Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৭ চৈত্র ১৪২১ বুধবার ১ এপ্রিল ২০১৫
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
বাবরি: আদবানিদের নোটিস সুপ্রিম কোর্টের--রাজীব চক্রবর্তী ।। সেবি-র নিষেধ উড়িয়ে টাকা তুলেছে রোজভ্যালি--সোমনাথ মণ্ডল ।। রাজনাথের রাজনৈতিক সফর! প্রতিবাদ মমতার ।। আলুচাষের বিপর্যয়, আর্থিক সঙ্কটে তল্লাটের কৃষি সমবায় ।। ওরা স্বস্তিতে নেই বলেই শক্তি প্রয়োগ করছে: সূর্য ।। খাগড়াগড় নিয়ে মমতাকে সিদ্ধার্থনাথের ১০ প্রশ্ন ।। সন্ত্রাস দমনের নামে আনা মোদির রাক্ষুসে বিল ফের পাস গুজরাটে ।। নতুন দল? যোগেন্দ্র-প্রশাম্ত বৈঠক ডেকেছেন ১৪ তারিখ ।। চীনে ঝাড়ুতে কলকাতা সাফ!--তাপস গঙ্গোপাধ্যায় ।। পুরভোটে তৃণমূলকে সমর্থন সিদ্দিকুল্লার--দীপঙ্কর নন্দী ।। ওপারেও পুরভোট ।। ইয়েমেনে আটকে আছে ৪০ বাঙালি
খেলা

বোলাররা হাঁসফাঁস করছে, নিয়ম নিয়ে ভাবতে হবে

অ্যাশেজে বাদ ম্যা‘ওয়েল, ফকনার

অবসর ভেট্টরির, শেষলগ্নেও পুঁজি হয়ে রইল বিনয়!

সেরা ম্যাচ বেঙ্গালুরু ও লাজং: বলবম্ত

এলকো ভুলটা বুঝতে পারছেন

কোহলিদের ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলাতে হবে

শুধু ভারতকেই ভয় পায় অস্ট্রেলিয়া: শাস্ত্রী

অনেক বদল এসেছে: অশ্বিন

ব্যাট ট্যাম্পারিং নয় কেন?

দেবজিৎকেই খেলানো উচিত: শিলটন

আই সি সি-র ভেতরে কী চলছে, ফাঁস করে দেব

আই পি এলই ‘ফেরার মঞ্চ’ যুবি, জাহিরের

খেলতে চাননি ডি’ভিলিয়ার্স?

কোহলি ৪, ধাওয়ান ৬

সম্বরণরা পাবেন ১ লাখ, ব্লেজার

সেমিফাইনালে বিদায় হারিকার

বন্ধ ৪০ মিনিট!

তিনে উঠে এল বেঙ্গালুরু

জয়ী নৈহাটি

বোলাররা হাঁসফাঁস করছে, নিয়ম নিয়ে ভাবতে হবে

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

বিশ্বকাপ শেষ৷‌ কেমন হল ফাইনাল? কেমন হল প্রতিযোগিতা? কারা মনে দাগ কাটলেন? কোথায় থাকল খামতি? কোথায় আরও উন্নতি প্রয়োজন? আই সি সি-র ওয়েবসাইটে হাজির স্যর ভিভিয়ান রিচার্ডস৷‌



আমার মতো অনেকেই বিশ্বকাপ শুরুর আগে অস্ট্রেলিয়া আর নিউজিল্যান্ডকেই ফেবারিট বেছেছিল৷‌ গত ছয় সপ্তাহে দুটো দলই খুব ভাল ক্রিকেট খেলেছে৷‌ সেই জায়গা থেকে দুটো দলের ফাইনাল খেলা স্বপ্নের মতো৷‌

অস্ট্রেলিয়া যেভাবে দাপটের সঙ্গে ফাইনাল জিতল, তাতে কোনও সন্দেহ নেই, যোগ্য দল হিসেবেই ওরা বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছে৷‌ এই নিয়ে পাঁচবার৷‌ অস্ট্রেলিয়ার যে এর আগে বহুবার ফাইনাল খেলার অভিজ্ঞতা আছে, সেটা রবিবারের ম্যাচেই বোঝা গেল৷‌ উল্টোদিক থেকে বললে, ঠিক এটারই অভিজ্ঞতা ছিল না নিউজিল্যান্ডের৷‌ ম্যাচের তফাত গড়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে এটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিল৷‌ নিউজিল্যান্ড যে এই প্রথম বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলছে, সেটা বোঝা গেল প্রতি মুহূর্তে৷‌

আমি ম্যাকালামের ভক্ত হয়ে গেছি৷‌ যখন পুরো ছন্দে থাকে, ওর ব্যাটিং দেখার থেকে ভাল আর কিছু হতে পারে না৷‌ কিন্তু মাঝে মাঝে খাতা-পেন নিয়ে বসে মাথা ঘামাতে হয়৷‌ দলের প্রয়োজন এবং পরিস্হিতি অনুযায়ী পরিকল্পনা বদলাতে হয়৷‌ কিন্তু ওই তিনটে বলে যেভাবে ব্যাট চালাল, ভয়াবহ৷‌ লাগাতেই পারল না ব্যাটে৷‌ ৫০ ওভারের ম্যাচ৷‌ বড় ম্যাচ৷‌ ফাইনাল বলে কথা৷‌ প্ল্যান এ থাকার দরকার৷‌ একই সঙ্গে প্ল্যান বি-ও৷‌ কিন্তু ম্যাকালাম যেভাবে ব্যাট চালাল, মনে হল না দ্বিতীয় কোনও পরিকল্পনা ছিল বলে৷‌ হয় বড় আসরের চাপে পড়ে গিয়েছিল, না হয় ঠিকই করে রেখেছিল, যা আসবে, তাই মারব৷‌ তাই প্রথম বল থেকেই আক্রমণের রাস্তা বেছে নিয়েছিল৷‌ কে বল করছে, সেদিকে আর তাকায়নি৷‌ বোলারকে কোনও সমীহ করেনি৷‌

মিচেল স্টার্ক এবং অস্ট্রেলিয়ার অন্য বোলাররা অসাধারণ বল করেছে৷‌ একেবারে প্রথম বল থেকে যেভাবে আক্রমণ করল, সেটা দারুণ লেগেছে আমার৷‌ একটা পরিকল্পনা নিয়ে ওরা মাঠে নেমেছিল৷‌ সেটা একেবারে নিখুঁতভাবে করে দেখাল৷‌ অনেকে বলছেন, এটা একটা একপেশে ম্যাচ৷‌ সেটা কিন্তু সম্ভব হয়েছে, অস্ট্রেলিয়া নিজেদের পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলতে পেরেছে বলেই৷‌ ওদের কৃতিত্ব দিতেই হবে৷‌

১৮৩ রান নিয়ে লড়া এখনকার দিনে কার্যত অসম্ভব৷‌ যখন গ্রান্ট ইলিয়ট আর রস টেলরের জুটিটা এগোচ্ছিল, একমাত্র তখনই নিউজিল্যান্ডের কিছুটা আশা ছিল৷‌ টপ-অর্ডারে ধস নামার পর খাদের কিনারা থেকে দলকে টেনে তোলার সবরকম চেষ্টা ওরা করেছিল৷‌ আড়াইশোর ওপর রান তুলতে পারলে হয়ত লড়াই হত৷‌ কিন্তু দ্রুত উইকেট পড়ে যাওয়ায় পুরো দায়িত্বটা এসে পড়ল বিগ-হিটারদের ঘাড়ে৷‌ এখানে একটা কথা বলব, কোরি অ্যান্ডারসন কিন্তু এবারের বিশ্বকাপে ঠিক এর পরিচিত মেজাজে খেলতে পারেনি৷‌ ও সত্যি কতটা বিপজ্জনক, সেটা বোঝানোর এটা বিরাট সুযোগ ছিল৷‌ কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার বোলারদের ঝড়ে পারল না৷‌

সব মিলিয়ে দারুণ একটা বিশ্বকাপ দেখলাম৷‌ মনে থেকে যাবে৷‌ ব্যক্তিগত পারফরমেন্সে মার্টিন গাপটিল আর ক্রিস গেইল আমার সেরা বাছাই৷‌ একটাই কারণ, একদিনের ম্যাচে দ্বিশতরান করা৷‌ বিশ্বকাপে এবারই প্রথম দ্বিশতরান হল৷‌ আর ঠিক এটাই প্রশ্ন তুলে দিচ্ছে, এখন আদৌ ব্যাট-বলের ভারসাম্য ক্রিকেটে আছে কি? ক্রিকেট চালানোর দায়িত্বে যাঁরা আছেন, তাঁদের এটা নিয়ে ভাবা উচিত৷‌ ভাবছি বড় ব্যাট আর ছোট মাঠ হলে কী হবে৷‌ গোটা বিশ্বকাপেই দেখলাম মিচেল স্টার্ক আর ট্রেন্ট বোল্ট ছাড়া প্রায় সব বোলারই এই নতুন নিয়মে হাঁসফাঁস করল৷‌

মাইকেল ক্লার্ক এবারের বিশ্বকাপে অন্যতম সেরা ক্যাপ্টেন৷‌ হয়ত সেরাই বলা যায়৷‌ খেলতে পারবে কিনা, তা নিয়েই সংশয় ছিল৷‌ কিন্তু তারপর যেভাবে দলকে নেতৃত্ব দিল, অনবদ্য৷‌

দলগত পারফরমেন্সের দিক দিয়ে বলতে পারি, নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে দক্ষিণ আফ্রিকা অসাধারণ খেলল৷‌ নিজেদের উজাড় করে দিয়েছিল৷‌ ডি’ভিলিয়ার্সের জন্য কষ্ট হচ্ছে৷‌ দুর্দাম্ত ক্রিকেটার৷‌ মর্নি মর্কেল আর ডেল স্টেনকেও কাঁদতে দেখলাম৷‌ কী অসম্ভব ভালবাসা দিয়ে ওরা দেশের হয়ে খেলে! কতটা মরিয়া ছিল এবার বিশ্বকাপ জেতার জন্য!

শেষে আরও একবার বলব, দারুণ প্রতিযোগিতা হল৷‌ সেরা দুটো দল ফাইনাল খেলল৷‌ শ্রেষ্ঠ দল চ্যাম্পিয়ন হল৷‌ নেতিবাচক যদি কিছু থেকে থাকে, সেটা হল প্রতিযোগিতার ব্যাপ্তি৷‌ আমি কিছুতেই বুঝতে পারছি না, বিশ্বকাপ ক্রিকেট এতদিন ধরে কেন চলে৷‌ সূচিটাও ঠিকঠাক হয়নি৷‌ কোনও কোনও দল মাঝে দীর্ঘ বিশ্রাম পেয়েছে, কোনও কোনও দল পায়নি৷‌ এই ধরনের প্রতিযোগিতার একটা গতি থাকে৷‌ কিন্তু এটা তার পরিপম্হী৷‌ দলের পারফরমেন্সের ওপরেও এর প্রভাব পড়ে৷‌ এটা নিয়েও হয়ত আয়োজকরা এবার ভাববেন৷‌





kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited