাকে এভাবে কান ধরে ওঠ-বস করিয়ে, বোধহয় হারাতে পারেনি৷‌ প্রায় ৮০ হাজার দর্শকের সামনে মেলবোর্নের মতো বড় মাঠে ভাল খেলাটা একটা ব্যাপার৷‌ এ সব ক্ষেত্রে দরকার বুকের পাটা যা কিনা গোটা দল মেলে ধরে দেখিয়ে দিয়েছে, ইয়েস উই ক্যান৷‌

· পাকিস্তান ম্যাচ?

শাস্ত্রী: ওটাও একটা ক্লিনিকাল ভিকট্রি৷‌ কিন্তু দল হিসেবে পাকিস্তানের তুলনায়, দক্ষিণ আফ্রিকার ওজন যে বেশি, এটা তো মানবেন? যদি মেনে নেন, তা হলে আর আমি বিস্তারিত ব্যাখ্যায় যেতে চাইছি না৷‌ স্টেইন, মরকেলদের ফ্রন্ট ফুটে ছয় মারার দৃশ্য, আমার পক্ষে ভোলা সম্ভব নয়৷‌ ফ্যাবুলাস ভিকট্রি৷‌ টাচ উড, এই ছন্দটা যেন আমরা ধরে রাখতে পারি৷‌

· সাত দিন অম্তর অম্তর ম্যাচ৷‌ দর্শক এলে যাচ্ছে৷‌ সমর্থকরা ক্লাম্ত হয়ে পড়ছে৷‌ আপনাদের কোনও অসুবিধা?

শাস্ত্রী: দলে কোনও ধরনের নেগেটিভ আলোচনা বরদাস্ত করছি না৷‌ সমস্যা থাকবেই৷‌ ইউ হ্যাভ টু ফেস দ্যাট৷‌ তৈরিই করতে হবে ওই প্রতিকূল পরিস্হিতিকে জয় করার জন্য৷‌ ক্রমাগত ক্রিকেট খেলে আমরা ক্লাম্ত৷‌ এজন্য নিজেদের এনার্জি হিসেব-টিসেব কষে খরচ করছি৷‌ ফিজিকাল ফিটনেস, মেন্টাল ফিটনেস-এর দিকে নজর দিতে হচ্ছে দলকে সবচেয়ে বেশি৷‌ আর চলছে ভিজুয়ালাইজেশনের পালা৷‌ কী কী করতে হবে, কার কী দায়িত্ব? কেমনভাবে তা মোকাবিলা করতে হবে, এটা নিয়ে চলছে আলোচনা এবং মানসিক দিক থেকে নিজেদের প্রস্তুত হওয়ার পালা৷‌ বিশ্বাস করি, মন যদি ফুরফুরে থাকে, ইউ ক্যান গো আ লং ওয়ে৷‌ দেখা যাক৷‌

· কোয়ার্টার ফাইনালে কার বিপক্ষে খেলতে হতে পারে? অনেকেই মনে করছেন, অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে খেলতে না হলেই মঙ্গল৷‌

শাস্ত্রী: পালিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়া সম্ভব নয়৷‌ ইউ হ্যাভ টু ফেস ইট৷‌ দল যদি এই ছন্দে খেলতে পারে, তা হলে বিপক্ষ নিয়ে ভাবনা-চিম্তা করতে হয় না৷‌ আমরা অবশ্য টিম মিটিংয়ে নিজেদের শক্তির পূর্ণ সদ্ব্যবহার করার দিকেই মন দিচ্ছি৷‌ কী হবে ভেবে? যদি সব ম্যাচ জেতার লক্ষ্য থাকে, তা হলে পরবর্তী রাউন্ডে কার বিরুদ্ধে খেলতে হবে, এ চিম্তা করতে হয় না৷‌ করছিও না৷‌ জেতা যে একটি অভ্যাস৷‌ এই অভ্যাসে থাকতে পারলে, বিন্দাস থাকা যায়৷‌ সেই চেষ্টাতেই আছি আমরা৷‌







kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited