Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৩ ভাদ্র ১৪২১ শনিবার ৩০ আগস্ট ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  সংস্কৃতি  ঘরোয়া  পর্দা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
বি জে পি-কে রুখতে দরকার বামেদের সঙ্গে জোট: মমতা ।। মুখ্যমন্ত্রী: বাংলার প্রকল্পই দিল্লি নাম বদলে চালাচ্ছে--রিনা ভট্টাচার্য ।। সুদীপ্তর সুদীপার খোঁজে সি বি আই--সব্যসাচী সরকার, অগ্নি পান্ডে ।। দরকারে হিমঘরের আলু বের করে বিক্রি ।। নগ্ন ছবি তুলে ব্ল্যাকমেল--নির্যাতিতা ছাত্রীকে নিয়ে বিশ্বভারতী ছাড়লেন বাবা ।। অর্থতত্ত্বের মালিককে কলকাতায় এনে সোনা-ব্যবসায়ীদের জেরা --বরেন্দ্রকৃষ্ণ ধল ।। চলছে চূড়াম্ত প্রস্তুতি, ১ সেপ্টেম্বরের মহামিছিলের অবয়ব আরও বাড়বে! ।। পুঁজির খোঁজে শিল্পপতিদের নিয়ে আজ শুরু মোদির জাপান সফর ।। ঋতব্রতর নেতৃত্বে সুনিয়ায় বাম ছাত্র-যুব প্রতিনিধিরা ।। বসিরহাট দক্ষিণে তৃণমূল হারলে পুরবোর্ড থেকে সরে যাবে: মুকুল ।। সাইনার বিদায়ের দিনে উজ্জ্বল সিন্ধু ।। হকার পুনর্বাসন রিপোর্ট জমা মহানাগরিককে
খেলা

অর্ণব ‘ফিট’, ডুডুর অবস্হা বুঝে ব্যবস্হা

১৫০তম ডার্বি, কাল ফের সেই ম্যাচ

আঙুলে চোট, সিরিজ থেকে ছিটকে গেলেন রোহিত

বাগান জুড়ে ফুরফুরে মেজাজ

বোয়া, বার্তোসের মধ্যে আকর্ষণের ছিটেফোঁটাও নেই

সাইনার বিদায়ের দিনে উজ্জ্বল সিন্ধু

জিতলেই ইস্টবেঙ্গল ছন্দে: মর্গান

কোহলি মাথা খাটাও: বয়কট

বড় ম্যাচে ড্র চান ফুজা

শাম্ত থাকুন

স্হান, অর্থ নিয়ে আপত্তি

ম্যাচে মন দিতে বললেন নীতু

পেজ, বোপান্নারা এগোলেন

নিরাশ করব না: ডি মারিয়া

জাতীয় দলে ফেরার আশায় ইরফান পাঠান

শহরে বসল ক্লডিয়াসের মূর্তি

ড্র! ক্ষুব্ধ সুব্রত

তরুণদের নিয়ে দল দেল বস্কের

দেল পিয়েরো বললেন, ঠোক দেঙ্গে

হ্যাটট্রিক উতসেয়ার, তবু বড় হার

৩-০ গোলে জিতলেন সুনীলরা

সুপ্রিম কোর্টে রিপোর্ট জমা দিল মুদগাল কমিটি

মান্নার জন্মদিনে

অর্ণব ‘ফিট’, ডুডুর অবস্হা বুঝে ব্যবস্হা

জিতলে ১ লাখ

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

মুনাল চট্টোপাধ্যায়

গোটা বিশ্বজুড়ে এখন চলছে ‘আইস বাকেট চ্যালেঞ্জ’৷‌ পুনে এফ সি ভারতের প্রথম ক্লাব হিসেবে ইতিমধ্যেই এই চ্যালেঞ্জ করে ফেলেছে৷‌ এবার পালা ইস্টবেঙ্গলের৷‌ আগে আজ লাল-হলুদে হচ্ছে ‘আইস বাকেট চ্যালেঞ্জ’৷‌ তাহলে কি ডার্বির আগে ইস্টবেঙ্গলে ‘ঠান্ডা ঠান্ডা কুল কুল’? পরিবেশটা তেমনই৷‌ ইতিমধ্যেই কলকাতা লিগে এক ম্যাচ হেরে আর এক ম্যাচ ড্র করে ৫ পয়েন্ট খুইয়েছে ইস্টবেঙ্গল৷‌ খেলাতেও ছন্দ খুঁজে বেড়াচ্ছে আর্মান্দো কোলাসোর দল৷‌ তবু ডার্বি ম্যাচের আগে এমন বিন্দাস মেজাজে আছেন কীভাবে লাল-হলুদের ফুটবলাররা, এটাই রহস্য৷‌ শুক্রবার অনুশীলনের পর ইস্টবেঙ্গল ফুটবলাররা অধিকাংশই চলে গিয়েছিলেন দ্রুত কোচ আর্মান্দোর সঙ্গে আলোচনা সেরে৷‌ গুরবিন্দার ও সুখবিন্দার তখনও স্টেডিয়ামে৷‌ হঠাৎই দেখলাম, যে মিনিডোরে ইস্টবেঙ্গলের মালপত্র আসে, তার চালকের আসনে গুরবিন্দার৷‌ পাশেই সতীর্থর কাণ্ড দেখে হাসছেন সুখবিন্দার স্কুটির ওপর বসে৷‌ কিছুটা মিনিডোর চালিয়ে নেমে পড়লেন গুরি৷‌ জানতে চাইলাম, ডার্বি ম্যাচের পর এটা আবার কোন নতুন ভূমিকা? গুরবিন্দারের মজারু জবাব, ‘ডার্বি অনেক খেলেছি৷‌ ও নিয়ে ভাবছি না৷‌ বরং খেলা ছেড়ে দেওয়ার পর কানাডায় গিয়ে ১৬ চাকার ট্রাক চালাব৷‌ তার প্র্যাকটিস করছি৷‌’ গুরবিন্দারের এই রসিক মেজাজেই বুঝতে অসুবিধা নেই, কলকাতা লিগের ডার্বির আগে কতটা চাপমুক্ত লাল-হলুদ শিবির৷‌ আগের ম্যাচে গোড়ালিতে চোট পাওয়ায় অর্ণবের ডার্বি খেলা নিয়ে সংশয় ছিল৷‌ কিন্তু শুক্রবার যুবভারতীতে অনুশীলন না করলেও অর্ণব বলেন, ‘আমার চোটে কোনও ব্যথা নেই এখন৷‌ কাল প্র্যাকটিস করব৷‌ ডার্বিতে খেলবও৷‌’ কোচ আর্মান্দো অবশ্য আই এফ এ দপ্তরে যৌথ সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, ‘অর্ণবের সঙ্গে কথা বলেই সিদ্ধাম্ত নেব খেলানোর ব্যাপারে৷‌’ প্রশ্ন উঠেছিল ডুডুর খেলার বিষয় নিয়েও৷‌ তাতে আর্মান্দোর প্রতিক্রিয়া, ‘ওকে আগে কাল প্র্যাকটিসে দেখি৷‌ কথা বলি৷‌ দলের অধিনায়ক ও অন্য ফুটবলারদের মত নিই৷‌ তারপর ভাবব ডুডুকে খেলাব কিনা৷‌’ ডিফেন্স, মাঝমাঠ নিয়ে আর্মান্দো বলেন, সমস্যা তো কিছু আছেই৷‌ সেগুলো ঠিক করার চেষ্টা চলছে৷‌ রাতারাতি ফর্মেশন বদলানো সম্ভব নয়৷‌ আমি ৪-৪-২ ছকে খেলাতে পছন্দ করি৷‌ তবে প্রয়োজনে ৪-৫-১ বা ৪-১-৪-১ ছকেও খেলতে পারে দল৷‌ এদিকে, শুধু ইস্টবেঙ্গলের পাঞ্জাবি স্টপার গুরবিন্দারই নন, অধিনায়ক খাবড়া, সৌমিক, দীপক, অর্ণবরাও ডার্বি ম্যাচের ভাবনায় এতটুকু কুঁকড়ে নেই৷‌ বাড়তি চেগেও নেই, আবার মোহনবাগানকে গুরুত্ব দিচ্ছেন না এমন নয়৷‌ নষ্ট করা পয়েন্ট নিয়েও ভাবতে নারাজ কেউ৷‌ ১৫০তম ডার্বি ম্যাচে নেতৃত্ব দেবেন বলে বেশ গর্বিত খাবড়া৷‌ তাঁর সাফ কথা, ‘আগে দল কেমন খেলেছে, কত পয়েন্ট নষ্ট হয়েছে, এসব ডার্বি ম্যাচে প্রভাব ফেলে না৷‌ আসল হল ডার্বির দিন আমরা কেমন খেলছি সেটা৷‌ লক্ষ্য থাকবে জেতা৷‌ ভুল-ত্রুটি সংশোধনের চেষ্টা করছি৷‌ মোহনবাগান কঠিন প্রতিপক্ষ৷‌ আমরা তৈরি৷‌ মোহনবাগানের তুলনায় ইস্টবেঙ্গলে ডার্বি খেলা ফুটবলারের সংখ্যা বেশি৷‌ এটা আমাদের বাড়তি সুবিধা দিতেই পারে৷‌’ মাঝমাঠে বার্তোস না আক্রমণে রন্টির পাশে ডুডু, কাকে চাইছেন? কোনও টিপস দেবেন দুজনকে ডার্বি ম্যাচ নিয়ে? খাবড়ার জবাব, ‘কে খেলবে, সেটা ঠিক করবেন কোচ আর্মান্দো৷‌ বার্তোস আর ডুডুকে একটা কথাই বলব, স্বাভাবিক থেকে সেরা দিতে মাঠে নেমে৷‌’ বার্তোস ডার্বি ম্যাচের উন্মাদনায় বেশ মজেছেন৷‌ বলেন, ‘ডার্বির ইতিহাস আমার জানা৷‌ তবে এর আগে মেক্সিকোতে আজটেক স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ারের ম্যাচে ১ লাখ ১০ হাজার লোকের সামনে খেলেছি৷‌ তাই দর্শক কোনও সমস্যা নয়৷‌ আপাতত নতুন পরিবেশ ও আবহাওয়ার সঙ্গে মানানোই প্রধান কাজ৷‌ সেই সঙ্গে ফিটনেস বাড়ানো৷‌ আমি রাইট হাফ বা অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার হিসেবেই খেলতে পছন্দ করি৷‌ এখানে দু’ম্যাচে খেলেছি ভিন্ন পজিশনে৷‌ দেখি ডার্বিতে কোচ কীভাবে ব্যবহার করেন৷‌ খেললে ১৫০তম ডার্বিতে দাগ কাটতে চেষ্টা করব৷‌’ ইস্টবেঙ্গল জার্সি গায়ে আবার ডার্বি ম্যাচ খেলবেন ভেবেই উত্তেজিত দীপক মণ্ডল৷‌ বলেন, ‘কোনওদিনই ডার্বি ম্যাচে চাপে পড়িনি৷‌ বরং এবার অনেকদিন পর ডার্বিতে খেলব বলে বেশি করে ভাল খেলার খিদে চাগাড় দিয়েছে৷‌ একদল নিয়ে খেলার সুবিধা ইস্টবেঙ্গলের আছে৷‌ তবে মোহনবাগানে নতুন, নবীন ফুটবলারদের মধ্যেও একটা বাড়তি তাগিদ থাকবে৷‌ সে ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে৷‌’ ডিফেন্সের আর এক স্তম্ভ সৌমিক দে বলেন, ‘মোহনবাগান কোচ সুভাষ ভৌমিকের ডার্বি অভিজ্ঞতা অনেক বেশি৷‌ উনি আমাদের সবাইকে চেনেন৷‌ তাই দু’দল আগে যা-ই খেলুক না কেন, এই লড়াই জমবে৷‌’ ফুটবলারদের চাগাতে ফুটবল সচিব সম্তোষ ভট্টাচার্যর ঘোষণা, জিতলে এক লাখ৷‌ টাকার প্রলোভন নয়, সম্মানের জন্যই মর্যাদার লড়াই জিততে মরিয়া মেহতাবরা৷‌


kolkata || bangla || bharat || editorial || post editorial || khela || sangskriti ||
ghoroa || tv/cinema || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited