Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১১ বৈশাখ ১৪২১ শুক্রবার ২৫ এপ্রিল ২০১৪
Aajkaal 33
 প্রথম পাতা   বাংলা  ভারত  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
গরমে প্রান যায়, স্কুলের ছুটি আগেই ।। রাজ্যে দ্বিতীয় দফার নির্বাচনও মিটল মোটামুটি নির্বিঘ্নে ।। চার প্রেমিকার ভালবাসায় আমার যে প্রাণ যায়!--প্রচেত গুপ্ত ।। বাংলাকে বঞ্চনার বিরুদ্ধে কেন্দ্রকে গণতন্ত্রের ‘দাওয়াই’ দেওয়া দরকার: মমতা ।। সুদীপ্তর ৯ জন ঘনিষ্ঠ লিঙ্কম্যানের সন্ধান ।। অবসাদে শেষ পর্যম্ত আত্মঘাতী টেট উত্তীর্ণ চাকরিপ্রার্থী ।। বাড়ল ভোটের হার দেশজুড়ে--ভোট শেষ ৩৪৯টি আসনে ।। এফ আই আর চেয়ে কমিশনে কং--মোদির মনোনয়ন ঘিরে মাতামাতি ।। সংগ্রামপুরে আর্সেনিক, প্রার্থীদের মাথা হেঁট ।। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ভোট চাইছেন সারদা কেলেঙ্কারি থেকে বাঁচতে: বৃন্দা ।। গুজরাট স্বর্গ নয়: সোনিয়া ।। বর্ষা কম, বলছে মৌসম ভবন
খেলা

জন্মদিনে লেজেন্ডস ক্লাবের সম্মান

সোয়াইনস্টেগার ইনিয়েস্তা নয়, রবেনও মেসি নয়

গুয়ারদিওলা নিজেদের খেলা দু’ধাপ তুলবেন, আনসেলোত্তি জানেন, তাঁর কাজ আরও কঠিন

শূন্যের হ্যাটট্রিক গম্ভীরের

ফের কথা শুরু মোহনবাগানের, মর্গানের সুর নরম

পয়েন্ট ফিরল, জরিমানাও হল সালগাঁওকারের

গম্ভীর চাপে, জানালেন কোচ

সেরাদের নিয়েই যাচ্ছেন সঞ্জয়

কলকাতা নাইট রাইডার্স-রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বাঙ্গালোর ম্যাচের স্কোর

শচীনকে নিয়ে লড়াই ওয়ার্ন-গিলক্রিস্টের

বিশ্বকাপে মেসি জ্বলে উঠবে, বলছেন সাবেয়া

সফল অর্ণব

শেষ আটে সিন্ধু, গুরুসাই, জ্বালারা

জন্মদিনে লেজেন্ডস ক্লাবের সম্মান

ভোট দিলেন, দিতে বললেন শচীন

স্মৃতিতে ডুব অজিত তেন্ডুলকারের

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

দেবাশিস দত্ত




প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার দিন সকালে মা-বাবাকে প্রণাম করে দৌড়েছিলেন অটোমোবাইল অ্যাসোসিয়েশনের দপ্তরে ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার জন্য৷‌ বৃহস্পতিবার, ৪২তম জন্মদিনের সকালে সস্ত্রীক দৌড়েছিলেন ভোট দিতে৷‌ এবং ফিরে এসেই ফেসবুকের মাধ্যমে গোটা দুনিয়াকে জানিয়ে দিলেন যে, তিনি ভোট দিয়ে এলেন৷‌ এবং সঙ্গে সঙ্গেই জনতার উদ্দেশে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলেন, ‘আপনি নিজে ভোট দিয়ে এসেছেন কি?’ তারপরই স্বগতোক্তির মতো লিখলেন, ‘চমৎকারভাবে জন্মদিন শুরু করলাম৷‌ বরাবরই নিজেকে একটি মহান রাষ্ট্রের দায়িত্বশীল এক নাগরিক মনে করে এসেছি৷‌’ বুঝিয়ে দিলেন, সাততাড়াতাড়ি ভোটাধিকার প্রয়োগ করে এসে দেশের জন্য পরম, পবিত্র কর্তব্যটা সেরে ফেলতে পেরে আনন্দ হচ্ছে তাঁর৷‌

অমিতাভ বচ্চন তো ভোটাধিকার প্রয়োগ করার ব্যাপারে টিভিতে বলে আসছেন ক’দিন ধরেই৷‌ সেই সুরেই বুধবার শচীন বলেছিলেন, ‘নিজের ভোটকে মোটেই খাটো করে দেখবেন না৷‌ ক্রিকেট খেলায় প্রতিটি খুচরো রান যেমন গুরুত্বপূর্ণ, ঠিক সেভাবেই আপনাদের এক একটি ভোট দেশের চেহারা পাল্টে দিতে পারে৷‌ আমি নিশ্চিত, আপনি এবারের ভোটে নিজের ভূমিকা ঠিকঠাক পালন করবেন৷‌ অনুগ্রহ করে নিজের ভোট দিয়ে আসবেন কিন্তু৷‌’ নীল জামা গায়ে স্ত্রী অঞ্জলিকে সঙ্গে নিয়ে ভোট দিতে এসেছিলেন৷‌ ‘শচীন আলা রে’ গানটা কি আবহ সঙ্গীতের মতো শুনতে পাচ্ছেন?

গোটা দিন পরিবারের সঙ্গে কাটানোর জন্য সেই যে সকালে ভোট দিয়ে প্যারি রোডে নিজের বাংলোয় ঢুকে পড়েছিলেন, আর বেরোননি৷‌ এমনকি সন্ধেবেলায় লেজেন্ডস ক্লাবের সদস্যপদ নেওয়ার জন্যও ব্রাবোর্ন স্টেডিয়ামে যাননি বান্দ্রার বাড়ি থেকে বেরিয়ে৷‌ পাঠিয়ে ছিলেন দাদা অজিত তেন্ডুলকারকে ওই বিরল সম্মান, তাঁর হয়ে গ্রহণ করার জন্য৷‌

বিখ্যাত ক্রিকেটারদের জন্মদিনে লেজেন্ডস ক্লাব সদস্যপদ দিয়ে সম্মান জানায়৷‌ গত বছর ১০ জুলাই উদ্যোক্তারা এই সম্মান দিয়েছিলেন সুনীল গাভাসকারকে৷‌ শচীন হলেন পঞ্চম ক্রিকেটার, যাঁকে লেজেন্ডস ক্লাব সদস্যপদ দিয়ে সম্মান জানাল৷‌ এর আগে উদ্যোক্তারা বিজয় মার্চেন্ট, বিজয় হাজারে, ভিনু মানকড় এবং সুনীল গাভাসকারকে তাঁদের ক্লাবের সদস্যপদ দিয়েছিলেন৷‌ ওই তালিকায় শচীন উঠে এলেন পঞ্চম বিশিষ্ট ক্রিকেটার হিসেবে৷‌

এদিন তাঁর অনুপস্হিতিতে দাদা অজিত তেন্ডুলকার মঞ্চে দাঁড়িয়ে জানিয়ে গেলেন যে, গত চার মাসে, বলতে গেলে, শচীনের সঙ্গে দেখাই হয়নি, ‘এখন ও বড় হয়ে গেছে এবং এই যে আপনারা জানতে চাইছেন শচীনের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী, আমি সত্যিই বলার মতো জায়গায় নেই৷‌ কারণ, এখন আর আমি বলি না ওর কী করা উচিত৷‌ বললাম না, বয়স হয়েছে ওরও৷‌ তবে এটুকু জানি, যা-ই করুক না কেন, খেলাধুলার ব্যাপারটা ওর প্রায়রিটি লিস্টের শীর্ষে থাকবে৷‌’

বক্তব্য পেশ করতে গিয়ে শচীনের ছোটবেলার দু’টি ঘটনার স্মৃতিচারণ করলেন৷‌ ‘তখন ওর বয়স ১২৷‌ কিন্তু স্কুল পর্যায়ে কোনও সেঞ্চুরি পায়নি৷‌ হ্যারিস শিল্ডের খেলার শেষে ও কাকার বাড়ি না গিয়ে আমাদের পূর্ব বান্দ্রার সাহিত্য সহবাসের ফ্ল্যাটে এসেছিল৷‌ একে তো আমরা ওকে বাড়িতে দেখে অবাক, তার ওপর বাবা ও মা একটু অবাক হয়ে গিয়েছিল ওর মুখে অসংলগ্ন কথাবার্তা শুনে৷‌ ধোঁয়াশা কেটেছিল পরের দিন, যখন ও দু’দিনের ওই ম্যাচে প্রথম ওভারে পর পর দু’টি বাউন্ডারি মেরে প্রথম তিন অঙ্কের রানে পৌঁছয়৷‌ আগের দিন যখন বাড়ি এসেছিল, তখন ও ৯৬ রানে অপরাজিত ছিল৷‌ আমরা বুঝে যাই যে, জীবনের প্রথম সেঞ্চুরির মুখে দাঁড়িয়ে থাকার কারণে ও সেদিন বাড়ি ফিরে মা-বাবার সঙ্গে সুর ও ছন্দ হারানো কথা বলছিল৷‌’ পরবর্তীকালে ওই মানুষটাই কিনা বলে বলে সেঞ্চুরি করেছিলেন৷‌ বিরাট কোহলির ফিরে আসার ভঙ্গিটা ভাল তো লাগছেই৷‌ কিন্তু এ কথা কে অস্বীকার করতে পারবেন যে, সব ঘরানার ক্রিকেট মিলিয়ে শচীন তেন্ডুলকারই কিন্তু প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে একশো সেঞ্চুরি করেছিলেন৷‌

একটু আগে প্রাক্তন ক্রিকেটার মাধব আপ্তে শুনিয়েছিলেন যে, বয়স কম থাকা সত্ত্বেও সি সি আই কীভাবে শচীনকে প্রথম সুযোগ দিয়েছিল৷‌ এবার অজিতের দ্বিতীয় স্মৃতিচারণ: ‘সি সি আই-কে কি আমরা কেউই ভুলতে পারব? আমাদের পরিবার সি সি আইয়ের সঙ্গে চিরকাল মজে থাকবে৷‌ কারণ, আজ যেখানে দাঁড়িয়ে লেজেন্ডস ক্লাবের সম্মান গ্রহণ করছি শচীনের হয়ে, এখান থেকেই তো ওর যাত্রা শুরু হয়েছিল৷‌ এই সুযোগে আমি আমার দেখা শচীনের একটি বিখ্যাত স্ট্রোকের কথা জানিয়ে যাই৷‌ এই শটটাও দেখেছিলাম এই মাঠেই৷‌ শচীনের বয়স তখন ১৬৷‌ এবং ভারতীয় দলের রিজার্ভ বোলার হিসেবে থাকা প্রদীপ সুন্দরমকে যে স্ট্রেট ড্রাইভটা মেরেছিল, তা আমি কখনও ভুলব না৷‌ বলে খুব একটা জোর ছিল না৷‌ কিন্তু রকেটের গতিতে শচীনের স্ট্রোক সরাসরি সাইট স্ক্রিনে উড়ে গিয়েছিল৷‌ একটা ১৬ বছর বয়সী ছেলের পক্ষে অত জোরে শট নেওয়ার মধ্যেও যে টাইমিংয়ের ব্যাপারটা ছিল, সেটা দেখে এবং উপলব্ধি করে আমি শটটাকে, একাম্তই নিজের ব্যক্তিগত মতামত, চিরদিন মনে রাখব৷‌’

খেলা ছাড়ার পর এটাই তাঁর প্রথম জন্মদিন৷‌ ভারতরত্ন পাওয়ার পরও এটাই তাঁর প্রথম জন্মদিন৷‌ এবং তাঁর অনুরাগীরা মনে রাখবেন যে, খেলা ছাড়ার পরের জন্মদিনেই পেয়ে গেলেন লেজেন্ডস ক্লাবের সম্মান৷‌ তেমনই মনে রাখতে হবে জন্মদিনে ভোট দেওয়ার ব্যাপারটাও৷‌

পুনশ্চ: যদি জানতে চাওয়া হয়, ৪২তম জন্মদিনে শচীন নতুন কী কী করলেন, তাহলে, আমরা অম্তত একটা পরিবর্তনের কথা বলতে পারি৷‌ এদিন সকাল থেকে মোবাইল ফোন বন্ধ করে রেখেছিলেন৷‌ সারাদিন বন্ধই ছিল৷‌ আজকাল-এর মতো, যাঁরা আগের দিন শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছিল, তাদের কথা আলাদা৷‌ বাকিদের এস এম এস ডেলিভারড হয়নি৷‌ এর আগে, কোনও জন্মদিনেই তিনি মোবাইল বন্ধ করে রাখেননি৷‌ করলেন এই প্রথম৷‌ নিশ্চিত করেই বলা যায় যে, শুক্রবার সকাল থেকেই তিনি যে যে এস এম এস তাঁর মোবাইলে পৌঁছেছে, সেগুলোর জবাব তিনি দেবেন প্রত্যেকটির, একের পর এক!






bangla || bharat || editorial || post editorial || khela || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited