Aajkaal: the leading bengali daily newspaper from Kolkata
কলকাতা ৩০ ভাদ্র ১৪২১ মঙ্গলবার ১6 সেপ্টেম্বর ২০১৪
 প্রথম পাতা   কলকাতা  বাংলা  ভারত  বিদেশ  সম্পাদকীয়  উত্তর সম্পাদকীয়  খেলা  আজকাল-ত্রিপুরা   পুরনো সংস্করন  বইঘর 
চিটফান্ড নিয়ে রাস্তায় বামেরা, এরপর জবাব চাইতে নবান্নে? ।। ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের তিন কর্তাকে জেরা ।। সারদার জালিয়াতি: তদম্ত শেষ করল এস এফ আই ও ।। আজ দুই উপনির্বাচনের ফল দুপুরের মধ্যে ।। প্রয়াত বিনয় কোঙারকে চোখের জলে বিদায় দিলেন বর্ধমানবাসী ।। আজ মেমারিতে শেষকৃত্য সইফুদ্দিন চৌধুরির ।। কাঁচরাপাড়ায় বামপম্হীদের রেল অবরোধ--দফায় দফায় তৃণমূলি হামলা, বোমা, গুলি ।। ব্যবধান কমলেও জিতব: তৃণমূল --দীপঙ্কর নন্দী ।। রুষ্ট হবে চীন? প্রণবের সফরে ভিয়েতনামের সঙ্গে সমুদ্র চুক্তি ।। এবার শাসন ক্ষমতায় এলে ৫০ বছর থাকব: গৌতম ।। ভূস্বর্গে ত্রাতা ভাগলপুরের সৌরভ ।। হলদিয়া পেট্রোকেম: বিশেষ: দল পূর্ণেন্দুর
খেলা

উদ্বুদ্ধ করলেন দেব, দেখানো হল ‘এগারো’

জিতে আর্মান্দো-সুব্রতর চাপ বাড়িয়ে দিল মোহনবাগান

ডুডুর মুখে ‘দল’, নির্লিপ্ত ইস্টবেঙ্গল!

আজ কলকাতা লিগ কার?

চ্যাম্পিয়নশিপের সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়েও লিগ নিয়ে আগ্রহ নেই আর্মান্দোর!

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে রিয়েলকে ফেবারিট বললেন লাম

৫ গোল হজমের লজ্জা দিয়ে শুরু ভারতের

পারিবারিক সমস্যা প্রভাব ফেলেছে, মানলেন লিয়েন্ডার

ম্যাকগ্রাথের পরামর্শ কাজে লাগাবেন দিন্দা

রোনাল্ডিনহোকে নিয়ে বিতর্ক

হেরে নেমে গেল ভারত

নাইটদের নিয়ে বাড়তি ভাবতে নারাজ ধোনি

মুম্বইয়ের দলে আনেলকা

সফল মেসারার্স

এলেন জিকো

রোচ ভাঙলেন

ব্লাটারদের নাকি ১৬ লক্ষ টাকার ঘড়ি দিয়েছিল ব্রাজিল

আজ মাঠে সৌরভ

বাংলা দল

উদ্বুদ্ধ করলেন দেব, দেখানো হল ‘এগারো’

Google plus share Facebook share Twitter share LinkedIn share

মুনাল চট্টোপাধ্যায়




ইস্টার্ন রেলের পর ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান, মহমেডানের বাইরে আর কেউ কলকাতা লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়নি৷‌ দীর্ঘকাল পর লিগজয়ের হাতছানি টালিগঞ্জ অগ্রগামীর সামনে৷‌ শেষ ম্যাচে ইস্টবেঙ্গলকে হারাতে পারলেই ট্রফি ঘরে আসবে৷‌ স্বাভাবিকভাবেই আগের দিন চাপ ও উত্তেজনার মাঝে অনুশীলনে চনমনে টালিগঞ্জ ফুটবলাররা৷‌ টি ডি সুব্রত ভট্টাচার্যের কড়া নজরে চলে সিচুয়েশন প্র্যাকটিস, সেট পিস অভ্যাস, শেষে শুটিং ও পেনাল্টি কিক মারা৷‌ মাঝে মাঝে তিন বিদেশি স্টপার বেলো রজ্জাক, অলরাউন্ড এবিলিটির ফুটবলার ড্যানিয়েল বিদেমি আর ৮ গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতার দৌড়ে থাকা কোকোকে কাছে ডেকে সহকারী কোচ বিশ্বজিৎ বিশ্বাসকে সঙ্গে নিয়ে নানা কৌশল বোঝালেন সুব্রত৷‌ ঘরের ছেলেরা ভুল করলে তা ঠিক না হওয়া পর্যম্ত ছাড়েননি মাথার ওপর কড়া রোদ আর পায়ের নিচে তেতে-ওঠা যুবভারতীর আর্টিফিসিয়াল টার্ফ থাকাতেও৷‌ সব মিলিয়ে একটা মরিয়া ভাব৷‌ ইতিমধ্যেই প্রতিপক্ষ নানাভাবে মাঠের বাইরের খেলায় ফুটবলারদের প্রভাবিত করতে পারে বললেও ভেতরে ভেতরে প্রচণ্ড সিরিয়াস৷‌ প্র্যাকটিসের মাঝে ঢিলেমি দেখলেই সুব্রত বলে ওঠেন, সিরিয়াস, সিরিয়াস৷‌ ফুটবলাররা তাঁর নির্দেশ মাঠে ঠিক কতটা পালন করে উঠতে পারেন, লাল-হলুদের সেরা দুই অস্ত্র ডুডু-রন্টিকে কব্জা করতে পারেন, সেটাই এখন দেখার৷‌ দলের তিন বিদেশি টালিগঞ্জ টি ডি-র মূল ভরসা বেলো, বিদেমি, কোকো রয়েছেন রীতিমতো খোশমেজাজে৷‌ ইস্টবেঙ্গলের বিরুদ্ধে খেলা বলে তাঁরা কেউ কুঁকড়ে নেই৷‌ থাকবেনই বা কেন, তিনজনই তো আই লিগে লাল-হলুদের বিরুদ্ধে অনেকবার খেলেছেন৷‌ ইস্টবেঙ্গলের বিরুদ্ধে স্টপারে বেলোর খেলা নিশ্চিত৷‌ তবে ওপরে কোকো না বিদেমি তা নিয়ে কিছুটা দ্বিধায় আছেন টি ডি সুব্রত৷‌ তাঁর প্রথম পছন্দ অবশ্য বিদেমি, কারণ নাইজেরীয় এই ফুটবলার আক্রমণ ও রক্ষণে সমান সাবলীল৷‌ আগে ঘর সামলে গোল তুলে নেওয়ার লক্ষ্যে বিদেমিকে ডিফেন্সিভ স্ক্রিনে রেখে ডুডু-রন্টিকে আটকানোর পথে হাঁটতে পারেন৷‌ কোকোকে পরে নামানোর ভাবনা৷‌ তবে বিদেমি নিজে মনে করেন, গোলের মধ্যে আছেন কোকো৷‌ তাই তাঁরই শুরু করা উচিত৷‌ বিদেমির বক্তব্য, ‘আমি সবে জ্বর থেকে উঠেছি৷‌ সেখানে কোকো গত ম্যাচেই মহমেডানের বিরুদ্ধে চার গোল পেয়েছে৷‌ ও খেললে ইস্টবেঙ্গল ডিফেন্স চাপে থাকবে৷‌’ বিদেমি বলেন, ‘টালিগঞ্জ জেতার লক্ষ্যেই খেলবে৷‌ আমরা চ্যাম্পিয়ন হতে পারি এই বিশ্বাসটা তৈরি করে দিয়েছেন বাবলুদা (সুব্রত ভট্টাচার্য)৷‌ উনি দলের স্তম্ভ৷‌ ওঁর জন্যই ট্রফি জিততে মরিয়া সবাই৷‌’ প্রতিপক্ষে ডুডু-রন্টির মতো ফুটবলার৷‌ ওঁদের রুখে দেওয়ার চ্যালেঞ্জ নিতে তৈরি টালিগঞ্জের স্টপার বেলো৷‌ বলেন, ‘আমি খেলব কিনা সেটা ঠিক করবেন টি ডি৷‌ সুব্রত ভট্টাচার্যের কোচিংয়ে গতবার ইউনাইটেড স্পোর্টসে থাকতে খেলেছি৷‌ তাই উনি কী চান সেটা আমি জানি৷‌ রন্টির সঙ্গে দুই মরশুম খেলেছি৷‌ তাই ওর খেলাও জানা৷‌ ডুডুর মুখোমুখি হওয়াও নতুন নয়৷‌ তবে এটা মাথায় রাখতেই হবে, গোয়ার ক্লাবে বা ইউনাইটেড স্পোর্টসে আমি পাশে পেয়েছি অনেক পরিণত ফুটবলারকে৷‌ সেখানে টালিগঞ্জের অধিকাংশ ফুটবলার নবীন৷‌ তাই বাড়তি দায়িত্ব নিতেই হবে৷‌ তাছাড়া ইস্টবেঙ্গলের প্লাস পয়েন্ট ওদের হাজার হাজার সমর্থক৷‌ চেষ্টা করব সেরা দিয়ে ম্যাচ জিততে৷‌’ আত্মবিশ্বাসী কোকো৷‌ বলেন, ‘সর্বোচ্চ গোলদাতা হওয়া মূল লক্ষ্য নয়, ট্রফি চাই৷‌ শুনেছি ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগানের বাইরে কেউ লিগ জেতে না৷‌ এই একতরফা আধিপত্য শেষ করে লিগ জেতার জন্যই কলকাতায় এসেছি৷‌ অন্যরাও পারে, এই স্বপ্নপূরণের লক্ষ্যে কাল মাঠে নামব৷‌’ যদি ডিফেন্সে খেলতে বলেন, তাহলে কী ভূমিকা নেবেন? কোকোর মজার উত্তর, ‘ডুডুকে গোল করতে দেব না, যাতে ও আমাকে টপকে যেতে না পারে৷‌’ ডুডু-রন্টির মতো কাকে বেশি বিপজ্জনক মনে করছেন? কোকোর জবাব, ‘রন্টি বুদ্ধিমান স্ট্রাইকার৷‌ ওকে ম্যান মার্কিং করে আটকানো যায় না৷‌ সমানে জায়গা বদল করে খেলে৷‌ ডুডুও ভারতে অনেকদিন খেলেছে৷‌ তবে ওর মূল শক্তি হল স্ট্রেংথ৷‌ শটে অসম্ভব জোর৷‌ যে কোনও জায়গা থেকে গোল করতে পারে৷‌ তাই দু’জনকে স্পেস দিলে চলবে না৷‌’ রবিবার থেকেই মৌলালি যুব কেন্দ্রে আবাসিক শিবিরে রয়েছে টালিগঞ্জ দল৷‌ সোমবার অনুশীলন শেষ করেই পুরো দল চলে আসে যুব কেন্দ্রে৷‌ সেখানে এসেও প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেন সুব্রত৷‌ করেন টিম মিটিং৷‌ যেখানে ছিলেন ক্লাবের সভাপতি মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসও৷‌ তিনি ফুটবলারদের উজ্জীবিত করেন৷‌ চ্যাম্পিয়ন হলে ফুটবলারদের ৭ লাখ টাকা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন৷‌ পাঁচতারা হোটেলে সংবর্ধনা দেওয়া হবে৷‌ ফুটবলাররা বিকেলে টিভিতে দেখলেন মোহনবাগানের খেলা৷‌ মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের উদ্যোগেই যুব কেন্দ্রের অডিটোরিয়ামে ফুটবলারদের দেখানো হল ‘এগারো’৷‌ ১৯১১ সালে মোহনবাগানের ঐতিহাসিক শিল্ডজয়কে নিয়ে তৈরি এই সিনেমা দেখানোর কারণ যাতে ফুটবলাররা উদ্দীপ্ত হতে পারেন৷‌ মন্ত্রী জানান, ফুটবলারদের বলেছি লিগ জিতলে পরের মরশুমে সম্মানজনক চুক্তিতে সকলকে রাখা হবে৷‌ তাছাড়া বিদেশে ট্রেনিং করতেও পাঠানো হবে৷‌ রাতে মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের আমন্ত্রণে যুব কেন্দ্রে এসে ফুটবলারদের চাগালেন টালিগঞ্জের মেন্টর চিত্রতারকা-সাংসদ দেব৷‌ শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, ‘মেদিনীপুরের প্রত্যম্ত গ্রাম থেকে যদি আমি অভিনেতা ও সাংসদ হতে পারি, তাহলে টালিগঞ্জকে কেন তোমরা চ্যাম্পিয়ন করে ৫৬ বছর পর ইতিহাস গড়বে না? একটা গোল করে, গোল বাঁচিয়ে স্বপ্ন পূরণের মাধ্যমে তোমরা একজন একজন সুপারস্টার হয়ে উঠবে৷‌ তোমরা সকলেই প্রতিভাবান, ট্রফি জিতলে মানুষ তোমাদের নামে নামে চিনবে৷‌ বাংলা ফুটবল এক নতুন চ্যাম্পিয়ন পাবে৷‌’


kolkata || bangla || bharat || bidesh || editorial || post editorial || khela ||
Tripura || Error Report || archive || first page

B P-7, Sector-5, Bidhannagar, Kolkata - 700091, Phone: 30110800, Fax: 23675502/5503
Copyright © Aajkaal Publishers Limited

Designed, developed & maintained by   Remote Programmer Private Limited