Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ৭ কার্তিক ১৪২১ শনিবার ২৫ অক্টোবার ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  সংস্কৃতি  ঘরোয়া  পর্দা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
বোমা উদ্ধার করতে গিয়ে আক্রাম্ত পুলিস--পাড়ুই থানার ও সি-র মাথা লক্ষ্য করে বোমা ।। খাগড়াগড়, বেলডাঙায় সরেজমিনে এন আই এ-র ডি জি--পলাতকদের ধরতে বিশেষ স্ট্র্যাটেজি ।। সীমাম্তে ১০০০ অননুমোদনহীন মাদ্রাসা ।। মাদ্রাসা নিয়ে অপপ্রচার বন্ধের দাবি ।। কালো টাকার মালিকদের আড়াল করছেন! জেটলিকে জেঠমালানি ।। সোমবার মহারাষ্ট্রে নেতা নির্বাচন করবে বি জে পি ।। সেন কমিশন কেন বন্ধ হল?--রাজ্যের রিপোর্ট চান বিমান ।। রাজ্যে গ্রেপ্তার ১০৭৯ জন--বেহালায় মার খেলেন কনস্টেবল ।। আজ রবীন্দ্র সদন চত্বরে শুরু বাংলাদেশ বইমেলা ।। ৩০ বছর পূর্তিতে বিশেষ সাফাই অভিযান মেট্রো রেলে ।। পার্থর নিন্দা ।। রাজ্যে সদলে নিরাপত্তা কর্তারা
খেলা

‘পিরেসই মারতে গিয়েছিলেন’! কোচের পাশে দল

আই এস এলের মাধ্যমেই ভারতকে বিশ্ব চিনবে ফুটবলের দেশ হিসেবেও: পেন

সৌরভ নাছোড়বান্দা ছিল: লক্ষ্মণ

আই লিগে খেলতে মরিয়া চোপড়া

সুয়ারেজ? সমস্যা নেই: আনসেলোত্তি

লোবোর গোলটা অসাধারণ: সৌরভ

এল ক্লাসিকো! আজ সেই ম্যাচ

কোহলির পাশে দাঁড়ালেন যুবরাজ, তবে ধোনিকেই নেতৃত্বে চান

নেইমারই নেতা, দলকে শৃঙ্খলায় বাঁধছেন দুঙ্গা

এবার ৬২! মনোজ ড্রইং বোর্ডে ফিরতে বললেন কয়েকজনকে

বাংলায় ফিরতে চান না তৃষা

মুম্বই থেকে জয় ছিনিয়ে নিল জনের দল

ঋদ্ধি শ্রীলঙ্কা সিরিজে অনিশ্চিত

মহমেডান খেলায় ফিরল!

গম্ভীরের ১৬৭

আমলায় জয়

বাংলা দলে ফিরলেন মনোজরা

ওয়ার্নার ১৩৩

‘পিরেসই মারতে গিয়েছিলেন’! কোচের পাশে দল

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

মুনাল চট্টোপাধ্যায়, অগ্নি পান্ডে

গোয়ার মাঠে গোয়া এফ সি-কে হারিয়েও স্বস্তিতে নেই অ্যাটলেটিকো দি কলকাতা৷‌ কারণ গোয়ার বিরুদ্ধে খেলার সময় ও ম্যাচের পরে প্রতিপক্ষ দলের ফুটবলারের সঙ্গে ঝামেলায় জড়ানোয় অ্যাটলেটিকো দি কলকাতার কোচ হাবাস শাস্তির মুখে পড়তে পারেন৷‌ একই সঙ্গে আই এস এলের নানা নিয়ম ভাঙায় জরিমানা হতে পারে সৌরভ গাঙ্গুলির দলের৷‌ প্রথমে ম্যাচ শেষে সাংবাদিক সম্মেলনে আসতে দেরি করেছে অ্যাটলেটিকো৷‌ শুরুতে পাঠায়নি কোনও কোচকে৷‌ পরে লাল কার্ড দেখা গোলকিপার কোচ বখতাওয়ারকে পাঠিয়ে ম্যাচ কমিশনারের রোষের মুখে পড়ে৷‌ শেষ পর্যম্ত সহকারী কোচ ও ম্যানেজার রজত গিয়ে পরিস্হিতি সামাল দেন৷‌ তার ওপর ডেনজিলের হাঁটুর চোট, বিশ্বজিতের মাথার ক্ষত, লুইস গার্সিয়ার হ্যামস্ট্রিং সমস্যার পাশাপাশি অ্যাটলেটিকো দি কলকাতার সামনে ক্লাম্তি কাটানোর চিম্তা কেরালা ব্লাস্টার্সের মোকাবিলায়৷‌ ডেনজিলের চোট কতটা গুরুতর, সেটা এম আর আই রিপোর্ট পেলেই জানা যাবে৷‌ বিশ্বজিৎ সাহার মাথায় পাঁচটি সেলাই পড়েছে৷‌ গার্সিয়ার চোটের উন্নতি হলেও রবিবারের ম্যাচে তাঁকে খেলানোর ঝুঁকি নেবেন না হাবাস৷‌ তবে গোয়ার মাঠে যে ঝামেলা হয়েছে, তার প্রভাব অ্যাটলেটিকো শিবিরে পড়বে বলে মনে করছেন না দলের কেউই৷‌ বরং হাবেভাবে এটাই সকলে বুঝিয়েছেন, ফুটবল মাঠে এমন হয়েই থাকে৷‌ দিনের শেষে রেজাল্টটাই আসল৷‌ আর গোয়ার ফুটবলাররাও ধোয়া তুলসীপাতা নন৷‌ বরং গোয়াই প্রথম ঝামেলা শুরু করে৷‌ তাই ব্যবস্হা নিলে তাদের বিরুদ্ধেই নেওয়া উচিত৷‌ হাবাসের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধাম্ত অ্যাটলেটিকো শিবির নিয়েই ফেলেছে এই ইস্যুতে৷‌ ম্যানেজার রজত ঘোষদস্তিদার তো বলেই দিলেন, ‘আমরাই যদি মারামারি করব, তা হলে পিরেস বা গোয়া ফুটবলাররা আমাদের সাজঘরের সামনে কী করছিল?’ তবে গোয়া শিবির প্রচণ্ড খেপে আছে অ্যাটলেটিকো কোচ হাবাসের আচরণে৷‌ আই এস এল সংগঠক কমিটির কাছে হাবাসের নাম জড়িয়ে রবার্ট পিরেসকে ঘুসি মারার গুরুতর অভিযোগ করেছে গোয়া শিবির৷‌ গোটা বিষয়টাই এখন আই এস এল এবং ফেডারেশনের শৃঙ্খলারক্ষাকারী কমিটির কাছে যাবে৷‌ তারাই ঠিক করবে, এ নিয়ে কী করা উচিত৷‌ সি সি টিভি ফুটেজ দেখে যাকে দোষী মনে হবে, তাকেই কড়া শাস্তির মুখে পড়তে হবে৷‌ সেটা হাবাস বা পিরেস যিনিই হোন, কিংবা মাঠে বারবার অখেলোয়াড়োচিত আচরণে উত্তেজনার বাড়ানোর জন্য ফিকরু বা গ্রেগরি৷‌ দোষী প্রমাণিত হলে হাবাস বা পিরেস ৩ থেকে ৫ ম্যাচ নির্বাসনের মুখে পড়তে পারেন৷‌ শুক্রবার এফ সি গোয়ার টিম ম্যানেজার জোনাথন ডি’সুজা ম্যাচ কমিশনারের কাছে হাবাস এবং ফিকরুর বিরুদ্ধে শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগ করে দু’জনেরই কড়া শাস্তির আবেদন করেছেন৷‌ তিনি আবার এ-ও আবেদন করেছেন, গ্রেগরিকে আঘাত করার জন্য ফিকরুকে যেন বহিষ্কার করা হয়৷‌ এদিকে, ম্যাচের ঝামেলা মাঠে বা স্টেডিয়ামেই মেটেনি, তার টেনশন ছিল টিম হোটেলেও৷‌ পরিস্হিতি এতই ঘোরালো ছিল যে, নেহরু স্টেডিয়ামে দীর্ঘক্ষণ অ্যাটলেটিকো কোচ হাবাসকে লুকিয়ে রাখতে হয় গোয়া শিবিরের চড়াও হওয়ার আশঙ্কা থাকায়৷‌ এমনকি রাতে গোয়া ও কলকাতা যে হোটেলে ম্যাচের আগে উঠেছিল বেতলবাটিতে, সেখানে অ্যাটলেটিকো কোচ হাবাস, সহকারী কোচ মিগুয়েল ও স্ট্রাইকার ফিকরুকে নিয়ে যাওয়াই হয়নি৷‌ নিরাপত্তার খাতিরে তাঁদের রেফারি ও ম্যাচ কমিশনার যে হোটেলে ছিলেন, সেই র্যাডিসনে রাখা হয় রাতে৷‌ গোয়া এফ সি যখন এর শেষ দেখতে চায় বলছে মুখে, তখন ভেতরে ভেতরে বেশ অসন্তুষ্ট পিরেসের আচরণে৷‌ এমনিতে পিরেসের খেলায় অখুশি গোয়া ফ্র্যাঞ্চাইজির কর্তারা, তার ওপর এই ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনায় জড়ানোটা তাঁরা মানতে পারছেন না৷‌ অন্যদিকে, হাবাস ও গোটা দলের পাশে সর্বতোভাবে দাঁড়াতে শুক্রবার কলকাতায় উৎসব পারেখের বাড়িতে সভা সারেন অ্যাটলেটিকোর কর্তারা৷‌ অ্যাটলেটিকো কর্তারা খোঁজ নিয়ে জেনেছেন, বিরতিতে সাজঘরে আসার পথে অ্যাটলেটিকোর সহকারী কোচ মিগুয়েলের সঙ্গে কথা কাটাকাটিতে জড়ান পিরেস৷‌ মিগুয়েল তখন মাঠে ফিকরু ও গ্রেগরির ঝামেলা মেটাতে টানেল দিয়ে মাঠে ঢুকছিলেন৷‌ পরে মিগুয়েল ও অ্যাটলেটিকো দল সাজঘরে ফেরার সময় দেখে, পিরেস কলকাতা দলের সাজঘরের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন মারমুখী মনোভাব নিয়ে৷‌ মিগুয়েলকে দেখে পিরেস নাকি তেড়েও আসেন৷‌ দু’জনের মাঝে হাত দিয়ে তা থামাতে যান হাবাস৷‌ তখন পিরেস মুখে হাত দিয়ে মাটিতে পড়ে যান৷‌ অ্যাটলেটিকোর মতে, এটা পিরেসের নাটক৷‌ এতে গোয়া শিবির উত্তেজিত হয়৷‌ রটানো হয় হাবাস মেরেছেন পিরেসকে, যা ঠিক নয়৷‌ কলকাতার কর্তাদের দাবী, জিকো বললেই তো হল না, দেখা হোক সি সি টিভি ফুটেজ, তা হলেই ধরা পড়বে কে দোষী৷‌





kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
sangskriti || ghoroa || tv/cinema || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited