Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ৯ শ্রাবণ ১৪২১ শনিবার ২6 জুলাই ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  খেলা  সংস্কৃতি  ঘরোয়া  পর্দা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
খবর না দেওয়ায় স্বাস্হ্য বিভাগের তিন কর্তাকে সাসপেন্ডের নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর ।। রাসবিহারী থেকে গ্রেপ্তার পূজা--শাম্তনু সিংহরায় ।। দেবপ্রসাদ ও শঙ্কর কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে?--দীপঙ্কর নন্দী ।। তিনে তিন কং! --মোদি হাওয়া মিলিয়ে গেল উত্তরাখণ্ডে ।। এনসেফেলাইটিসের কথা কেন্দ্র জেনে গেল, মুখ্যমন্ত্রী জানলেন না! সূর্যকাম্ত ।। তৃণমূলের নেতাদের জন্যই রাজ্য জুড়ে শিল্প-কারখানার ঝাঁপ বন্ধ হচ্ছে: বিমান ।। ইংরেজির প্রতি পক্ষপাত? --সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা ঘিরে তুমুল হইচই, আশ্বাস কেন্দ্রের ।। গাজায় মৃত্যু বেড়ে ৮৩২--রাষ্ট্রপু? ইদের আগে যুদ্ধ বিরতির ডাক দিলেও ইজরায়েল অনড় ।। মূল্যবৃদ্ধি রোধের প্রতিশ্রুতি ভাঙছে বি জে পি: রাহুল ।। কালো টাকা দেশে ফেরাতে সরকার দায়বদ্ধ: জেটলি ।। পুনে চলে যাওয়াতেই সাফল্য, মত পরিবারের ।। পুলিস মিউজিয়ামে বন্দুকের ইতিহাস
খেলা

মহমেডানকে হারিয়েও খুশি নন সুভাষ

নটিংহ্যাম-কাণ্ডে নাটক, প্রহসন শুরু হল!

হ্যালো, অ্যালিস্টার কুক বলছি...

পুনে চলে যাওয়াতেই সাফল্য, মত পরিবারের

মদনের সভায় নানা ভাবনা

কান্নায় ভেঙে পড়ে সানিয়া: শিরা কেটে প্রমাণ দেব?

ইশাম্তের স্পেলে মুগ্ধ বিশ্বনাথ

বিন্দ্রার বিদায়ী সোনা

রাশিয়া বিশ্বকাপ! চিম্তায় জার্মানি

মেনোত্তিকে কোচ চান মারাদোনা

সমরের বিরুদ্ধে অভিযোগ, কাল সৌরভ সভায় থাকছেন না

নেইমারের মস্তিষ্ক দরকার হয় না

শোয়েব মালিক- টিনো বেস্ট হাতাহাতি!

শিল্ড ঘিরে অনিশ্চয়তা

আই এস এলে ফ্রেডি লুংবার্গ

২০০৮ ফেরাতে চান ইনিয়েস্তা

শ্রীলঙ্কা ৪২১, জয়বর্ধনে ১৬৫

মহমেডানকে হারিয়েও খুশি নন সুভাষ

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

আজকালের প্রতিবেদন: যুবভারতীর মাঠে প্রস্তুতি ম্যাচে মহমেডানের বিরুদ্ধে ২-০ গোলে জয় মোহনবাগানের৷‌ প্রথমার্ধের শুরুতে গোল সাবিথের৷‌ একবারে শেষমুহূর্তে গোল করেন পঙ্কজ মৌলা৷‌ তবে দলের জয়ে বিন্দুমাত্র খুশি নন মোহনবাগান টি ডি সুভাষ ভৌমিক৷‌ বরং বেশ উদ্বিগ্ন দলের ছন্নছাড়া ফুটবল দেখে৷‌ কোনওরকম অজুহাতের পথে না গিয়ে সুভাষের ব্যাখ্যা, ‘মোহনবাগানে ঘাসের মাঠে ফুটবলাররা যতটা সাবলীলভাবে পাসিং ফুটবল খেলে তা এখানে খেলেনি৷‌ প্রথম ১৫ মিনিট পর মাঠে দাঁড়িয়ে পড়েছিল৷‌ তার কারণ যুবভারতীর আর্টিফিসিয়াল টার্ফ৷‌ এই মাঠে নিয়মিত প্র্যাকটিস না করলে ভাল খেলা সম্ভব নয়৷‌ এই মাঠটার তৈরির সময় থেকেই গলদ৷‌ রবারের মাঠের নিচ থেকে হিট ওঠে৷‌ তাতে ফুটবলারদের শরীরের ওপর প্রভাব ফেলে৷‌ এদিন ফুটবলারদের পা টেনে ধরছিল৷‌ তাই ওরা জায়গা নিতে পারছিল না দ্রুত, সব বিভাগেই একটা গ্যাপ তৈরি হয়ে যাচ্ছিল৷‌ আমার দলকে এই মাঠেই খেলতে হবে, তাই এখানেই অম্তত সপ্তাহে তিনদিন প্র্যাকটিস করতে হবে৷‌ আমি ক্লাবকে বলেছি, আগামী সপ্তাহ থেকেই সেই ব্যবস্হা রাখতে৷‌’ যুবভারতীতে রিজার্ভ বেঞ্চে পাশে বসেছিলেন মোহনবাগান কর্তা কাম ম্যানেজার বাবুন ব্যানার্জি৷‌ তাঁকে সুভাষ বলেন মাঠের সি ই ও-র সঙ্গে কথা বলে নিতে৷‌ চার্চিল থেকে আসা বলবম্তকে অল্পসময়ের জন্য খেলিয়েছিলেন সুভাষ৷‌ পরে তুলেও নেন৷‌ কেমন দেখলেন? সুভাষের জবাব, ‘বলবম্তের শরীরে অন্যদের তুলনায় মেদ জমে কম৷‌ একটু বেশি উৎসাহী৷‌ খেলতে চাইল৷‌ তাই নামিয়েছিলাম৷‌ কিন্তু প্র্যাকটিসে না থাকলে যা হয়৷‌ কিছুক্ষণ পর নিজেও বুঝল পারছে না৷‌ তাই তুলে নিই৷‌ ঠিক আছে প্র্যাকটিস করতে করতেই ফিট হয়ে যাবে৷‌’ সনি নর্ডি আসায় কি দল আরও শক্তিশালী হল? সুভাষের প্রতিক্রিয়া, ‘সনি নর্ডিকে আমি দেখিইনি৷‌ এমনকী ইউ টিউবে ওর খেলাও না৷‌ তবে মোহনবাগান কর্তারা যে ফুটবলারকে নেওয়ার জন্য এতদিন ধরে লেগেছিলেন, সে নিঃসন্দেহে ভাল ফুটবলারই হবে৷‌ আগে দলে যোগ দিক, প্র্যাকটিস করুক, তার পর বলতে পারব কতটা দলের শক্তি বাড়ল৷‌’ চার বিদেশিকেই কি এখনই মরশুমের শুরুতে চাইছেন? নাকি যেহেতু এখন চারজনকে খেলানোর সুযোগ নেই, পরে পেলেও চলবে? সুভাষের সাফ কথা, ‘চারজনকে এখনই পেলে ভাল৷‌ তাতে চারজনকে দেখে নেওয়ার সুযোগ পাওয়া যাবে৷‌ সব কোচের কিছু দর্শন থাকে৷‌ আমারও আছে৷‌ যারা নতুন আসবে তারা যত তাড়াতাড়ি সেটা বুঝবে তত ভাল৷‌ দলের লাভ৷‌ চারজনের মধ্যে কে কে খেলবে বড় কথা নয়, আসল হল মোহনবাগানের নতুন পরিবেশ ও ফুটবলারদের সঙ্গে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মানিয়ে নেওয়া৷‌ দলগত সংহতি এটাকেই বলে৷‌’ পাশেই বসে ছিলেন মোহনবাগানের নতুন কোচ শঙ্করলাল চক্রবর্তী৷‌ তাঁর অম্তর্ভুক্তি নিয়ে সুভাষের মম্তব্য, ‘ফুটবলার হিসেবেই শঙ্করলালের নামডাক ছিল৷‌ কোচ হিসেবেও একইরকম সফল হবে বলে মনে করি৷‌ ওর মধ্যে একটা গাটস আছে৷‌ ওকে আমি অ্যাসিস্ট্যান্ট বলে ভাবছি না৷‌ সাপোর্ট স্টাফ হিসেবে ও আমাদের ভুল ধরিয়ে দেবে, আবার কখনও কখনও নিজস্ব মতামত দেবে এটা মনে করছি৷‌’ ম্যাচ নিয়ে মোহনবাগান মিডফিল্ডার লালকমল বলেন, ‘আমরা এদিন একেবারেই ভাল খেলতে পারিনি৷‌ এক, এখনও আমরা কেউ পুরো ফিট নই৷‌ দুই, যুবভারতীর মাঠে আমরা কিছু ফুটবলার খেলতে অভ্যস্ত থাকলেও অন্যদের কাছে এই টার্ফ নতুন৷‌ তাই সমস্যা হয়েছে বল নিয়ে মুভ করতে৷‌ তিন, বোঝাপড়া এখনও সেভাবে গড়ে ওঠেনি৷‌ খেলতে খেলতেই সেটা তৈরি হয়ে যাবে৷‌’ হারলেও মহমেডান কোচ ফুজা তোপে অখুশি নন দলের খেলায়৷‌ বলেন, ‘এখনও প্রি-সিজন ট্রেনিং চলছে৷‌ নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার সময় এটা৷‌ প্রথম একাদশ চূড়াম্ত হয়নি৷‌ দলে নতুন মুখ বেশি৷‌ যতটা সম্ভব সুযোগ দিয়ে সবাইকে দেখে নেওয়া৷‌ তাই গোল করতে পারেনি বলে খুব আক্ষেপ নেই৷‌ এখনও হাতে অনেক সময় আছে৷‌ তৈরি হয়ে যাবে দল৷‌’ মোহনবাগানকে কেমন দেখলেন? ফুজার মম্তব্য, ‘এখন মরশুমের সবে শুরু৷‌ এর মধ্যে কোনও দল সম্পর্কে ভাল মন্দ কিছু বলা ঠিক নয়৷‌ তবে মোহনবাগানের থেকে আরও বেশি চাপ আশা করেছিলাম৷‌’


kolkata || bangla || bharat || bidesh || khela || sangskriti || ghoroa ||
tv/cinema || Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited