Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ১৬ ভাদ্র ১৪২১ মঙ্গলবার ২ সেপ্টেম্বর ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
ব্যারেটোর স্বজনকে সারদার টাকা ।। স্কুলে গিয়ে বাঁশি বাজিয়ে শোনালেন ‘ছাত্র’ মোদি ।। ঐতিহাসিক মহামিছিলে ১৫ দলের আবেদন, চাই আরও ঐক্যবদ্ধ বাম ।। চৌরঙ্গিতে বি জে পি-কে কোনও জমি না ছাড়ার নির্দেশ মমতার ।। ধর্মঘটে অনড় ‌ট্যাক্সি, রাজ্য আরও কড়া ।। ভাড়া বাড়লেও বাস কম কম! ।। আজ পাহাড়ের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীর চোখ উন্নয়নেই ।। কয়লা ব্লকের বণ্টন নাকচ না করতে অনুরোধ কেন্দ্রের ।। উদ্বিগ্ন রাষ্ট্রপতি: বিশ্বভারতী ছাত্রী নিগ্রহের ঘটনার খোঁজ নিলেন ।। বি জে পি-র রাজ্য কমিটিতে বিশেষ আমন্ত্রিত সদস্য বিশিষ্টরা ।। শরিফকে সরতে বলল পাক ফৌজ ।। ‘আগ্রাসী’ চীনকে খোঁচা মোদির
খেলা

ইস্টবেঙ্গলে এখন খেলছি সমর্থকদের জন্য: রন্টি

মুদগাল কমিটিকে আরও ২ মাস!

আজ জিতে সেলিব্রেশন চান অশ্বিন

২ গোলে এগিয়েও রিয়েলের বিশ্রী হার, বিরক্ত কোচ

আর্মান্দো সেরা বের করতে জানেন: মর্গান

কোচ ছাড়াই শুরু প্রস্তুতি

জন্মদিন পালিত

টালিগঞ্জকে রোখা যাচ্ছে না

ব্যথিত ধনচন্দ্র: একা দায়ী নই

বরিসিচ, পেনকে সই করাল শচীনের দল

মাঠে গুন্ডামি! গ্রিয়ারের ৫ ফুটবলার, ২ কর্তা গ্রেপ্তার

মরিয়া ফুজা

গর্বের মুহূর্ত: চিগাম্বুরা

বিদায় শারাপোভার

ভারত ১

ব্রাজিল দলে রোবিনহো

এফ সি গোয়ার চলা শুরু

কাউড্রে লেকচারে বথাম, সানি

বুধবার থেকে রাজ্য শুটিং

ইস্টবেঙ্গলে এখন খেলছি সমর্থকদের জন্য: রন্টি

আমাদের জুটির ম্যাজিক দেখবেন: ডুডু

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

মুনাল চট্টোপাধ্যায়




ডার্বি জয়ের পরদিন খোশমেজাজেই কাটালেন রন্টি মার্টিন৷‌ সকাল থেকে দুপুর পর্যম্ত শুয়ে-বসে কাটিয়ে৷‌ মাঝে মাঝে প্রচারমাধ্যমের আবদার সামলে খোলামেলা নিজেকে মেলে ধরে৷‌ বিকেলে বাইপাসের ধারে রন্টির ফ্ল্যাটে বিশেষ অতিথি ডুডু ও তাঁর স্ত্রী হেনি৷‌ সঙ্গে এজেন্ট কলকাতার বড় দলে খেলা সেরিকি৷‌ ঝিরিঝিরি বৃষ্টির মধ্যে গাড়ি চেপে বেরিয়ে গেলেন সবাই ফ্যামিলি গেট টুগেদারে৷‌ মঙ্গলবার থেকে আবার ফুটবলযুদ্ধে ঘাম ঝরানোর পাল্লা৷‌ তার আগে এক ঝলক মুক্ত বাতাস বুকে ভরে নিতে শহর বেড়াতে বেরিয়ে পড়া রন্টি, ডুডুর৷‌ রবিবার ডার্বি ম্যাচে প্রথমবার পাশাপাশি খেললেন দু’জনে৷‌ মাঠের ভেতরের বোঝাপড়াটা সম্ভবত আরও বেশি করে বাড়াতেই মাঠের বাইরের বন্ধুত্বটা আরও দৃঢ় করতে উদ্যোগী দুই পরিবার৷‌ আর ডুডু তো বলেই দিলেন, ‘একটু অপেক্ষা করুন৷‌ আমাদের বোঝাপড়া আর একটু জমতে দিন৷‌ তার পর দেখবেন রন্টি-ডুডু ম্যাজিকের কামাল৷‌’ গত মরশুমের ঘটনা৷‌ ইউনাইটেড স্পোর্টস কর্তা নবাব ভট্টাচার্যর অনুরোধে শিল্ড পর্যম্ত খেলেছিলেন আর্থিক সমস্যা মেনে নিয়েও৷‌ নিজের ও পরিবারের ভবিষ্যতের কথা ভেবে রাতের পর রাত ঘুমোতে পারেননি৷‌ ফুটবলজীবন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছিল৷‌ রাংদাজিয়েদে খেলার প্রস্তাব পেয়ে বেঁচে যান৷‌ আর এখন লাল-হলুদের জার্সিতে আবার প্রতিপক্ষর ঘুম কাড়তে মাঠে রন্টি৷‌ তবে সে কথা এখন আর মনে করতে চান না রন্টি৷‌ বলেন, ‘ইস্টবেঙ্গলে নতুন অধ্যায়৷‌ সেরা দেওয়ার লড়াই৷‌’ কলকাতায় ডার্বি অভিষেকে মোহনবাগানের জালে ২ বার বল পাঠিয়ে বেশ উত্তেজিত রন্টি৷‌ ইস্টবেঙ্গলের নাইজেরীয় স্ট্রাইকার ডার্বি জয়ের কথা তুলতে এদিনও রোমাঞ্চিত৷‌ বলেন, ‘এটা দারুণ ব্যাপার৷‌ গোয়ায় অনেকবার ডার্বিতে খেলেছি৷‌ গোল করেছি৷‌ জিতেছি৷‌ কিন্তু কলকাতা ডার্বির মজাই আলাদা৷‌ উন্মাদনা অন্য ধরনের৷‌ এক লাখের কাছাকাছি সমর্থকের সামনে সেরা দেওয়া৷‌ সবচেয়ে বড় কথা, কলকাতায় একজন ফুটবলারের দক্ষতা ও ক্ষমতার মূল্যায়ন হয় ডার্বিতে সফল হওয়ার ওপর৷‌’ রন্টি যদি এদেশের ভাষা জানতেন, তাহলে হয়ত বলতেন, যো জিতা ওহি সিকান্দার৷‌ তবে একটা ডার্বি জয়েই থেমে যেতে চান না রন্টি৷‌ বলেন, ‘বরং দায়িত্ব আরও বাড়ল৷‌ প্রত্যাশার চাপও৷‌ তবে তা নিতে আমি তৈরি৷‌’ ডার্বি জয়ে লিগ খেতাব জয়ের কাছাকাছি পৌঁছলেন বলে মনে হচ্ছে? নাকি আই এস এলের ফুটবলাররা চলে যাওয়ায় কাজটা কঠিন হল? রন্টির জবাব, ‘কঠিন তো হলই৷‌ সেজন্যই তো বলছি, কাজটা কঠিন৷‌ জুনিয়রদের পাশে দাঁড়িয়ে সাফল্য ধরে রাখতে বাড়তি দায়িত্ব নিতে হবে আমাদের মতো সিনিয়রদের৷‌ এখনও লিগ ওয়াইড ওপেন৷‌’ এতদিন ধরে নিজের ফর্ম ধরে রাখার মূল রহস্য কী? হেসে রন্টির জবাব, ‘ডিটারমিনেশন, ডেডিকেশন, ডিসিপ্লিন৷‌ কঠোর পরিশ্রমের কোনও বিকল্প নেই৷‌ মাঠ, প্র্যাকটিস, খেলা আর পরিবারের বাইরে আমার অন্য কোনও জগৎ নেই৷‌’ প্রেরণা স্ত্রী, পুত্র, কন্যা বলেই জানালেন রন্টি৷‌ মোটিভেশন লাল-হলুদের কোটি কোটি সমর্থক৷‌ বলেন, ‘ডেম্পোয় এত সমর্থক ছিল না৷‌ এখন কিন্তু ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের জন্যই খেলছি৷‌ এটা চাপ নয়, ওদের মুখে সাফল্যের হাসি দেখার তৃপ্তির অনুভূতি অন্যরকম প্রাপ্তি৷‌’ গোয়ায় ডেম্পোর হয়ে অনেকবার আই লিগ জিতেছেন৷‌ আর্মান্দোর সঙ্গে বোঝাপড়া ছিল৷‌ সেই কেমিস্ট্রি কি এখানেও বড় ধরনের সম্মান এনে দেবে? রন্টির ব্যাখ্যা, ‘আর্মান্দো জানেন আমি কেমন খেলি৷‌ আর একটা সেট টিম পেয়েছিলেন ডেম্পোতে৷‌ ক্লাইম্যাক্স, ক্লিফোর্ডস মহেশের মতো ম্যাচ উইনার ছিল৷‌ তার থেকেও বড় কথা, ডেম্পোতে গোয়ার ফুটবলার বেশি ছিল৷‌ ভিনরাজ্যের ফুটবলার কম৷‌ তাই বোঝাপড়ার সমস্যা হত কম৷‌ এখানে ইস্টবেঙ্গলে কোয়ালিটি ফুটবলারের অভাব আছে এমন নয়৷‌ কিন্তু কলকাতার ফুটবলার হাতে গোনা৷‌ ভিনরাজ্যের ফুটবলার বেশি৷‌ তাই বোঝাপড়া গড়ে তুলতে আর্মান্দোকে সময় দিতে হবে৷‌ ঠিকঠাক চললে আই লিগ জিততেই পারি৷‌’ বার্তোসকে মানিয়ে নেওয়ার জন্য সময় দেওয়া দরকার বলেই মনে করেন রন্টি৷‌ বলেন, ‘নতুন পরিবেশে সকলের শুরুতে সমস্যা হয়৷‌ ডুডুর সে সমস্যা নেই৷‌ কারণ ও এদেশে আগে খেলে গেছে৷‌ তাই প্রথমবার লাল-হলুদ জার্সিতে নেমেই ও জাত চিনিয়েছে৷‌ তবে একা ডুডু-রন্টি সব জেতাবে ভাবলে ভুল হবে৷‌ সাফল্য আসে টিম গেমে৷‌’ চনমনে ডুডু অবশ্য বলেন, ‘ডার্বির উন্মাদনায় অভিভূত৷‌ একটু ধৈর্য ধরুন৷‌ আমার আর রন্টির জুটিতে ইস্টবেঙ্গলে অনেক সাফল্য আসবে৷‌’


kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || khela || Tripura ||
Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited