দীপঙ্কর নন্দী: তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চ্যাটার্জি ও সাংসদ অভিষেক ব্যানার্জি শুক্রবার স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিনে বিজেপি–‌কে কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন। পার্থ বলেন, বিজেপি বাংলায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে। অনেক ৩৫৬ ধারা দেখেছি। হাতি–ঘোড়া গেল তল, মশা বলে কত জল! পার্থ এদিন জানিয়ে দেন, স্বামীজিকে শ্রদ্ধা জানাতে ডান্ডার ওপর পতাকা লাগানোর প্রয়োজন হয় না। স্বামীজি সবার হৃদয়ে আছেন। পার্থ বলেন, উত্তর কলকাতায় বাইরে থেকে লোক এনে বিজেপি গোলমাল পাকিয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত থেকেই বিভিন্ন গেস্ট হাউসে বিজেপি–‌র কিছু কর্মী ছিলেন। তাঁরাই শুক্রবার সকালে গেস্ট হাউস থেকে বেরিয়ে গোলমাল পাকান। দুঃখের বিষয়, বিবেকানন্দকে বিজেপি এখনও অসম্মান করে চলেছে। অভিষেক বলেন, উত্তর কলকাতায় কীভাবে আজ স্বামীজিকে অসম্মানিত করা হয়েছে, তা সকলেই দেখেছেন। এঁরা কখনই বেলুড় মঠকে সম্মান দেখাননি। পার্থ আরও বলেন, কেন্দ্র বিবেকানন্দের সঙ্গে দীনদয়াল উপাধ্যায়কে একই আসনে বসানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আমাদের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি এর প্রতিবাদ করেছেন। দীনদয়াল তাঁদের দলের শ্রদ্ধার পাত্র হতে পারেন, কিন্তু একই মঞ্চে বিবেকানন্দ, দীনদয়ালকে রাখা যায় না। পার্থ বলেন, আজ বিজেপি বিবেকানন্দের জন্মদিন পালন করছে। মমতা বিবেকানন্দের সার্ধশতবর্ষ পালন করতে পারেননি। তবে তাঁর জন্মদিন মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে দলের নেতা–কর্মীরা পালন করছেন। বিজেপি নেতারা সংবাদপত্রের শিরোনামে থাকার জন্য তাণ্ডব করতে কর্মীদের নির্দেশ দিচ্ছেন। এই নেতারাই জনগণের কাছ থেকে প্রত্যাখ্যাত হয়েছেন। বিজেপি আজ যেভাবে গোলমাল করেছে, অতীতে কখনই তা পারেনি। এরা রামকে সামনে নিয়ে মিছিল করছে, আবার কখনও অস্ত্র নিয়ে পদযাত্রা করছে। সাম্প্রদায়িক বিজেপি যেভাবে তাণ্ডব করছে, তার সঙ্গে বাংলার সংস্কৃতির কোনও মিল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। বাংলার মানুষ বিজেপি–‌র এই আচরণের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবেন। মমতা ব্যানার্জির নেতৃত্বেই আমরা তাদের প্রতিরোধ করব। বাংলার মানুষ মমতার সঙ্গে আছেন। আগামী দিনেও থাকবেন। পার্থ বলেন, যারা গোলমাল করেছে, প্রশাসন কঠোরভাবে তাদের মোকাবিলা করবে। ওরা নাকি দলের সভাপতিকে রিপোর্ট দেবে। আমরা রিপোর্ট দেব মুখ্যমন্ত্রীকে। দিলীপ ঘোষকে কটাক্ষ করে পার্থ বলেন, এই ঘোষ, চ্যাটার্জি নিয়ে আমাদের কোনও মাথাব্যথা নেই। এঁরা কী কারণে বাংলাকে অশান্ত করছেন, সেটাই আমাদের প্রশ্ন। রাজ্যপালের কাছে আগেও গেছেন, এখনও যেতে পারেন। আবার বলছি, বাংলায় পদ্ম কেন, কুঁড়িও ফুটবে না।

জনপ্রিয়
আজকাল ব্লগ

Back To Top