‌‌আজকালের প্রতিবেদন:‌ ফের শহরে বাসের রেষারেষির বলি হলেন এক মহিলা। মৃতের নাম আরতি গুহ (‌৫৫)‌। আজ সকাল সাড়ে ৭টা নাগাদ খান্না ক্রসিং পেরোচ্ছিলেন তিনি। সেই সময় শ্যামবাজার থেকে দ্রুতগতিতে রেষারেষি করতে করতে আসছিল ২০২ ও ২২৭ নম্বর বাস দুটি। ২০২ নম্বর বাসটি অন্য বাসটিকে ওভারটেক করতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে পিষে দেয় ওই মহিলাকে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তাঁর। বটতলা থানার পুলিস তাঁকে উদ্ধার করে আরজিকর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। পুলিস জানিয়েছে, দুর্ঘটনায় মৃত আরতি গুহ উল্টোডাঙার বাসিন্দা। খান্নার একটি বাড়িতে আয়ার কাজ করতেন। রোজ ৮টার সময় কাজে যেতেন তিনি। এদিনও কাজের জন্যই বেরিয়েছিলেন। বাসের চালকরা পালিয়ে গেলেও বাস দুটি আটক করা হয়েছে। বটতলা থানার পুলিস জানিয়েছে, শিগগিরই গ্রেপ্তার করা হবে তাদের। পথ–দুর্ঘটনা আটকাতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে কলতাতা পুলিস। কিন্তু রেষারেষিতে কিছুতেই লাগাম পরানো যাচ্ছে না। আজ সকালে খান্না ক্রসিংয়ের কাছে ওই দু’টি বাসের রেষারেষি চলছিল বলে জানিয়েছেন স্থানীয় মানুষজন। একটি বাস অন্য বাসটিকে প্রচণ্ড গতিতে ওভারটেক করতে গিয়ে পিষে দেয় ওই মহিলাকে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানাচ্ছেন, ওই বাসটির পিছনেই অন্য বাসটি ছিল। দু’টির মধ্যে তীব্রগতিতে রেষারেষি চলছিল। ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান ওই মহিলা। এরপর বাসটি গতি আরও বাড়িয়ে পালানোর চেষ্টা করে। কিন্তু লোকজন আটকে দেন বাস দুটিকে। এরপরই বাস থেকে লাফ দিয়ে পালায় দুই বাসের চালক। বাস দুটিকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় বটতলা থানার পুলিস। পুলিস জানিয়েছে, বাস দুটি চিহ্নিতও করা হয়েছে। চালক খুব শিগগিরই ধরা পড়বে। একই রুটের বাসগুলির মধ্যে সকালের ব্যস্ত সময়ে রেষারেষি নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কয়েকদিন আগেও এই একই জায়গায় দুটি বাসের রেষারেষিতে কয়েকজন আহত হয়েছেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। প্রশাসনের তরফ থেকে অনেক উদ্যোগ নেওয়া হলেও রেষারেষির ঘটনা কমছে না। ‌পুলিস বাসের রেষারেষি রুখতে নানা ভাবে চেষ্টা করছে। রাস্তায় স্পিড ব্রেকার তৈরি করা হয়েছে, বসানো হয়েছে সিসিটিভি। নিয়ম ভাঙলে নিয়মিত কেস-ও দেওয়া হচ্ছে। এমনকী, দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যুর ক্ষেত্রে চালকের বিরুদ্ধে অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলাও রুজু করছে পুলিস। পাশাপাশি, সচেতনতা–শিবিরও করা হচ্ছে নিয়মিত। এত সব সত্ত্বেও রেষারেষিতে দুর্ঘটনা কমছে না কেন? পুলিসের একাংশের দাবি, পরিকাঠামো সংস্কার হওয়ায় আগের থেকে দুর্ঘটনার সংখ্যা কমেছে। কিন্তু এখনও চালকদের একাংশের হুঁশ ফেরেনি। রেষারেষি ও নিয়মভঙ্গের ক্ষেত্রেও কোনও রেয়াত করা হবে না। এই ব্যাপারে পুলিস আরও কড়া হবে।‌

জনপ্রিয়
আজকাল ব্লগ

Back To Top